kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১৪ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

বিশ্ববাজারে খাদ্যপণ্যের দাম চার মাস ধরে কমছে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৮ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বিশ্ববাজারে খাদ্যপণ্যের দাম চার মাস ধরে কমছে

রাশিয়ার সঙ্গে সাম্প্রতিক চুক্তির পর আন্তর্জাতিক বাজারে ইউক্রেনের খাদ্যপণ্য আসতে শুরু করে। এতে গমের বাজার নিম্নমুখী হয়। এবার জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও) জানাল, বিশ্ববাজারে প্রায় সব পণ্যের দামই নিম্নমুখী। গত জুলাই মাসে উল্লেখযোগ্য হারে কমেছে ভোজ্য তেল, দুগ্ধপণ্য, চিনিসহ সব খাদ্যপণ্যের দাম।

বিজ্ঞাপন

এমনকি টানা চার মাস এই বাজার নিম্নমুখী।

এফএও প্রকাশিত সর্বশেষ খাদ্যসূচক গত জুলাই মাসে কমে হয় ১৪০.৯ পয়েন্ট, যা জুন মাসের চেয়ে ৮.৬ শতাংশ কম। তবে এই দাম এখনো ২০২১ সালের জুলাই মাসের চেয়ে ১৩.১ শতাংশ বেশি। বছরের শুরুতে খাদ্যপণ্যের দাম এযাবৎকালের সর্বোচ্চ হয়েছিল। এরপর গত এপ্রিল থেকে কমতে থাকে।

এফএও জানায়, জুলাইয়ে বিশ্ববাজারে ভোজ্য তেলের দাম আগের মাসের চেয়ে কমেছে ১৯.২ শতাংশ, যা ১০ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন। বিশ্ববাজারে পাম তেলের দাম কমেছে ইন্দোনেশিয়ার বাইরে অন্য দেশ থেকে পর্যাপ্ত রপ্তানি সম্ভাবনার কারণে। এ ছাড়া ইন্দোনেশিয়ায়ও মজুদ বেড়ে যাওয়ায় গত জুলাইয়ে দেশটির রপ্তানি ১ শতাংশ বেড়েছে। নতুন শস্যের সরবরাহ প্রত্যাশায় কমেছে রেপসিড তেলের দাম। দীর্ঘদিন থেকে কম চাহিদার কারণে নিম্নমুখী সয়াবিনের দাম, আর কৃষ্ণ সাগরে ক্রমাগত লজিস্টিক অনিশ্চয়তা সত্ত্বেও বৈশ্বিক আমদানি চাহিদা হ্রাস পাওয়ায় সূর্যমুখী তেলের দাম কমেছে।

বাজারসংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান ট্রেডিং ইকোনমিকস জানায়, গত এক সপ্তাহে বিশ্ববাজারে সয়াবিন তেলের দাম কমেছে ১.২৫ শতাংশ, পাম তেলের দাম কমেছে প্রায় ১০ শতাংশ এবং রেপসিড তেলের দাম কমেছে ৬ শতাংশের ওপরে। সংস্থাটির মতে, বিশ্বে সয়াবিনের সবচেয়ে বড় ক্রেতা চীন। গত জুন মাসে দেশটির সয়াবিন আমদানি ২৩ শতাংশ কমেছে, যার ইতিবাচক প্রভাব পড়েছে বিশ্ববাজারে। বর্তমানে সয়াবিনের দাম কমে প্রতি বুশেল ১৬ ডলারের নিচে নেমেছে।

জুলাইয়ে বিশ্ববাজারে খাদ্যশস্যের দাম কমেছে ১১.৫ শতাংশ। বিশেষ করে রাশিয়া-ইউক্রেন খাদ্যশস্য রপ্তানি চুক্তির কারণে বিশ্ববাজারে সরবরাহ বাড়ায় গমের দাম কমেছে ১৪.৫ শতাংশ। যদিও এ দাম এখনো গত বছরের জুলাই মাসের চেয়ে ২৪.৮ শতাংশ বেশি। ভুট্টার দাম কমেছে ১০ শতাংশের ওপরে। চলতি বছর এই প্রথম চালের দাম কমেছে বড় রপ্তানিকারক দেশগুলোতে স্থানীয় মুদ্রার দরপতনের কারণে।

