kalerkantho

শনিবার । ২৫ জুন ২০২২ । ১১ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৪ জিলকদ ১৪৪৩

অর্থনৈতিক সম্ভাবনায় দ্বিতীয়

বাংলাদেশ সবচেয়ে আশাবাদী দেশ

বাণিজ্য ডেস্ক   

১৩ জানুয়ারি, ২০১৬ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বাংলাদেশ সবচেয়ে আশাবাদী দেশ

রাজনৈতিক অস্থিরতা কিংবা অর্থনৈতিক দুর্দশা—শত ঝড়ঝঞ্ঝায়ও মানুষ আশাহত হয় না, বরং সব সময় আশাবাদী। আর এ আশাবাদ বিবেচনায় বিশ্বের সব দেশের তুলনায় এগিয়ে রয়েছে বাংলাদেশের মানুষ। এমনকি অর্থনৈতিক উন্নয়নের প্রত্যাশায়ও বাংলাদেশের মানুষ অন্যদের চেয়ে এগিয়ে। এ বিবেচনায় বিশ্বের দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান দ্বিতীয়।

বিজ্ঞাপন

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান উইন ও গ্যালাপ ইন্টারন্যাশনাল প্রকাশিত প্রতিবেদনে বিশ্বের শীর্ষ দশ আশাবাদী দেশ এবং শীর্ষ দশ হতাশ দেশের তালিকা প্রকাশ করা হয়। এতে সবাইকে চমকে দিয়ে শীর্ষে রয়েছে বাংলাদেশ। আশাবাদ, অর্থনৈতিক সম্ভাবনা ও সুখ এ তিনটি আলাদা সূচকের ওপর পরিচালিত হয় এ জরিপ।

আগামী বছরটি বাংলাদেশের জন্য আরো ভালো যাবে, না খারাপ হবে—এমন প্রশ্নের জবাবে দেশের ৮১ শতাংশ মানুষ জানায়, আগামী বছরটি আরো ভালো যাবে। ৭ শতাংশ মানুষ নতুন বছর নিয়ে হতাশ। ১১ শতাংশ মানুষ মনে করছে, বর্তমান অবস্থার পরিবর্তন ঘটবে না এবং ২ শতাংশ মানুষ কোনো মন্তব্য দেয়নি। সব মিলিয়ে এ দেশের ৭৪ শতাংশ মানুষই আশাবাদী ২০১৬ সাল তাদের জন্য সম্ভাবনা বয়ে আনবে। এ জরিপে বিশ্বের সবচেয়ে আশাবাদী ১০ দেশের মধ্যে প্রথম স্থানে রয়েছে বাংলাদেশ।

অর্থনৈতিক সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান দ্বিতীয়। আগামী বছরটি বাংলাদেশের অর্থনীতির জন্য সম্ভাবনাময় হবে, না আরো কঠিন হবে—এমন প্রশ্নের জবাবে ৭২ শতাংশ মানুষ অর্থনৈতিক আশাবাদের কথা জানায়। ১২ শতাংশ মানুষ নতুন বছরের অর্থনীতি নিয়ে হতাশা প্রকাশ করে। ১৪ শতাংশ মানুষ জানায়, এ বছর কোনো পরিবর্তন আসবে না। ২ শতাংশ মানুষ কোনো উত্তর দেয়নি। সব মিলিয়ে দেশের ৬০ শতাংশ মানুষই নতুন বছরের অর্থনীতি নিয়ে আশাবাদী।

অন্যদিকে সুখ সূচকে প্রশ্ন করা হয় বর্তমান জীবন নিয়ে মানুষ সুখী কি না। এমন প্রশ্নের জবাবে বাংলাদেশের ৬৬ শতাংশ মানুষ জানায় তারা সুখী। ২৮ শতাংশ মানুষ সুখী কিংবা অসুখী কোনোটিই মনে করছে না। মাত্র ৪ শতাংশ মানুষ বর্তমান জীবন নিয়ে অসুখী। ২ শতাংশ মানুষ কোনো উত্তর দেয়নি। সব মিলিয়ে বাংলাদেশের ৬২ মানুষ নিজেদের সুখী হিসেবে মনে করছে।

