kalerkantho

তিন প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি লোকসান ১.০৬ টাকা

ইউনাইটেড এয়ারের রুগ্ণ দশা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ইউনাইটেড এয়ারের রুগ্ণ দশা

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ লিমিটেডের লোকসান বাড়ছে। কার্যক্রম বন্ধ থাকায় ফেসভ্যালুর ১০ টাকা দামের শেয়ার অর্ধেক দামে নেমেছে। গতকাল রবিবার কম্পানিটি ২০১৬ সালের জুলাই থেকে ২০১৭ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত সময়ে তিন প্রান্তিকের হিসাব প্রকাশ করেছে। যদিও তালিকাভুক্ত কম্পানিকে বছরের প্রথম প্রান্তিকের সময় শেষ হওয়ার ৪৫ দিনের মধ্যে আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করতে হয়। তবে সেটি করতে ব্যর্থ হয়েছে কম্পানিটি।

ডিএসইর তথ্য মতে, ২০১৬-১৭ অর্থবছরের ৯ মাসে তিন প্রান্তিকে কম্পানিটির শেয়ারপ্রতি লোকসান ১.০৬ টাকা। আগের বছর এই সময়ে লোকসান ছিল ০.৯০ টাকা। অর্থাৎ কম্পানিটির লোকসান বেড়েছে ০.১৬ টাকা বা ১৮ শতাংশ। এই সময়ে শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ৭.৭৭ টাকা।

২০১৬ সালের জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে প্রথম প্রান্তিকে কম্পানিটির শেয়ারপ্রতি লোকসান ০.৪৪ টাকা। আর শেয়ারপ্রতি সম্পদ ৮.৩০ টাকা। ২০১৫ সালের এই সময়ে কম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় ছিল ০.০২ টাকা আর শেয়ারপ্রতি সম্পদ ছিল ৮.৭৫ টাকা।

অক্টোরব-ডিসেম্বর সময়ে দ্বিতীয় প্রান্তিকে কম্পানিটির শেয়ারপ্রতি লোকসান ০.৩৪ টাকা। ২০১৫ সালে এই সময়ে শেয়ারপ্রতি আয় ছিল ০.০৫ টাকা। আর জুলাই থেকে ডিসেম্বর সময়ে কম্পানিটির শেয়ারপ্রতি লোকসান ০.৭৮ টাকা। ২০১৫ সালে এই আয় ছিল ০.০৭ টাকা। ২০১৭ সালে জানুয়ারি-মার্চ তৃতীয় প্রান্তিকে কম্পানিটির শেয়ারপ্রতি লোকসান ০.৩২ টাকা। ২০১৬ সালে এই সময়ে লোকসান ছিল ০.৯৭ টাকা।

কম্পানি সূত্র জানায়, রবিবার তিন প্রান্তিকের হিসাব প্রকাশ করলেও আজ সোমবার কম্পানিটির ২০১৬-১৭ অর্থবছরের আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করবে পরিচালনা পরিষদ। ২০১৭ সালের জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর মাস অর্থাৎ নতুন বছরের প্রথম প্রান্তিকের আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করবে।

এ বিষয়ে কম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তাসবীরুল আহমেদ চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, ‘কম্পানির সব কিছুই আপডেট করা হচ্ছে। তিন প্রান্তিকের রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে। আগামীকাল (আজ) ২০১৬-১৭ অর্থবছরের সব রিপোর্ট প্রকাশ করা হবে। পাশাপাশি ২০১৭-১৮ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকের রিপোর্ট প্রকাশ করা হবে।’

গতকালের শেয়ারের দাম : রবিবার ইউনাইটেড এয়ারের শেয়ার দাঁড়িয়েছে ৫.৭০ টাকা। দিন শেষে শেয়ারের দাম কমেছে ০.২ টাকা বা ৩.৩৯ শতাংশ। উৎপাদনে না থাকায় কম্পানিটির শেয়ারের দাম ফেসভ্যালুর নিচেই লেনদেন হচ্ছে। কম্পানিটির ৮২ কোটি ৮০ লাখ ৯৮ হাজার ৪৮০টি শেয়ারের মধ্যে ৬৯.৬২ শতাংশ শেয়ারের মালিকানা সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। ১২.১৮ শতাংশ শেয়ার বিদেশি আর ১৪.০৪ শতাংশ শেয়ার রয়েছে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর। পরিচালনা পর্ষদের হাতে রয়েছে ৪.১৬ শতাংশ শেয়ার।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা