kalerkantho

শনিবার । ২৪ আগস্ট ২০১৯। ৯ ভাদ্র ১৪২৬। ২২ জিলহজ ১৪৪০

অ্যাক্রেডিটেশন সনদ গ্রহণে গুরুত্ব বেড়েছে : শিল্পমন্ত্রী

বাণিজ্য ডেস্ক   

১০ জুন, ২০১৫ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অ্যাক্রেডিটেশন সনদ গ্রহণে গুরুত্ব বেড়েছে : শিল্পমন্ত্রী

আন্তর্জাতিক রপ্তানি বাণিজ্যে নিজেদের অবস্থান সুসংহত করতে বিশ্বের সব দেশেই অ্যাক্রেডিটেশন সনদ গ্রহণের গুরুত্ব বেড়েছে, বিএবি আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি অর্জনের ফলে বাংলাদেশেও এ ধারা জোরদার হচ্ছে। এ ধারা অব্যাহত রাখলে বাংলাদেশি পণ্য সহজেই আন্তর্জাতিক বাজারের অশুল্ক প্রতিবন্ধকতা অতিক্রমে সক্ষম হবে। আমির হোসেন আমু, শিল্পমন্ত্রী

আন্তর্জাতিক রপ্তানি বাণিজ্যে নিজেদের অবস্থান সুসংহত করতে বিশ্বের সব দেশেই অ্যাক্রেডিটেশন সনদ গ্রহণের গুরুত্ব বেড়েছে, বিএবি আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি অর্জনের ফলে বাংলাদেশেও এ ধারা জোরদার হচ্ছে। বিশ্ব অ্যাক্রেডিটেশন দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ অ্যাক্রেডিটেশন বোর্ড (বিএবি) এবং ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) যৌথভাবে আয়োজিত সেমিনারে শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু এ কথা বলেন।

গতকাল অ্যাক্রেডিটেশন : স্বাস্থ্য ও সামাজিক সেবায় সহায়তাবিষয়ক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি আরো বলেন, এ ধারা অব্যাহত রাখলে বাংলাদেশি পণ্য সহজেই আন্তর্জাতিক বাজারের অশুল্ক প্রতিবন্ধকতা অতিক্রমে সক্ষম হবে।

শিল্পমন্ত্রী বলেন, এবারের বিশ্ব অ্যাক্রেডিটেশন দিবসে স্বাস্থ্য ও সামাজিক সেবার ওপর গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। তিনি মানসম্পন্ন ওষুধ উৎপাদন এবং অ্যাক্রেডিটেড স্বাস্থ্য সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার আহ্বান জানান। তিনি স্বাস্থ্য ও সামাজিক খাতে গড়ে ওঠা প্রতিষ্ঠানগুলো যাতে মানসম্পন্ন সেবা দিতে পারে, সে লক্ষ্যে এসব প্রতিষ্ঠান ও তাদের জনবলের গুণগতমান নিশ্চিত করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

বিএবি চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. আলতাফ হোসেনের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ডিসিসিআই ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হুমায়ুন রশিদ বলেন, বাংলাদেশের স্বাস্থ্যসেবা সম্পর্কে সাধারণ মানুষের মধ্যে আস্থাহীনতা রয়েছে এবং এ অবস্থা কাটিয়ে ওঠানোর জন্য স্বাস্থ্যসেবাগুলো অ্যাক্রেডিটেশনের আওতায় আনতে হবে। তিনি এ খাতের সঙ্গে জড়িত ব্যবসায়ীদের নৈতিকতা বজায় রেখে ব্যবসা পরিচালনার আহ্বান জানান। সেমিনারে অন্যদের মধ্যে ডিসিসিআই পরিচালক এ কে ডি খায়ের মোহাম্মদ খান, আব্দুস সালাম, সাবেক ঊর্ধ্বতন সহসভাপতি এম এস সেকিল চৌধুরী এবং ডিসিসিআই মহাসচিব এ এইচ এম রেজাউল কবির উপস্থিত ছিলেন।

 

মন্তব্য