গত মাসে চিনির দাম কমেছে ৩.৮ শতাংশ। এভাবে টানা তিন মাস দাম কমছে। ব্রাজিলে চিনি উৎপাদন বৃদ্ধির পাশাপাশি বৈশ্বিক মন্দার আশঙ্কায় চাহিদা কমতে পারে—এমন কারণেই নিম্নমুখী চিনির দাম। এর পাশাপাশি ভারত থেকেও বিপুল রপ্তানির সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। গত মাসে দুগ্ধপণ্যের দামও কমেছে ২.৫ শতাংশ। মাংসের দাম কমেছে ০.৫ শতাংশ।

এফএওর প্রধান অর্থনীতিবিদ ম্যাক্সিমো টরেরো বলেন, রেকর্ড সর্বোচ্চ থেকে খাদ্যপণ্যের দামের এ হ্রাস প্রবণতা আশাব্যঞ্জক। তবে এখনো কিছু অনিশ্চয়তা রয়ে গেছে। যেমন সারের উচ্চমূল্য। এতে ভবিষ্যৎ খাদ্য উৎপাদন ব্যাহত হতে পারে। হুমকিতে পড়তে পারে কৃষকের জীবন-জীবিকা। পাশাপাশি মন্থর অর্থনৈতিক পূর্বাভাস এবং মুদ্রাবাজারে অস্থিরতা সব কিছুই বৈশ্বিক খাদ্য নিরাপত্তায় বড় ধরনের নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে।

এক সপ্তাহ ধরে বিশ্ববাজারে ব্যাপকভাবে কমেছে জ্বালানি তেলের দামও। ট্রেডিং ইকোনমিকসের হিসাবে গত এক সপ্তাহে বিশ্ববাজারে যুক্তরাষ্ট্রের ডাব্লিউটিআই অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম প্রতি ব্যারেল ১০.৩০ শতাংশ কমে হয়েছে ৮৮.৪৬ ডলার। এর পাশাপাশি যুক্তরাজ্যের লন্ডনের ব্রেন্ট অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম প্রতি ব্যারেল ৮.৭৬ শতাংশ কমে হয়েছে ৯৪.৮৬ ডলার।

ফিচ রেটিংস এক পূর্বাভাসে জানিয়েছে, ২০২৩ সালে বিশ্ববাজারে মূল্যস্ফীতি কমে আসবে। সংস্থাটির মতে, ইউক্রেন যুদ্ধের শুরুতে সরবরাহ বিঘ্ন হওয়ার আশঙ্কায় বিশ্ববাজারে খাদ্যপণ্যের দাম বাড়লেও অনেক দেশে আবাদ বেড়েছে। এর পাশাপাশি সাম্প্রতিক ইউক্রেন-রাশিয়া চুক্তির কারণে ইউক্রেনের ২০ মিলিয়ন টন খাদ্যশস্য বিশ্ববাজারে আসবে, যা বাজার স্থিতিশীল করতে বড় ভূমিকা রাখবে। এ ছাড়া অস্ট্রেলিয়া এক পূর্বাভাসে জানিয়েছে, এ বছর তাদের গমের বাম্পার ফলন হবে।

এদিকে গতকাল রবিবার পর্যন্ত খাদ্যসামগ্রী বহনকারী চারটি জাহাজ ইউক্রেনের কৃষ্ণ সাগর বন্দর ছেড়েছে। ইউক্রেনীয়ও তুর্কিয়ে কর্মকর্তারা এ তথ্য জানিয়েছেন। ইউক্রেনের সমুদ্র বন্দর কর্তৃপক্ষ ফেসবুকে জানিয়েছে, চারটি বাল্ক ক্যারিয়ারে প্রায় এক লাখ ৭০ হাজার টন ভুট্টা এবং অন্য খাদ্যসামগ্রী বোঝাই ছিল। ইউক্রেনীয় অবকাঠামো মন্ত্রী ওলেক্সান্ডার কব্রাকভ বলেছেন, ‘আমরা ধীরে ধীরে বড় পরিমাণে কাজের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি। আমরা অদূর ভবিষ্যতে প্রতি মাসে কমপক্ষে ১০০টি জাহাজ পরিচালনা করার জন্য বন্দরগুলোর সক্ষমতা নিশ্চিতের পরিকল্পনা করছি। ’

 

 



সাতদিনের সেরা