kalerkantho

শনিবার । ১ অক্টোবর ২০২২ । ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

বিআরটিএ-পুলিশের কাছে কালো ধোঁয়া পরীক্ষার যন্ত্রই নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বিআরটিএ-পুলিশের কাছে কালো ধোঁয়া পরীক্ষার যন্ত্রই নেই

কালো ধোঁয়া : রাজধানীতে বায়ুদূষণের জন্য ১৫ শতাংশ দায়ী যানবাহনের কালো ধোঁয়া। ফিটনেসবিহীন যানবাহনের বিষাক্ত ধোঁয়ায় বিভিন্ন রোগের ঝুঁকি বাড়ছে। গতকাল বাড্ডা নতুনবাজার এলাকা থেকে তোলা। ছবি : লুৎফর রহমান

বাস থেকে কালো ধোঁয়া বের হচ্ছে—এ কারণে শাস্তি দিতে হলে এক ধরনের বিশেষ যন্ত্র দিয়ে আগে তা পরীক্ষা করে দেখতে হবে। পরীক্ষায় অতিরিক্ত কালো ধোঁয়া বের হচ্ছে—এটা প্রমাণ হলে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া যাবে। সে ক্ষেত্রে খালি চোখে বাস থেকে কালো ধোঁয়া বের হচ্ছে দেখা গেলেও আইনে ব্যবস্থা নেওয়ার সুযোগ নেই।

আবার আইন অনুযায়ী, সরাসরি ব্যবস্থা নিতে পারবে না বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) বা পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ।

বিজ্ঞাপন

কালো ধোঁয়া পরীক্ষার যন্ত্র ব্যবহার করার জন্য একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতি থাকতেই হবে। ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতি ছাড়া এই পরীক্ষা গ্রহণযোগ্য হবে না।

কালো ধোঁয়া নিয়ন্ত্রণের জন্য বিআরটিএ এনফোর্সমেন্ট বিভাগ, পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ; নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়ে রাস্তায় তদারকির জন্য নামতে চাইলেও সেই উপায় নেই। কেননা এই দুই প্রতিষ্ঠানের কাছে কালো ধোঁয়া পরীক্ষা করার যন্ত্রই নেই। সেই যন্ত্র থাকে পরিবেশ অধিদপ্তরের কাছে। এত জটিলতার মধ্য দিয়ে বাসের কালো ধোঁয়া নিয়ন্ত্রণের উপায় খোঁজা কঠিন হয়ে পড়েছে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

অথচ দেশের মোটরযান অধ্যাদেশ ১৯৮৩ এবং পরিবেশ সংরক্ষণ আইন ১৯৯৫ অনুযায়ী, স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর বা পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর ধোঁয়া নির্গত হওয়ার ঘটনা জরিমানাসহ শাস্তিযোগ্য অপরাধ। ২০২০ সালের ১৩ জানুয়ারি উচ্চ আদালতের নির্দেশনায় মাত্রার চেয়ে বেশি কালো ধোঁয়া ছড়িয়ে চলা যান জব্দ করতেও বলা হয়েছে।

মূলত বাসের কালো ধোঁয়ার জন্য ফিটনেসবিহীন যানবাহন দায়ী। বর্তমানে ঢাকাসহ সারা দেশে কী পরিমাণ ফিটনেসবিহীন যান সড়কে চলাচল করছে—এমন তথ্য নেই বিআরটিএর কাছে। তবে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা মনে করেন, এক-তৃতীয়াংশ গণপরিবহনের কোনো ফিটনেস নেই।

যানবাহনের কালো ধোঁয়া নিয়ন্ত্রণ করতে ব্যবস্থা নেওয়া প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার ও ট্রাফিক বিভাগের প্রধান মো. মুনিবুর রহমান বলেন, ‘বাস থেকে কালো ধোঁয়া পরীক্ষা করার যন্ত্র আমাদের কাছে নেই। আমরা পরিবেশ অধিদপ্তরের কাছে চেয়েছি, কিন্তু পাইনি। বাস থেকে কালো ধোঁয়া বের হতে দেখলে ফিটনেস বিবেচনা করে ব্যবস্থা নেওয়া হয়। ’

বিআরটিএ নিবন্ধিত মোটরযানের তালিকায় দেখা যায়, মে মাস পর্যন্ত দেশে মোটরযান রয়েছে ৫২ লাখ ১৯ হাজার ৩৫৬টি। এর মধ্যে রাজধানীতে মোটরযানের সংখ্যা ১৮ লাখ ৪৬ হাজার ৯৮৭। ঢাকায় চলা মোটরযানের মধ্যে ৯ লাখ ৩৯ হাজার ৪১৮টি মোটরসাইকেল। বাস, পিকআপ, ট্রাক ও হিউম্যান হলার মিলিয়ে ঢাকায় চলে এক লাখ ৬৬ হাজার ১৮৪টি যান।

বিআরটিএ সূত্র বলছে, জনবলের কমতি থাকায় বিআরটিএর সক্ষমতার ঘাটতি রয়েছে। ফলে সড়কে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রেখে নিয়মিত কালো ধোঁয়া নিয়ন্ত্রণে তদারকি করার সুযোগ হয় না। তা ছাড়া বিআরটিএর কাছেও কালো ধোঁয়া পরীক্ষা করার যন্ত্র নেই।

এ বিষয়ে কথা বলতে চাইলে বিআরটির চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ মজুমদারকে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি।

তবে ভিন্ন কথা বলছে পরিবেশ অধিদপ্তর। সংস্থাটির ঢাকা মহানগরের মনিটরিং ও এনফোর্সমেন্ট শাখার উপপরিচালক মো. মোজাহিদুর রহমান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘নিয়মিতই ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। যেসব যান কালো ধোঁয়ার জন্য দায়ী, তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়। ’

যদিও বাসের কালো ধোঁয়া রাজধানীতে প্রায় নিয়মিত চিত্র। সম্প্রতি ঢাকার গুলিস্তান, ফুলবাড়িয়া, পল্টন, ফার্মগেট, মহাখালী, মগবাজার, শান্তিনগর, বংশাল, বনানী, রামপুরাসহ গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ঘুরে অনেক বাস থেকে অতিরিক্ত কালো ধোঁয়া বের হতে দেখা যায়। রাতে চলাচল করা ট্রাক থেকেও অতিরিক্ত কালো ধোঁয়া বের হওয়ার দৃশ্য চোখে পড়ে প্রায়ই।

এ ছাড়া বিভিন্ন এলাকায় চলা হিউম্যান হলার (লেগুনা) থেকেও কালো ধোঁয়া বের হয়। মূলত ফিটনেসহীন যানবাহন থেকেই কালো ধোঁয়ার সৃষ্টি হয়। কালো ধোঁয়ার বেশির ভাগই আসে সড়কে চলা লক্কড়ঝক্কড় বাস থেকে।

বায়ুমণ্ডলীয় দূষণ অধ্যয়ন কেন্দ্রের তথ্য বলছে, বর্তমানে ঢাকার মোট বায়ুদূষণের ১৫ শতাংশ হচ্ছে যানবাহনের কারণে। এর মধ্যে বাস ছাড়াও সব ধরনের যানবাহন রয়েছে। ফিটনেসবিহীন যানবাহনের কারণেই কালো ধোঁয়ার সৃষ্টি হয়।

ফিটনেসবিহীন গাড়ির কারণেই কালো ধোঁয়া তৈরি হয়—এমনটা মেনে নিতে আপত্তি নেই বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি মসিউর রহমান রাঙ্গার। তিনি বলেন, ‘সড়কে যে পরিমাণ যানজট, তাতে বারবার ব্রেক দিতে হয়। ঘন ঘন ব্রেক দিলে কালো ধোঁয়া বেশি হয়। এতে আমাদের কিছু করার নাই। ফিটনেস না থাকায় পুলিশ জরিমানা করে, আমরা তো কিছু বলি না। ’

 



সাতদিনের সেরা