বিশ্বের ৬৮ দেশের ৬৬ হাজার ৪০ জন মানুষের ওপর জরিপটি চালিয়েছে গ্যালাপ। অংশগ্রহণকারী প্রতি দেশের প্রায় এক হাজার মানুষ এ সাক্ষাত্কারে অংশ নিয়েছে। গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বর সময়ে এ কার্যক্রম পরিচালিত হয়েছে। বছরের শুরুতেই প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়। এটি গ্যালপের ৩৯তম বার্ষিক জরিপ।

জরিপে আশাবাদ সূচকে বাংলাদেশের পরের অবস্থান দ্বিতীয় স্থানে থাকা চীনের ৭০ শতাংশ মানুষ নতুন বছর নিয়ে আশাবাদী, তৃতীয় স্থানে থাকা নাইজেরিয়ার ৬৮ শতাংশ মানুষ আশাবাদী, চতুর্থ স্থানে থাকা ফিজির ৬১ শতাংশ মানুষ আশাবাদী নতুন বছর নিয়ে। পঞ্চম স্থানে থাকা মরক্কোর ৫৭ শতাংশ মানুষ আশাবাদী, ষষ্ঠ স্থানে থাকা সৌদি আরবের ৫৬ শতাংশ মানুষ আশাবাদী, সপ্তম অবস্থানে থাকা ভিয়েতনামের ৫৫ শতাংশ মানুষ আশাবাদী, অষ্টম স্থানে থাকা আর্জেন্টিনার ৫৩ শতাংশ মানুষ আশাবাদী, নবম স্থানে থাকা ভারতের ৪৭ শতাংশ মানুষ আশাবাদী এবং পাকিস্তানের ৪২ শতাংশ মানুষ নতুন বছর নিয়ে আশাবাদী।

অর্থনৈতিক উন্নয়নের আশাবাদে প্রথম স্থানে রয়েছে নাইজেরিয়া। এ দেশের ৬১ শতাংশ মানুষ অর্থনৈতিকভাবে উন্নত ভবিষ্যতের ব্যাপারে আশাবাদী। এ তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান দ্বিতীয়। তৃতীয় স্থানে থাকা চীনের ৫৪ শতাংশ মানুষ নতুন বছরের অর্থনৈতিক উন্নয়নের ব্যাপারে আশাবাদী, চতুর্থ স্থানে থাকা ভিয়েতনামের ৫৩ শতাংশ মানুষ আশাবাদী, পঞ্চম হওয়া পাকিস্তানের ৫০ শতাংশ মানুষ আশাবাদী, ষষ্ঠ স্থানে থাকা ভারতের ৪৪ শতাংশ মানুষ আশাবাদী, সপ্তম হওয়া মরক্কোর ৪৪ শতাংশ মানুষ আশাবাদী, অষ্টম স্থানে থাকা ফিজির ৩৯ শতাংশ মানুষ আশাবাদী, নবম স্থানে থাকা সৌদি আরবের ৩২ শতাংশ এবং দশম হওয়া আর্জেন্টিনার ২৮ শতাংশ মানুষ নতুন বছরের অর্থনৈতিক উন্নয়ন নিয়ে আশাবাদী।

প্রতিবেদন অনুযায়ী সুখী দেশের তালিকার শীর্ষে রয়েছে কলম্বিয়া। দেশটির ৮৫ শতাংশ মানুষ নিজেদের সুখী মনে করে। বিশ্বের ৬৬ শতাংশ মানুষ তাদের জীবন নিয়ে সুখী। তবে ২০১৪ সালের তুলনায় এটি কিছুটা কমেছে। ২০১৪ সালে ৭০ শতাংশ মানুষ জীবন নিয়ে সুখী ছিল। বর্তমানে বৈশ্বিক সুখী মানুষের হার ৫৬ শতাংশ। বিশ্বের ৪৫ শতাংশ মানুষ তাদের অর্থনৈতিক অবস্থা নিয়ে আশাবাদী। ২২ শতাংশ মানুষ এ নিয়ে হতাশ। আর ২৮ শতাংশ মানুষ মনে করছে, এ অবস্থা আগামীতেও একই থাকবে।



সাতদিনের সেরা