kalerkantho

শুক্রবার  । ১৮ অক্টোবর ২০১৯। ২ কাতির্ক ১৪২৬। ১৮ সফর ১৪৪১              

উদ্যোক্তা

ছোট পদ থেকে হুয়াওয়ের শীর্ষে উঠেন মেং

বাণিজ্য ডেস্ক   

৯ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ছোট পদ থেকে হুয়াওয়ের শীর্ষে উঠেন মেং

মেং ওয়ানঝহো সিএফও, হুয়াওয়ে টেকনোলজিস

কে ভেবেছিল স্মার্টফোন বাজারে যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাপলের মতো প্রতিষ্ঠানকে পেছনে ফেলবে চীনের একটি টেলিকম কম্পানি। শেষ পর্যন্ত তাই করে দেখিয়েছে হুয়াওয়ে টেকনোলজিস। কম্পানির এ সাফল্যের পেছনে যার ভূমিকা ব্যাপকভাবে স্বীকৃত তিনি মেং ওয়ানঝহো।

আকস্মিক গ্রেপ্তারের আগে খুব কম লোকই মেং ওয়ানঝহোকে চিনত। ৪৬ বছর বয়সী এ নির্বহী হুয়াওয়ে টেকনোলজিসের প্রধান অর্থ কর্মকর্তা (সিএফও) এবং ডেপুটি চেয়ারউইম্যান। যুক্তরাষ্ট্রের অভিযোগের ভিত্তিতে সম্প্রতি তিনি কানাডায় গ্রেপ্তার হয়েছেন। তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ হচ্ছে তিনি ইরানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের করা নিষেধাজ্ঞা অমান্য করার চেষ্টা করেছেন। বিশ্বের দুই বৃহৎ অর্থনৈতিক দেশের দ্বন্দ্বের মাঝামাঝি দাঁড়িয়ে এখন মেং।

মেং হচ্ছেন হুয়াওয়ের প্রতিষ্ঠাতা রেন ঝেংগফির কন্যা। ধারণা করা হচ্ছে, ৩.৪ বিলিয়ন ডলারের মালিক ঝেংগফির পরবর্তী উত্তরসুরি মেং। যদিও মেং সম্পর্কে তথ্য খুব বেশি জানা যায় না। তিনি বিবাহিত, তাঁর একটি ছেলে ও একটি মেয়ে আছে। মাত্র ২০ বছর বয়সে ১৯৯৩ সালে হুয়াওয়েতে তাঁর কর্মজীবন শুরু হয়। প্রথম চাকরি ছিল ফোন রিসিভ করে জবাব দেওয়া। পরবর্তী সময় তিনি আবারও কর্মজীবন ছেড়ে চীনের হুয়াঝহোং ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি থেকে মাস্টার ডিগ্রি গ্রহণ করেন। এরপর ১৯৯৭ সালে আবার ফিরে আসেন এবং হুয়াওয়ের ফিন্যান্স বিভাগে যোগ দেন।

১৯৮৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় হুয়াওয়ে। কিন্তু কম্পানিটির নাটকীয় উত্থান বলা যায় মেং যোগেই। ফিন্যান্স ও অ্যাকাউন্টিংয়ে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন মেং। বর্তমান দায়িত্ব গ্রহণের আগে তিনি হুয়াওয়ে হংকংয়ের সিএফও এবং অ্যাকাউন্টিং ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রেসিডেন্ট ছিলেন। হুয়াওয়ের বেশ কিছু পুনর্গঠনে তাঁর ভূমিকা ছিল। কম্পানি বিশ্বব্যাপী বিস্তৃত হতে থাকায় প্রতিষ্ঠানের কেন্দ্রীকরণ এবং ফিন্যান্স ও অ্যাকাউন্টিং বিভাগের উন্নয়নে তিনি ভূমিকা রাখেন। ২০১১ সালে তিনি কম্পানির বোর্ড সদস্য হন এবং গত মার্চে চারজন ভাইস চেয়ারের অন্যতম হন।

বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান আইডিসির তথ্য অনুযায়ী বর্তমানে ফোন ও ইন্টারনেট কম্পানিগুলোর জন্য বিশ্বের সবচেয়ে বড় নেটওয়ার্ক গিয়ার সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে। টানা দ্বিতীয় প্রান্তিকে স্মার্টফোন বিক্রিতেও বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহৎ কম্পানিতে পরিণত হয়েছে। অ্যাপলকে ছাড়িয়ে বর্তমানে স্যামসাংয়ের পেছনে রয়েছে হুয়াওয়ে। ২০১১ সাল থেকে ২০১৭ সালের মধ্যে কম্পানির নেট মুনাফা বেড়েছে তিন গুণ। কম্পানির নেট মুনাফা বেড়ে হয় ৪৭.৫ বিলিয়ন ইউয়ান (৬.৯ বিলিয়ন ডলার)। এসব সাফল্যের পেছনে থেকে বড় ভূমিকা রেখেছেন মেং।

গত কয়েক বছর থেকেই হুয়াওয়েকে যুক্তরাষ্ট্র তাদের জাতীয় নিরাপত্তায় উদ্বেগের অন্যতম কারণ মনে করতে থাকে। ফলে মেংয়ের বিষয়টি বাণিজ্য ছাড়িয় রাজনৈতিক ইস্যুতে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। গত শুক্রবার তাঁকে কানাডার একটি আদালতে হাজির করা হয়েছে। তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ ইরানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের অবরোধ ভঙ্গ করার চেষ্টা করেছিলেন।  সিএনএন মানি, জাপান টাইমস।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা