kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

গাড়ি জোকস

ফারজানা নিপা

১৫ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



♦ বাসে প্রচণ্ড ভিড়। একজন লোক ওঠার চেষ্টা করতেই বাসের ভেতরের সবাই চিত্কার করে, ‘খবরদার! আর একটা লোকও উঠতে পারবে না।’

— কিন্তু আমাকে যে উঠতেই হবে।

— তুমি কোন নবাবের বাচ্চা যে তোমাকে উঠতেই হবে?

— নবাবের বাচ্চা না, আমি এই বাসের ড্রাইভার।

 

♦ দুই গাড়ির ড্রাইভার গল্প করছে—

— কী রে, মাঝখানে শুনলাম তোর চাকরি যায় যায় অবস্থা। কী করে সামাল দিলি?

— এ আর কঠিন কী। অ্যাকসিডেন্ট করে গাড়ির বারোটা বাজিয়ে দিয়েছি।

— কী!

— হ্যাঁ, তারপর বস বলল, আগামী তিন বছর ওই টাকা আমার বেতন থেকে কেটে রাখবে। তিন বছরের জন্য চাকরি পাক্কা!

 

♦ সদ্য কার অ্যাকসিডেন্ট হওয়া একজনের সঙ্গে তার এক বন্ধুর দেখা—

— তোর গাড়ির দুদিকে দুই রং কেন?

— অ্যাকসিডেন্টের পর যখন কেস হয়, তখন যা মজা হয় না। একেকজন একেক রঙের গাড়ির কথা বলে...হে হে!

 

♦ বিচারক : তুমি কেন গাড়িটা চুরি করেছিলে?

আসামি : আমি গাড়িটা পেয়েছিলাম কবরস্থানের বাইরে, তাই ভেবেছিলাম এটার মালিকের বোধ হয় আর এটার প্রয়োজন নেই!

 

♦ — মেয়েরা ভালো গাড়ি চালায়, নাকি ছেলেরা?

— মেয়েরা অবশ্যই।

— কেন?

—স্বামীর মতো একটা বাজে জিনিসকে যে চালাতে পারে, তার কাছে গাড়ি কেন, রকেটও হাতের ময়লা।

 

♦ সার্জেন্ট : আপনি বাসস্ট্যান্ডে দাঁড়িয়ে থাকা ওই ভদ্রলোককে আপনার গাড়ি দিয়ে শুধু ধাক্কাই দেননি, আপনি তাকে গাড়ির বাম্পারে বাঁধিয়ে পর পর দুটো স্টপেজও পার হয়ে এসেছেন!

চালক : সে ক্ষেত্রে আমি তার কাছে তিনটি স্টপেজের ভাড়া দাবি করব!

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা