kalerkantho

বুধবার । ২০ নভেম্বর ২০১৯। ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

বইরালমন্ত্র

দেশে এখন ভাইরাল হতে না পারলে আর মান-ইজ্জত থাকছে না। তার মধ্যে নতুন করে যোগ হয়েছে বই লিখে ভাইরাল হওয়ার প্রবণতা। মনে মনে এমন খায়েশের পায়েস খাচ্ছেন না—এমন কোনো লেখক আছেন নাকি? কিন্তু কী বই লিখে আর কিভাবে সেটা মার্কেটিং করে ভাইরাল হবেন ভেবে পাচ্ছেন না? আইডিয়া দিচ্ছি, এক মিনিট। লিখেছেন ধ্রুব নীল

১২ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



♦ বাংলার সঙ্গে চায়নিজ ভাষা মিশিয়ে আবেগঘন একটা আত্মজীবনী লিখে ফেলুন। ভুলেও অন্যদের কথা লিখতে যাবেন না। নিজের ভালো দিকগুলো বাংলায় আর খারাপগুলো চীনা ভাষায় লিখুন। চীনা ভাষা না জানলে সমস্যা নেই। চীনা অক্ষরের মতো পেঁচিয়ে একটা কিছু লিখে দিতে পারলেই হলো। তখন আপনার বই নিয়ে বিলুপ্ত ভাষার গবেষকদের মাঝেও হৈচৈ পড়ে যাবে। ইউটিউবে আপনাকে তুলাধোনা করে স্লাইড শো মার্কা ভিডিও বের হবে। বই কেউ পড়ুক বা বুঝক, আপনি হিট।  

♦ ‘ভান্ধবী’ নামে একটা বই লিখুন। মানে আগে থেকে ভাইরাল হওয়া বন্ধু-বান্ধবীদের ওপর লিখুন। তারা অন্তত নিজেদের স্বার্থে আপনার বই নিয়ে স্ট্যাটাস দেবে। ফাও ফাও আপনিও ভাইরাল।

♦ বই লেখার দরকার নেই। একটা ইটিশপিটিশ মার্কা প্রচ্ছদ বানান। এরপর সেটাকে একগাদা সাদা কাগজ দিয়ে বাঁধাই করে নিন। বন্ধুদের বলুন, প্রচ্ছদ হাতে ফেসবুকে ছবি পোস্ট করতে, কয়েকজন বিশিষ্টজনকে ভাড়া করে ভিডিও-রিভিউ করে দিন, কাউকে দিয়ে ইউটিউবে রিভিউ পোস্ট করান, কয়েকটা আন্ডারগ্রাউন্ড ব্লগকে টাকাটুকা দিয়ে ওই প্রচ্ছদের ওপর কড়া সমালোচনা ছাপতে বলুন; বিশ্বাস করুন, ওটার পাতা কেউ না ওল্টালেও আপনি ভাইরাল।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা