kalerkantho

অর্থ ও প্রযুক্তিতে উদ্ভাবনের স্বীকৃতি পেল ডি মানি

বাণিজ্য ডেস্ক   

৪ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অর্থ ও প্রযুক্তিতে উদ্ভাবনের স্বীকৃতি পেল ডি মানি

অ্যাপাক বিজনেস হেডলাইনস ম্যাগাজিনের এ বছরের সম্ভাব্য ‘শীর্ষ দশ ওয়ালেট’-এর তালিকায় স্থান পেয়েছে ফিনটেক স্টার্টআপ ডি মানি বাংলাদেশ। শীর্ষ দশের এ তালিকায় দক্ষিণ এশিয়া থেকে স্থান পাওয়া একমাত্র ওয়ালেট ডিমানি। অ্যাপাক বিজনেস হেডলাইনস লিখেছে, ‘গ্রাহক ও অংশীদারদের কথা ভেবে তৈরি ডিমানি একটি এপিআইভিত্তিক প্ল্যাটফর্ম। একই সঙ্গে প্ল্যাটফর্মটি নিরাপদ, শক্তিশালী ও সহজে ব্যবহারযোগ্য।

এতে ডিজিটাল বাংলাদেশের রূপান্তরে ডিমানির ভবিষ্যতের সম্ভাবনা তুলে ধরা হয়। সিলিকন ভ্যালি ফেরত সোনিয়া বশির কবির ও আরিফ বশির ডিমানির সহপ্রতিষ্ঠাতা এবং চেয়ারম্যান হিসেবে রয়েছেন অঞ্জন চৌধুরী।

প্রতিষ্ঠানটির ভাইস চেয়ারম্যান ও সহপ্রতিষ্ঠাতা সোনিয়া বশির বলেন, ‘একটি দেশকে অনুন্নত দেশের থেকে মধ্যম আয়ের দেশে আরোহণের ক্ষেত্রে ডিজিটাল অন্তর্ভুক্তি (পেমেন্ট সুবিধা অন্যতম বিবেচনায়) খুবই গুরুত্বপূর্ণ চালিকাশক্তি।’ তিনি বলেন, ‘আর্থিক অন্তর্ভুক্তির চ্যালেঞ্জ নিয়ে আমরা আমাদের যাত্রা শুরু করি। পরে বুঝতে পারি অন্তর্ভুক্তিকে বৈশ্বিকভাবে দেখার ব্যাপারটা একট ক্ষীণ দৃষ্টিভঙ্গি রয়েছে। বিষয়টি হয় অন্তর্ভুক্তির ভেতরে অথবা বাইরে। মূল সমস্যা হলো ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানদের নিয়ে ইকোসিস্টেম গড়ে তোলা এবং তাদের কার্যকর পরিচালনা ও সফলতায় পণ্য ও সেবা প্রদান করা। আমরা আর্থিক অন্তর্ভুক্তি থেকে আর্থিকভাবে ভালো থাকায় ডিজিটাল ইকোসিস্টেম তৈরিতে আমাদের ব্যাবসায়িক কৌশল বিস্তৃত করছি। এই ইকোসিস্টেমে আমরা যে উদ্ভাবন দেখি তা নিয়েই আমরা ডিমানিতে কাজ করেছি। আগামী সেপ্টেম্বরে ডি মানির উদ্বোধনের সময় আমরা আরো উদ্ভাবন ও টেক ডিসরাপশন নিয়ে আসব।’

সহপ্রতিষ্ঠাতা ও এমডি আরিফ বশির বলেন, ‘বাংলাদেশের বাজার অনেক বড়, কিন্তু সুবিধাবঞ্চিত। এ মুহূর্তে ডিজিটাল লাইফস্টাইল ও আর্থিক সেবার সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন। এ চ্যালেঞ্জকে সামনে নিয়ে এ চাহিদা পূরণই ডিমানির লক্ষ্য। ডিমানি ইকোসিস্টেম ও অংশীদার তৈরিতে কাজ করবে এবং নগদ অর্থ থেকে ডিজিটাল রূপান্তরে বাধা দূরীকরণেও প্রতিষ্ঠানটি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’

সোনিয়া বশির কবির আরো বলেন, ‘অন্যান্য বড় প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আমরা এ তালিকায় থাকতে পেরে সম্মানিত। সামনের দিনগুলোতে এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলে ডিমানি অনেক সম্ভাবনা ও প্রবৃদ্ধি লক্ষ করছে। আমরা আমাদের নিজেদের সফটওয়্যার তৈরি করেছি এবং এ ক্ষেত্রে আমাদের শতভাগ মেধাস্বত্ব রয়েছে।

‘ধীরে ধীরে নগদ অর্থবিহীন ডিজিটাল অর্থনীতির রূপান্তরে প্রতিকূলতা দূরীকরণে ডিমানির প্রতিষ্ঠা। প্রসঙ্গত, ডিমানি একটি ব্যক্তিমালিকাধীন ডিজিটাল পেমেন্ট ও সেবাদান প্ল্যাটফর্ম।

মন্তব্য