kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৬ মাঘ ১৪২৮। ২০ জানুয়ারি ২০২২। ১৬ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

প্রস্তুতি নিতে সব দেশের প্রতি আহ্বান ডাব্লিউএইচওর

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৪ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



প্রস্তুতি নিতে সব দেশের প্রতি আহ্বান ডাব্লিউএইচওর

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডাব্লিউএইচও) করোনার ওমিক্রন ধরনকে মোকাবেলার প্রস্তুতি নেওয়ার জন্য বিশ্বের সব দেশের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে। গতকাল শুক্রবার এ আহ্বান জানানোর পাশাপাশি আতঙ্কিত না হতেও বলেছে জাতিসংঘের অঙ্গ সংস্থাটি। প্রস্তুতির অংশ হিসেবে স্বাস্থ্যসেবার পরিধি ও টিকা দেওয়ার হার বাড়ানোর তাগিদ জানিয়েছে ডাব্লিউএইচও।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান বিজ্ঞানী সৌম্য স্বামীনাথন গতকাল ‘রয়টার্স নেক্সট কনফারেন্সে’ বলেন, ‘ওমিক্রন অত্যন্ত সংক্রামক। এর বিরুদ্ধে আমাদের সঠিক পদক্ষেপ নিতে হবে এবং সতর্ক হতে হবে। আতঙ্কিত হওয়া যাবে না।’

সৌম্য স্বামীনাথন আশা প্রকাশ করে বলেন, ‘আমাদের অপেক্ষা করতে হবে। আশা করা যায়, এ রোগের লক্ষণ হালকা হবে। এই ধরনটির সম্পূর্ণ বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে এখনই কোনো সিদ্ধান্তে আসা যাচ্ছে না।’ ওমিক্রনের বিরুদ্ধে বর্তমানে প্রচলিত টিকার কিছু কার্যকারিতা দেখা যাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘টিকা নেওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে যাদের শরীরে ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে, তাদের অসুস্থ হতে দেখা যাচ্ছে না। তার মানে টিকা এখনো সুরক্ষা দিচ্ছে। আমরা আশা করি, টিকাগুলো সুরক্ষা দেওয়া অব্যাহত রাখবে।’

আশার কথা শোনানোর অংশ হিসেবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলেছে, এ পর্যন্ত ওমিক্রনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কোনো মৃত্যুর খবর তারা পায়নি।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা দেশগুলোকে স্বাস্থ্যসেবা এবং জনগণের টিকার পরিধি বাড়ানোর আহ্বান জানিয়ে আরো বলেছে, সঠিক পদক্ষেপ হলো প্রস্তুতি নেওয়া। ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা কোনো সমাধান নয়। এ ধরনের পদক্ষেপ শুধু প্রস্তুতি নেওয়ার জন্য বাড়তি সময় দিতে পারে।

গতকাল ফিলিপাইনের রাজধানী ম্যানিলায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের আঞ্চলিক পরিচালক ড. তাকেসি কাসাই বলেছেন, ‘করোনাভাইরাসের আগের ধরন ডেল্টা মোকাবেলায় আমরা যে অভিজ্ঞতা অর্জন করেছি এবং যেসব পদক্ষেপ নিয়েছি, এই মহামারি মোকাবেলায় সেগুলোই মূল ভিত্তি।’

এদিকে করোনাভাইরাসের জিনগত পরিবর্তন নিয়ে কাজ করা ২৮টি ল্যাবরেটরির একটি সংস্থা আইএনএসসিওজি ওমিক্রনের বিস্তারের পরিপ্রেক্ষিতে ৪০ বছর এবং তাঁর বেশি বয়সী ব্যক্তিদের টিকার বুস্টার ডোজ দেওয়ার সুপারিশ করেছে।

ভারতের কর্ণাটক রাজ্য সরকার গতকাল জানিয়েছে, ওমিক্রন পজিটিভ দুজনের মধ্যে একজন একটি বেসরকারি ল্যাব থেকে কভিড নেগেটিভ সনদ নিয়ে বিদেশে পালিয়ে গেছেন। তারা ওই ব্যক্তিসহ ওই রাজ্যের বিমানবন্দর থেকে নিখোঁজ হওয়া আরো ১০ জনকে খুঁজে বের করার চেষ্টা করছে।

কর্ণাটকের রাজস্ব বিষয়ক মন্ত্রী আর অশোক ওমিক্রন নিয়ে এক শীর্ষ পর্যায়ের বৈঠকের পর গতকাল বলেন, ‘১০ জনের মধ্যে যারা নিখোঁজ হয়েছে আজ রাতের মধ্যে তাদের খুঁজে বের করে পরীক্ষা করা উচিত। এখন থেকে ভ্রমণকারীদের তাদের পরীক্ষার প্রতিবেদন না আসা পর্যন্ত বিমানবন্দর থেকে বের হতে দেওয়া হবে না।’

ভারতের জয়পুরে একই পরিবারের ৯ জনের শরীরে কভিড শনাক্ত হয়েছে। তাদের মধ্যে চারজন কয়েক দিন আগে দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে এসেছিলেন। তাঁরা ওমিক্রনে সংক্রমিত হয়েছেন এমন সন্দেহে নমুনা পরীক্ষার জন্য জয়পুরের একটি হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

 



সাতদিনের সেরা