kalerkantho

শনিবার । ৫ আষাঢ় ১৪২৮। ১৯ জুন ২০২১। ৭ জিলকদ ১৪৪২

নাদিয়ার ঈদ শাড়িতেই

‘এবার ঈদে শুধু শাড়িই পরব। অদ্রিয়ানার এক্সক্লুসিভ সব শাড়ি নিয়েছি ডিজাইনার নাজিয়া হাসানের কাছ থেকে। প্রতিটি শাড়ি সুন্দর। শাড়ির সঙ্গে মিলিয়ে মনের মতো করেই সাজব ঈদে। বাইরে যাই বা না যাই, সাজব নিজের জন্যই’—এভাবেই এবার ঈদের সাজের কথা জানিয়েছেন অভিনয়শিল্পী নাদিয়া আহমেদ

১০ মে, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



নাদিয়ার ঈদ শাড়িতেই

মডেল : নাদিয়া আহমেদ । পোশাক : অদ্রিয়ানা বাই নাজিয়া হাসান । সাজ : জাহিদ খান । ছবি : কৌশিক ইকবাল

বেগুনিতে রেট্রো লুক

সিল্কের সঙ্গে নেট আর লেইসের কম্বিনেশনে করা বেগুনি শাড়িটি ভারী জারদৌসি কাজে করা। সঙ্গে ম্যাচিং ব্লাউজ। যেহেতু এবার ঈদে শুধু শাড়িই পরব, তাই সকাল-দুপুর-রাতের হিসাব সেভাবে করছি না। হয়তো দিন শুরু করব এই শাড়ি দিয়েই। শাড়িতে স্টোন, পুঁতির জমকালো কাজ আছে। তাই এর সঙ্গে মিলিয়ে স্টোনের গয়নাই পরব। চুল ছেড়ে রাখব এই সাজে। তবে একটা রেট্রো লুক দিতে গয়নার নকশার সাথে মিলিয়ে  মাথায় ব্যান্ড পরব। কানে কিছু না পরলেও হাতে থাকবে বালা। মিনিমাল টোন থাকবে সাজে। এতেই সতেজ লাগে দেখতে আর এখন এই সাজ ট্রেন্ডিও। টোন মিনিমাল বলে চোখ হবে গাঢ়। চোখের সাজে হালকা স্মোকি ভাব থাকবে। আইল্যাশ গাঢ় করতে মাশকারার প্রলেপও হবে গাঢ়।

সোনালির মায়ায়

এই শাড়ি রাতের জন্যই বরাদ্দ। নেটের শাড়ি, তাতে পার্লের দানার কারুকাজ। আছে লেইসের কাজের কম্বিনেশনও। শাড়ির পারে শাড়ির রঙের গাঢ় শেডের ফ্রিল দেওয়া। ম্যাচিং ব্লাউজের হাতায়ও আছে ফ্রিলের কাজ। রাতের সাজ, তাই একটু জাঁকালো টোন থাকবে মেকআপে। তবে খুব বেশি নয়। বরাবরের মতো চোখ পাবে বিশেষ খাতির। চুলও বাদ যাবে না যত্নের ছোঁয়া পেতে। এবার রেট্রো লুকটা মনে ধরেছে। তাই ষাটের দশকের ঢেউ খেলবে চুলে। এখন অবশ্য এই পুরনো লুকগুলো সবার কাছেই আদর পাচ্ছে। দেখতেও বেশ লাগে। চুলের কার্ল দীর্ঘক্ষণ ধরে রাখতে হেয়ার সেটিং স্প্রে দেব। যেন এলোমেলো না হয়ে যায়। গয়নায় গলায় থাকবে স্টোনের চোকার। তাতে পার্ল বসানো। তার সঙ্গেই ম্যাচিং দুল। হাতের বালা আবার উঠবে হাতে।

ধূসর-আকাশির যুগলবন্দি

দুপুরের পর আরেকটি পছন্দের শাড়ি পরব। আকাশি আর ধূসর রঙের যুগলবন্দি ঘটেছে এই শাড়িতে।  অফ হোয়াইটের জোড়া লেগেছে শাড়ির নিচের অংশে। সত্যি বলতে, নাজিয়ার প্রতিটি নকশা এত ইউনিক, কী বলব! তা সে শাড়িই হোক বা কামিজ। শুধু এক্সক্লুসিভই না, শাড়িগুলে খুবই আরামদায়ক। এই শাড়িতেও লেইসের ভারী কাজের অংশ থাকবে কুঁচির পর আঁচল পর্যন্ত। সঙ্গে কন্ট্রাস্ট কম্বোর ব্লাউজ। ব্লাউজের হাতায় ফ্রিল বা কুঁচির কাজ শাড়ির রূপ যেন আরো বাড়িয়ে দিয়েছে। এত সুন্দর শাড়িতে খুব ভারী গয়না একদম নয়। কানে শুধু ঝুলবে কুন্দনের একটি দুল। সঙ্গে ম্যাচিং আংটি আর পছন্দের ঘড়িটা। চুলের নিচের অংশ ব্লো করে কার্ল করে নিলেই হলো। সাজের টোন আগেরটিই রেখে একটা টাচআপ দেব শুধু। নখে কিন্তু নেইলপলিশ মাস্ট!



সাতদিনের সেরা