kalerkantho

বৃহস্পতিবার ।  ১৯ মে ২০২২ । ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৭ শাওয়াল ১৪৪৩  

শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়

প্রতিবাদী ফুটবল টুর্নামেন্ট, রোড পেইন্টিং

সিলেট অফিস ও শাবিপ্রবি প্রতিনিধি   

২৮ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রতিবাদী ফুটবল টুর্নামেন্ট, রোড পেইন্টিং

আন্দোলন কর্মসূচি ও স্লোগানে টানা ১৩ দিন উত্তাল শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস গতকাল বৃহস্পতিবার ছিল রীতিমতো শান্ত। তবে উপাচার্য পদত্যাগের আন্দোলন চলছে। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা এর জন্য বেছে নিয়েছেন ব্যতিক্রমী সব আয়োজন।

এসব আয়োজনের মধ্যে রয়েছে উপাচার্যবিরোধী ফুটবল টুর্নামেন্ট।

বিজ্ঞাপন

একজন শিক্ষক নিজেকে চাষাভুষা নন দাবি করায় শিক্ষার্থীরা টং দোকান খুলে নাম দিয়েছেন ‘চাষাভুষাদের টং দোকান’।

গতকাল বিকেলে অনুষ্ঠিত হয় ‘ফরিদবিরোধী ফুটবল টুর্নামেন্ট’। সন্ধ্যায় মৃত্যু অথবা মুক্তি শিরোনামে রোড পেইন্টিং আঁকা হয়। এরপর সন্ধ্যা ৭টার দিকে গোলচত্বরে ‘শাবিপ্রবিতে কেমন ভিসি চাই’ শীর্ষক আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়।

এমন সব ব্যতিক্রমী আয়োজনে উপাচার্যবিরোধী প্রতিবাদ চলতে থাকবে বলে জানিয়েছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। অনশন ভাঙার পর গতকাল সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ও একাডেমিক ভবনসহ বিভিন্ন ভবনের তালা খুলে দিয়েছেন তাঁরা।

এসব ভবনে শিক্ষক ও কর্মকর্তাদের অনেককে অফিস করতে দেখা গেছে। এর আগে গত বুধবার রাত ১২টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকও খুলে দেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

অনশনের স্মৃতি ধরে রাখতে রোড পেইন্টিং : গতকাল সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা থেকে উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমদের বাস ভবনের সামনের সড়কে ‘মৃত্যু অথবা মুক্তি’ শিরোনামে রোড পেইন্টিং করা শুরু করেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের আর্কিটেকচার ডিপার্টমেন্টের শিক্ষার্থী এস এম রাফসান জামিল কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘অনশনকারীদের ত্যাগকে স্মরণীয় করে রাখতে আমরা রোড পেইন্টিং করেছি। ’

উপাচার্যবিরোধী ফুটবল টুর্নামেন্ট : উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা গতকাল বিশ্ববিদ্যালয়ের হ্যান্ডবল গ্রাউন্ডে আয়োজন করেন ‘ভিসি ফরিদবিরোধী ফুটবল টুর্নামেন্টের। ’ বিকেল ৫টার দিকে শিক্ষার্থীরা দুই দলে বিভক্ত হয়ে ফুটবল ম্যাচ খেলেন। এ সময় ফুটবলের গায়ে ফরিদ লিখে দেন তাঁরা।

আন্দোলনকারীদের অন্যতম মুখপাত্র মোহাইমিনুল বাশার রাজ বলেন, ‘শ্রদ্ধেয় জাফর ইকবাল স্যারের আশ্বাসে আমরা অনশন থেকে সরে এলেও আমাদের আন্দোলন থামবে না। ক্যাম্পাসে আমরা নানা আয়োজনে ভিসিবিরোধী আন্দোলন চালিয়ে যাব। ’

 



সাতদিনের সেরা