kalerkantho

রবিবার । ২৬ জুন ২০২২ । ১২ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৫ জিলকদ ১৪৪৩

জাতিসংঘ মহাসচিবের উদ্বেগ

বিশ্বে খাদ্যসংকট সৃষ্টি হতে পারে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২০ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বিশ্বে খাদ্যসংকট সৃষ্টি হতে পারে

ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসন শিগগিরই বিশ্বব্যাপী খাদ্যসংকট সৃষ্টি করতে পারে বলে জাতিসংঘ সতর্ক করে দিয়েছে। বিশ্ব সংস্থার মতে, এই সংকট কয়েক বছর ধরে চলতে পারে। গত বুধবার নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে দেওয়া বক্তব্যে মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস এই সতর্কতা উচ্চারণ করেন।

মহাসচিব গুতেরেস বলেছেন, দাম বেড়ে চলার কারণে যুদ্ধ দরিদ্র দেশগুলোর খাদ্য নিরাপত্তাহীনতাকে আরো খারাপ করেছে।

বিজ্ঞাপন

বিশ্ব সংস্থার প্রধান বলেন, ইউক্রেনের খাদ্যশস্য রপ্তানি যুদ্ধপূর্ব পর্যায়ে ফিরে না এলে কিছু দেশ দীর্ঘমেয়াদি দুর্ভিক্ষের সম্মুখীন হতে পারে। সংঘাতের কারণে ইউক্রেনের বন্দর থেকে খাদ্য সরবরাহ কার্যত বন্ধ হয়ে গেছে। দেশটি যুদ্ধের আগে প্রচুর পরিমাণে ভোজ্য তেলের পাশাপাশি ভুট্টা ও গমের মতো খাদ্যশস্য রপ্তানি করত।

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বিশ্বব্যাপী খাদ্য সরবরাহ হ্রাস পেয়েছে। বিকল্প সরবরাহের উৎসগুলোরও দাম বেড়েছে। জাতিসংঘের মতে, বিশ্বব্যাপী খাদ্যের দাম গত বছরের একই সময়ের তুলনায় প্রায় ৩০ শতাংশ বেশি।  

জাতিসংঘ সদর দপ্তরে দেওয়া বক্তব্যে গুতেরেস আরো বলেন, ‘জলবায়ু পরিবর্তন ও মহামারির সঙ্গে মিলে সংঘাতের প্রভাব কোটি কোটি মানুষকে খাদ্য নিরাপত্তাহীনতার দিকে ঠেলে দেওয়ার হুমকি সৃষ্টি করেছে। এর হাত ধরে আসতে পারে অপুষ্টি, ব্যাপক ক্ষুধা ও দুর্ভিক্ষ। ’

জাতিসংঘ মহাসচিব বলেন, ‘যদি আমরা একসঙ্গে কাজ করি তাহলে আমাদের বিশ্বে এখনো পর্যাপ্ত খাদ্য পাওয়া যাবে। কিন্তু যদি আমরা এখনই এই সমস্যার সমাধান না করি, তাহলে আগামী মাসগুলোতে বিশ্বব্যাপী খাদ্য ঘাটতির আশঙ্কা সৃষ্টি হবে। ’

গুতেরেস সতর্ক করে দিয়ে বলেন, সংকটের একমাত্র কার্যকর সমাধান হচ্ছে ইউক্রেনের খাদ্য উৎপাদন এবং সেই সঙ্গে রাশিয়া ও বেলারুশ উভয়ের উৎপাদিত সার বিশ্ববাজারে আবার যুক্ত করা। জাতিসংঘ মহাসচিব জানান, তিনি রাশিয়া ও ইউক্রেনের পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্র ও ইইউয়ের সঙ্গে খাদ্য রপ্তানি স্বাভাবিক পর্যায়ে ফিরিয়ে আনার জন্য ব্যাপকভাবে যোগাযোগ করে যাচ্ছেন। তিনি বলেন, ‘গুরুত্বপূর্ণ নিরাপত্তা, অর্থনৈতিক ও আর্থিক উদ্যোগের জন্য সব পক্ষ থেকেই সমর্থন প্রয়োজন। ’

বিশ্বব্যাংকের অতিরিক্ত তহবিল

এদিকে খাদ্য নিরাপত্তাহীনতা মোকাবেলার প্রকল্পগুলোর জন্য বিশ্বব্যাংক এক হাজার ২০০ কোটি ডলারের অতিরিক্ত তহবিলের ঘোষণা দিয়েছে। খাদ্য পরিস্থিতি নিয়ে জাতিসংঘ মহাসচিবের উদ্বেগ প্রকাশের দিনই বিশ্বব্যাংকের এই ঘোষণা এলো।  

ইউক্রেনে যুদ্ধের আগে বিশ্বের মোট গম সরবরাহের ৩০ শতাংশ আসত রাশিয়া ও ইউক্রেন থেকে। ইউক্রেনকে ধরা হতো ‘বিশ্বের রুটির ঝুড়ি’ হিসেবে। নিজ বন্দরগুলো দিয়ে দেশটি প্রতি মাসে ৪৫ লাখ টন কৃষিপণ্য সরবরাহ করত। ফেব্রুয়ারিতে রাশিয়ার আক্রমণ শুরু হওয়ার পর ইউক্রেনের রপ্তানি থমকে গেছে এবং পণ্যের দাম বেড়ে গেছে। গত শনিবার ভারতের গম রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার বিষয়টি মূল্যবৃদ্ধিতে আরেক দফা প্রভাব ফেলেছে। জাতিসংঘ জানিয়েছে, আগের তোলা ফসলের দুই কোটি টন শস্য বর্তমানে ইউক্রেনে আটকে রয়েছে। সেগুলো সরবরাহ করা সম্ভব হলে বৈশ্বিক বাজারের ওপর থেকে চাপ কমতে পারে। সূত্র : বিবিসিধ



সাতদিনের সেরা