kalerkantho

মঙ্গলবার। ১৬ জুলাই ২০১৯। ১ শ্রাবণ ১৪২৬। ১২ জিলকদ ১৪৪০

বিয়ের আসরে

আদিত্য রহিম

১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে




বিয়ের আসরে

বিয়ে হয়ে গেছে। বউভাতের দ্বিতীয় ব্যাচের খাওয়াদাওয়া প্রায় শেষের দিকে। সারা দিন যারা বিয়ে নিয়ে হৈচৈ করেছে, তারা এখন ঝিমোচ্ছে। বর অনেকক্ষণ ধরে লক্ষ করছে, কনের মন খারাপ। সদ্য বিয়ে করা বউয়ের মন কেন খারাপ হবে—এটা ভেবে সে শঙ্কিত। দু-একবার কথা বলার চেষ্টা করেও লাভ হয়নি, মেয়েপক্ষ কিছুই বলছে না। অ্যারেঞ্জ ম্যারেজ। তা ছাড়া আগে অন্য এক ছেলের সঙ্গে সম্পর্ক ছিল, তবে সেটাই কী মন খারাপের কারণ! থাকতে না পেরে বর ঘটনাটা ছোট শ্যালিকার সঙ্গে শেয়ার করল। ছোট শ্যালিকা বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে নিল। কিন্তু লাভ হলো না। কনে কিছুতেই মুখ খুলবে না বলে যেন প্রতিজ্ঞা করে বসে আছে। সে তার মা-বাবাকে ঘটনাটা জানাল। তাঁরা এসে বড় মেয়ের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করলেন, তাতেও কিছু হলো না। মেয়েটি মন খারাপ করে আছে তো আছেই। চোখের কাজল লেপটে যাওয়ার জোগাড়। কনের সবচেয়ে বেস্ট ফ্রেন্ডকে আড়ালে ডেকে নিয়ে মা-বাবা বুঝিয়ে কনের কাছে পাঠালেন। বেস্ট ফ্রেন্ড এসে একের পর এক প্রশ্ন জিজ্ঞেস করতে লাগল।

—কী হয়েছে বল, বিয়েতে কি তোর মত নেই?

কনে চুপ।

—পাত্র তোর পছন্দ না?

: পাত্র সমস্যা না।

এতক্ষণে কথা বলল কনে।

—তুই চাইলে আংকল, আন্টি জামাইয়ের সঙ্গে কথা বলবে।

: দরকার নেই ।

—তাহলে মন খারাপ কেন? আকাশ ভাইয়ের কথা মনে পড়ছে?

: আরে নাহ।

—তোর শরীর খারাপ করছে?

: না, ঠিক আছি।

—তাইলে কি এমন হয়েছে, মন খারাপ করে আছিস কেন?

: একটু আগে বিয়ের ছবিগুলো দেখলাম। যে ছবিটায় আমি ম্যারেজ রেজিস্টারে সিগনেচার করছিলাম, ভাবছিলাম ওইটা ফেসবুকে আপলোড দেব।

—তা দিস। সমস্যা কী?

কনে এবার চিত্কার করে উঠল, ‘সমস্যা কী মানে? ওই ছবিটাই তো ঝাপসা এসেছে’...বলেই ডুকরে কেঁদে উঠল!

মন্তব্য