kalerkantho

রিজার্ভ চুরি

আরসিবিসির বিরুদ্ধে মামলা এপ্রিলে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৫ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আরসিবিসির বিরুদ্ধে মামলা এপ্রিলে

নিউ ইয়র্কের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকে থাকা বাংলাদেশ ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট থেকে রিজার্ভ চুরির অর্থ উদ্ধারে অবশেষে ফিলিপাইনের রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং করপোরেশনের (আরসিবিসি) বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। আগামী এপ্রিল মাসেই নিউ ইয়র্কের আদালতে এ মামলা করা হবে বলে গতকাল জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। দুপুরে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সম্মেলনকক্ষে এক আন্ত মন্ত্রণালয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ, বাংলাদেশ ব্যাংক, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

সভার পর অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘চুরি হওয়া রিজার্ভের অর্থ ফেরত আনতে মামলা করার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। আগামী এপ্রিল মাসেই এই মামলা করতে চাই। যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কের আদালতে এ মামলা করা হবে। এ জন্য পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ-সিআইডিকে দ্রুত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।’ দুই বছর আগে চুরি যাওয়া আট কোটি ১০ লাখ ডলারের মধ্যে এখনো ছয় কোটি ৬৪ লাখ ডলার ফেরত পায়নি বাংলাদেশ। ওই অর্থ ফেরত পাওয়ার জন্য ফিলিপাইনের আরসিবিসিকে চাপ দেওয়া হলেও তারা উল্টো এ ঘটনার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংককেই দায়ী করছে। এমনকি রিজার্ভ চুরি নিয়ে সরকার গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনও চেয়ে বসেছে ব্যাংকটি। তবে বাংলাদেশ জানিয়ে দিয়েছে, প্রতিবেদন দেওয়া হবে না। অর্থ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, চুরির বাকি অর্থ আদায়ে মামলা করা ছাড়া আর কোনো উপায় নেই। আর যেহেতু যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকে থাকা বাংলাদেশ ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট থেকে ভুয়া পেমেন্ট অর্ডারে অর্থ হাতিয়েছে, তাই যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় ব্যাংকটিকেও এই মামলায় পার্টি করার চেষ্টা করা হচ্ছে। তবে তারা এখনো পার্টি হতে রাজি হয়নি। যুক্তরাষ্ট্রের ফৌজদারি আদালতে মামলা করতে ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সময় রয়েছে বাংলাদেশের হাতে। নিউ ইয়র্কের আদালতে মামলা করতে কোনো ল’ ফার্ম নিয়োগ দেওয়া হয়েছে কি না, এমন প্রশ্নে অর্থমন্ত্রী বলেন, এখনো দেওয়া হয়নি। তবে যুক্তরাষ্ট্রের একটি ফার্মকে নিয়োগ দেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে।

আর ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংককে পার্টি হতে রাজি করাতে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. ফজলে কবির যোগাযোগ রক্ষা করছেন বলে জানান তিনি।

মন্তব্য