kalerkantho

বুধবার ।  ২৫ মে ২০২২ । ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২৩ শাওয়াল ১৪৪৩  

তৃণমূলের কার্যক্রম তদারকিতে কমিটি, ঐক্যের নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৭ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



তৃণমূলের কার্যক্রম তদারকিতে কমিটি, ঐক্যের নির্দেশ

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের নেতাদের বিভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধভাবে সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনার নির্দেশনা দিয়েছে কেন্দ্র। পাশাপাশি তৃণমূলের কার্যক্রম তদারকিতে নগর আওয়ামী লীগের বিবদমান দুটি পক্ষের ছয় নেতাকে নিয়ে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে দুই সপ্তাহের মধ্যে তৃণমূলের কমিটিগুলোর সাংগঠনিক কার্যক্রমের বিষয়ে লিখিত প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

গতকাল রবিবার ঢাকার ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের নেতাদের জরুরি বৈঠক হয়।

বিজ্ঞাপন

বৈঠকে এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে উপস্থিত কয়েকজন নেতা জানিয়েছেন। সকাল পৌনে ১১টা থেকে শুরু হয়ে পৌনে চার ঘণ্টা এই বৈঠক হয়।

চট্টগ্রামের দায়িত্বপ্রাপ্ত আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন। এতে কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহ্মুদ, সাংগঠনিক সম্পাদক ও জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, দপ্তর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী বিপ্লব বড়ুয়া, অর্থ ও পরিকল্পনা বিষয়ক সম্পাদক ওয়াশিকা আয়েশা খানমসহ আরো কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতা উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া চট্টগ্রামের সংসদ সদস্যদের মধ্যে শিক্ষা উপমন্ত্রী ও দলের সাবেক কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মহীবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, মহানগর আওয়ামী লীগের নির্বাহী সদস্য এম এ লতিফ উপস্থিত ছিলেন।

দলীয় নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি, সহসভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে অনুষ্ঠিত এই বৈঠকে বিভিন্ন সিদ্ধান্ত এলেও ওয়ার্ড ও থানা সম্মেলন করা নিয়ে সুনির্দিষ্ট কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। ছয় সদস্যের তদারক কমিটির প্রতিবেদন পাওয়ার পর ওয়ার্ড ও থানা কমিটিগুলোর সম্মেলনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত আসবে।

ওই কমিটির সদস্যরা হলেন মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন, সহসভাপতি জহিরুল আলম দোভাষ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এম রেজাউল করিম চৌধুরী, নির্বাহী সদস্য মহীবুল হাসান চৌধুরী নওফেল ও সহসভাপতি নঈমউদ্দিন চৌধুরী। তবে অসুস্থতার কারণে বৈঠকে মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আফছারুল আলম এবং একই কমিটির সহসভাপতি নুরুল ইসলাম থাকতে পারেননি।

জানতে চাইলে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন গতকাল বিকেলে কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ইউনিট সম্মেলন চলমান থাকবে। তবে কোনো ইউনিটে সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ থাকলে তা তদন্ত করে সত্যতা পাওয়া গেলে সেখানে রিভিউ হবে। এ ছাড়া বৈঠকে দেশের অন্যান্য স্থানের মতো চট্টগ্রাম নগরেও থানাভিত্তিক সাংগঠনিক কার্যক্রম তদারকির জন্য নগর নেতাদের দায়িত্ব দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। আমাদের (নগর কমিটি) ছয়জনকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আগামী ১০ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন কেন্দ্রে জমা দেওয়ার নির্দেশনা এসেছে। ’

জানা গেছে, গতকালের বৈঠকে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি করার দাবি জানিয়েছেন মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. বদিউল আলম। তিনি বলেন, সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির মাধ্যমে ওয়ার্ড ও থানা কমিটি করা হোক। এ ছাড়া নগর আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা নিজেদের অবস্থান তুলে পরস্পরের বিরুদ্ধে বক্তব্য দেন।

বৈঠকে উপস্থিত মহানগর আওয়ামী লীগের প্রথম যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এম রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, ‘ছয় সদস্যের মধ্যে আমাকে মুখ্য ভূমিকা রাখতে বলা হয়েছে। থানা কমিটিগুলোর সাংগঠনিক কার্যক্রম ও সমস্যা কিছু থাকলে তা দেখা হবে। ’ তিনি বলেন, ‘যেসব ইউনিটে কমিটি গঠনে নানা অসংগতি রয়েছে সেখানে আমরা বিষয়গুলো তদারক দেখব। সংগঠনকে গতিশীল করার জন্য কাজ করতে হবে। ’

বিরোধের বিষয়ে বৈঠকে কোনো আলোচনা হয়েছে কি না জানতে চাইলে মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আলতাফ হোসেন চৌধুরী বাচ্চু বলেন, ‘দূরত্ব কমানোর জন্য বলা হয়েছে। সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে একযোগে কাজ করে সংগঠনকে আরো শক্তিশালী করার জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন আমাদের নেতারা। ’

 



সাতদিনের সেরা