kalerkantho

সোমবার । ৩ মাঘ ১৪২৮। ১৭ জানুয়ারি ২০২২। ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

আফ্রিকাপ্রবাসীদের দেশে না আসার পরামর্শ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আফ্রিকাপ্রবাসীদের দেশে না আসার পরামর্শ

দেশে করোনার নতুন ধরন ওমিক্রনের সংক্রমণ রোধে প্রবাসীদের দেশে না আসার পরামর্শ দিয়েছে সরকার। বিশেষ করে আফ্রিকার দেশগুলোতে থাকা প্রবাসীদের নিজ নিজ কর্মস্থলে অবস্থানের অনুরোধ জানানো হয়েছে।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন প্রবাসীদের প্রতি এই অনুরোধ জানান।

গতকাল বুধবার দুপুরে রাজধানীর মহাখালীতে বিসিপিএস মিলনায়তনে এইডস দিবসের আলোচনা শেষে স্বাস্থ্যমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ‘করোনার নতুন ধরন ওমিক্রনের সংক্রমণ রোধে যাঁরা বিদেশে আছেন, তাঁদের নিজ কর্মস্থলে থাকার অনুরোধ করছি। একসঙ্গে যদি আফ্রিকা থেকেই ২০ হাজার লোক দেশে আসেন, আমরা সবার জন্য কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা করতে পারব না।  বিমানবন্দর, স্থলবন্দরসহ দেশের সব প্রবেশপথে নির্দেশনা জারি করা হয়েছে, যেন ওমিক্রন সংক্রমিত ব্যক্তি অবাধে দেশে ঢুকতে না পারে। সবার সহযোগিতা পেলে আমরা সফল হব।’

জাহিদ মালেক বলেন, ‘কোয়ারেন্টিনের জন্য আগের যেসব হোটেল ছিল, সেগুলোতে লোকজন অনেক কম। তাই অনেকে স্বাভাবিক কার্যক্রমে ফিরে গেছে। আমরা এখন সেগুলোতে আবার কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা করছি।’

যেকোনো দেশ থেকে দেশে আসতে হলে অন্তত ৪৮ ঘণ্টা আগের করোনা পরীক্ষার সনদ দেখাতে হবে জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, যেসব যাত্রী আফ্রিকা থেকে আসবে, তাদের বাধ্যতামূলকভাবে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। একই সঙ্গে তাদের ৪৮ ঘণ্টা আগের করোনা পরীক্ষার সনদ দেখাতে হবে। এ ছাড়া অন্য যেকোনো দেশ থেকেই করোনার পরীক্ষা ছাড়া কেউ এলে তাদের অবশ্যই ৪৮ ঘণ্টার বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে যেতে হবে। 

গতকাল পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আফ্রিকা অঞ্চলের প্রবাসীদের জরুরি প্রয়োজন ছাড়া দেশে আসতে নিরুৎসাহ করতে মিশনগুলোতে চিঠি দেওয়া হয়েছে। এর পরও কেউ এলে ১৪ দিন কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে।

গতকাল স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ব্রিফিংয়েও আফ্রিকা ও ইউরোপের যেসব দেশে করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন ছড়িয়ে পড়েছে, সেসব দেশে অবস্থানরত বাংলাদেশি নাগরিকদের আপাতত দেশে না ফেরার আহ্বান জানানো হয়েছে। কভিড-১৯ পরিস্থিতি নিয়ে আয়োজিত ভার্চুয়াল স্বাস্থ্য বুলেটিনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘দক্ষিণ আফ্রিকা বা ইউরোপে বসবাসরত প্রবাসী যাঁরা আছেন, বিশেষ করে যেসব দেশে ওমিক্রন বেশি শনাক্ত হচ্ছে, তাঁদের প্রতি আমাদের অনুরোধ, আপনারা ভ্রমণ পরিকল্পনা আপাতত স্থগিত রাখুন। পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত ভ্রমণ পরিকল্পনা একেবারে বন্ধ রাখুন।’

 



সাতদিনের সেরা