kalerkantho

বুধবার । ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১৩ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

মন্ত্রিসভায় নীতিগত অনুমোদন

সংবাদমাধ্যমকে অর্থদণ্ডের বিধান প্রেস কাউন্সিল আইনে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ জুন, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সংবাদমাধ্যমকে অর্থদণ্ডের বিধান প্রেস কাউন্সিল আইনে

অপসাংবাদিকতার জন্য সংবাদমাধ্যমকে অর্থদণ্ডের বিধান রেখে প্রেস কাউন্সিল (সংশোধন) আইন ২০২২-এর নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। গতকাল সোমবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে এ সভা হয়। পরে বিকেলে মন্ত্রিপরিষদসচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সভার বিষয়ে ব্রিফ করেন।

মন্ত্রিপরিষদসচিব বলেন, ১৯৭৪ সালের প্রেস কাউন্সিল অ্যাক্ট ছিল।

বিজ্ঞাপন

সেটার সংশোধনী নিয়ে আসা হয়েছে। সংবাদপত্র ও সংবাদ সংস্থার মানোন্নয়ন, সংরক্ষণ ও অপসাংবাদিকতা রোধে এ আইনের খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এই আইনে রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা, নৈতিকতা, শৃঙ্খলা ইত্যাদি ভঙ্গের দায়ে ৫ থেকে ১০ লাখ টাকা জরিমানার প্রস্তাব করা হয়েছিল। মন্ত্রিসভা বৈঠকে অ্যামাউন্টটা চেঞ্জ করে দেওয়া হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদসচিব পরিবর্তিত টাকার অঙ্কটা কত সেটা জানাননি। তিনি বলেন, ‘আইনটি নিয়ে আরো কাজ হবে। এটা ভেটিংয়ে যাবে। এসব অপরাধে আগে তিরস্কারের দণ্ড ছিল। এবার অর্থদণ্ডের বিধান রাখা হচ্ছে। ’

সচিব বলেন, ‘রাষ্ট্রের নিরাপত্তা, শৃঙ্খলা ভঙ্গ করে সংবাদ, কার্টুন প্রকাশ করা হলে প্রেস কাউন্সিল স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে আমলে নিতে পারবে। ’

প্রেস কাউন্সিল নিয়ে নতুন এই আইনের খসড়া মন্ত্রিসভায় নীতিগত অনুমোদন পাওয়ার বিষয়ে সাংবাদিক নেতা ও বিএফইউজের সভাপতি ওমর ফারুক কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আইনটি আমরা এখনো হাতে পাইনি। আইনটি পড়ে দেখতে হবে জরিমানার বিষয়ে কাদের সম্পর্কে বলা হয়েছে। যদি আইনটি সাংবাদিকদের পরিপন্থী হয়, তাহলে অবশ্যই আমরা এটা মেনে নেব না। ’

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি সোহেল হায়দার চৌধুরী বলেন, ‘ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন মনে করে, সবার আগে সাংবাদিকতা ও অপসাংবাদিকতার বিষয়টি সংজ্ঞায়িত হওয়া প্রয়োজন। তারপর সাংবাদিক সংগঠনগুলোর সঙ্গে আলোচনা করে যদি মনে হয় আইনটির প্রয়োজনীয়তা রয়েছে, তখন এমন আইন পাস করার উদ্যোগ নেওয়া যেতে পারে। আমরা এখনো জানি না আইনে কী বলা হয়েছে। ’

 



সাতদিনের সেরা