kalerkantho

রবিবার । ১৪ আগস্ট ২০২২ । ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৫ মহররম ১৪৪৪

প্রধানমন্ত্রী বললেন

সততার শক্তি ছিল বলেই পদ্মা সেতুর চ্যালেঞ্জ নিয়েছি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২ জুন, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সততার শক্তি ছিল বলেই পদ্মা সেতুর চ্যালেঞ্জ নিয়েছি

শেখ হাসিনা

পদ্মা সেতুতে দুর্নীতির অভিযোগ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আমাদের দুর্নীতি করার প্রশ্নই ওঠে না। অথচ সেই অপবাদটা আমাদের ওপর দিতে চেয়েছিল। কিন্তু আমি মনে করি, সততার একটা শক্তি থাকে। সেই সততার শক্তি ছিল বলেই এই চ্যালেঞ্জ (পদ্মা সেতু নির্মাণ) নিতে পেরেছিলাম।

বিজ্ঞাপন

দেশের মানুষের অফুরন্ত সহযোগিতা পেয়েছি। যার ফলে আজকে সেই পদ্মা সেতু আমরা করতে পেরেছি। ’

গতকাল বুধবার গণভবনে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সভার সূচনা বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের লক্ষ্য এ দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা। নিজের ভাগ্য গড়তে ক্ষমতায় আসিনি। এসেছি দেশের মানুষের ভাগ্য গড়তে। কাজেই আমরা কেন দুর্নীতি করতে যাব?’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘বিশ্বব্যাংক একটি দুর্নীতির অভিযোগ তুলে অর্থ বন্ধ করে দেয়। বিশ্বব্যাংককে দোষ দেব না। ঘরের শত্রু বিভীষণই হয়। আপনারা জানেন যে ড. ইউনূস এই কাণ্ডটা ঘটিয়েছিলেন। গ্রামীণ ব্যাংকের এমডি পদটার জন্য।

কারণ তিনি এমডি পদটা হারিয়েছেন বয়সের কারণে। গ্রামীণ বাংকের যে আইন, সেখানে আছে—৬০ বছর পর্যন্ত এমডি থাকতে পারে। তিনি ৭১ বছর বয়স পর্যন্ত এমডি থেকেছিলেন। কিন্তু একটি ব্যাংক এভাবে চলতে পারে না। বাংলাদেশ ব্যাংক সেই পদক্ষেপটা নেয়। এর ফলে ড. ইউনূস আমাদের সরকার ও বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরের বিরুদ্ধে মামলাও করেন। দুটি মামলা করেন। সে মামলায়ও হেরে যান। প্রতিহিংসাপরায়ণ হয়ে ওঠেন। হিলারি ক্লিনটনের মাধ্যমে আমেরিকার সরকারকে দিয়ে বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্টকে তিনি বাধ্য করেন পদ্মা সেতুর অর্থ বন্ধ করে দিতে। ’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সেখানে দুর্নীতির বিষয়ে প্রশ্ন তোলে। আমি চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছিলাম। এটা আর প্রমাণ করতে পারেনি। কানাডার কোর্ট স্পষ্টভাবে বলে দিয়েছে—সব অভিযোগ মিথ্যা, ভুয়া। কিন্তু সে সময় একটা প্রচণ্ড মানসিক চাপ...বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্টে কিছু লোক নানা কথা বলে। কিন্তু আমি বলেছিলাম, আমরা এটা করব এবং আমরা করতে পেরেছি। ’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘এই চ্যালেঞ্জটা নিয়েছিলাম এ কারণে যে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে কেউ বিরূপ কথা বললে আমি তা পছন্দ করি না। কারণ জাতির পিতা এ দেশের স্বাধীনতার জন্য তাঁর জীবন উৎসর্গ করেছেন। সন্তান হিসেবে আমরা তো বাবাকেই পাইনি! কতটুকু পেয়েছি? তিনি তাঁর নিজের জীবনকে উৎসর্গ করেছেন, বারবার জীবনকে মৃত্যুর ঝুঁকির মধ্যে ফেলেছেন। তিনি এই দেশকে স্বাধীন করেছেন। কাজেই আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায় আসে, আমাদের লক্ষ্য থাকে জাতির পিতার স্বপ্নটাকে পূরণ করা। ’

ডিসেম্বরে আওয়ামী লীগের সম্মেলন

আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে দলের জাতীয় সম্মেলন করা হবে বলে জানান আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘আমরা আমাদের দলের সম্মেলনও করব। করোনার জন্য অনেক কাজ করতে পারিনি। ’

 

 



সাতদিনের সেরা