kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জুন ২০২২ । ১৪ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৭ জিলকদ ১৪৪৩

সেই তরুণীসহ ৪ জনকে হস্তান্তর করেছে ভারত

রেজোয়ান বিশ্বাস   

২২ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সেই তরুণীসহ ৪ জনকে হস্তান্তর করেছে ভারত

ভারতে পাচার হওয়ার পর টিকটক হৃদয় ও তাঁর সহযোগীদের হাতে নির্যাতনের শিকার সেই তরুণীসহ চারজনকে বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকেলে যশোরের বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে তাঁদের বাংলাদেশের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর হাতে তুলে দেয় ভারতীয় কর্তৃপক্ষ।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) বিপ্লব কুমার সরকার। তিনি গতকাল কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘টিকটক হৃদয়চক্রের হাতে পাচার ও নির্যাতনের শিকার হওয়া এক তরুণীকে আজ শনিবার (গতকাল) বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে আমাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

তাঁদের ঢাকায় আনার পর পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। ’

পুলিশ সূত্র জানায়, ঢাকায় আনার পর ওই তরুণীর ডাক্তারি পরীক্ষার পর তাঁর সঙ্গে কথা বলা হবে। পাচারের সঙ্গে কারা কিভাবে জড়িত, তা বিস্তারিত জানার চেষ্টা করা হবে।

গত বছরের মে মাসে বেঙ্গালুরুতে ওই তরুণীকে নির্যাতনের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়। সেই ভিডিওর সূত্র ধরেই তদন্ত শুরু করে পুলিশ। ওই তরুণীকে পাচার ও সংঘবদ্ধ ধর্ষণের দায়ে গত শুক্রবার ভারতের বেঙ্গালুরুর একটি আদালত টিকটক হৃদয়সহ সাতজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও অন্য চারজনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেন।

ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর ওই ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে বেঙ্গালুরুর পুলিশ প্রথমে হৃদয়সহ ছয়জনকে গ্রেপ্তার করে। তাঁদের মধ্যে হৃদয়সহ দুজন পালানোর সময় গুলিবিদ্ধ হন বলে জানিয়েছিল ভারতের পুলিশ। গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তিদের কাছে ভারতে অবস্থান করার বৈধ কাগজপত্র ছিল না। ওই ছয়জনের মধ্যে টিকটক হৃদয়কে ঢাকার মগবাজার এলাকার বাসিন্দা বলে শনাক্ত করেছে ঢাকার পুলিশ।

পুলিশ সূত্র জানায়, গত বছরের ২৭ মে থেকে গতকাল শনিবার পর্যন্ত ভারতে পাচার হওয়া মোট পাঁচ তরুণী দেশে ফিরেছেন। সেখানে তাঁদের ওপর নির্যাতনের তথ্য দিয়েছেন তরুণীরা। আগে ফেরা তরুণীরা রাজধানীর হাতিরঝিল থানায় মানবপাচার ও পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা করেছেন। আরো সহস্রাধিক নারী দেশে ফেরার অপেক্ষায় আছেন। এসব মামলায় দেশে আরো অনেককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। নারী পাচারচক্রের অন্তত ৩০ জনকে গ্রেপ্তারের পর পুলিশ জানতে পারে, এই পাচারচক্রে দেশ-বিদেশের কয়েক শ সদস্য যুক্ত। তারা দীর্ঘদিন ধরে নারী পাচারের সঙ্গে জড়িত। শুধু ভারতে নয়, মালয়েশিয়া ও সংযুক্ত আরব আমিরাতেও নারী পাচার করেছে এই চক্র।



সাতদিনের সেরা