kalerkantho

বুধবার । ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ১ ডিসেম্বর ২০২১। ২৫ রবিউস সানি ১৪৪৩

মেয়র জাহাঙ্গীর সাময়িক বরখাস্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৬ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



মেয়র জাহাঙ্গীর সাময়িক বরখাস্ত

জাহাঙ্গীর আলম

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে কটূক্তি এবং মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করে আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কৃত মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলমকে এবার গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার তাঁকে বরখাস্ত করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়। অন্যদিকে ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন প্যানেল মেয়র আসাদুর রহমান কিরণ। এর আগে মন্ত্রণালয়টির মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম জাহাঙ্গীরকে সাময়িক বরখাস্তের কথা সাংবাদিকদের জানান। মন্ত্রী জানান, তাঁর বিরুদ্ধে জমি দখলসহ নানা অভিযোগ রয়েছে।

মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মুস্তাকিম বিল্লাহ ফারুকীর নেতৃত্বে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি বিষয়গুলো তদন্ত করছে। অন্যদিকে মেয়রের অবর্তমানে দায়িত্ব পালনে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর আসাদুর রহমান কিরণ, মো. আবদুল আলীম মোল্লা ও আয়েশা আক্তারকে নিয়ে তিন সদস্যের মেয়র প্যানেল গঠন করে দেয় মন্ত্রণালয়।

গত ১৯ নভেম্বর জাহাঙ্গীর আলমকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়। গত সেপ্টেম্বর মাসে গোপনে ধারণ করা মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের কথোপকথনের একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়। এতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করা হয় বলে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা অভিযোগ করেন।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম বলেন, জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ আছে। এর মধ্যে সরকারি সম্পদের অপব্যবহার, অর্থ আত্মসাৎ, ক্ষমতার অপব্যবহার ইত্যাদি রয়েছে। অভিযোগগুলো তদন্ত করছে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি।

জাহাঙ্গীর আলম গতকাল কালের কণ্ঠকে জানান, অর্থ আত্মসাৎ কিংবা ক্ষমতার অপব্যবহার করেননি তিনি।

প্রজ্ঞাপনে যা রয়েছে : ‘গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে ভুয়া টেন্ডার, আরএফকিউ (রিকোয়েস্ট ফর কোট), বিভিন্ন পদে অযৌক্তিক লোকবল নিয়োগ, বিশ্ব ইজতেমা উপলক্ষে ভুয়া বিল ভাউচারের মাধ্যমে অর্থ আত্মসাৎ এবং প্রতিবছর হাট-বাজার ইজারার অর্থ নির্ধারিত খাতে জমা না রাখার অভিযোগ আনা হয়েছে। ভূমি দখল, ক্ষতিপূরণ ছাড়া রাস্তা প্রশস্তকরণসংক্রান্ত প্রাপ্ত অভিযোগের বিষয়ে সিটি করপোরেশনের মতামত জানতে চাওয়া হলে কোনো মতামত দেওয়া হয়নি। বর্ণিত অভিযোগগুলো ক্ষমতার অপব্যবহার বিধি-নিষেধ পরিপন্থী কার্যকলাপ, দুর্নীতি ও ইচ্ছাকৃত অপশাসনের শামিল, যা সিটি করপোরেশন আইন ২০০৯-এর ধারা ১৩(১)(ঘ) অনুযায়ী অপসারণযোগ্য অপরাধ। সিটি করপোরেশন আইন ২০০৯-এর ধারা ১২(১) অনুযায়ী সুষ্ঠু তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনার স্বার্থে মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলমকে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হলো।’

মন্ত্রী যা বললেন : গতকাল স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম তাঁর দপ্তরে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, আইন অনুযায়ী কোনো নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি বিশেষ করে মেয়রের বিরুদ্ধে যদি কোনো অভিযোগ আসে এবং তা যদি তদন্তের মাধ্যমে নিষ্পত্তির জন্য আমলে নেওয়া হয় তাহলে তাঁকে সাময়িক বরখাস্ত করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। সে কারণে মেয়র জাহাঙ্গীরকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

মন্ত্রী বলেন, ‘আজ আমরা বহিষ্কারাদেশ জারি করছি। পত্র প্রাপ্তির তিন দিনের মধ্যে নতুন ভারপ্রাপ্ত মেয়র দায়িত্ব গ্রহণ করবেন। এর মধ্যেই ক্ষমতা হস্তান্তরের নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে।’

জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে দুই মামলা : গতকাল বৃহস্পতিবার জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটূক্তি করার অভিযোগে পঞ্চগড় আদালতে মামলা দায়ের করেছেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও ছাত্রলীগ নেতা আশিকুজ্জামান সৌরভ। চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হুমায়ূন কবির সরকার সিআইডিকে তদন্ত করে আগামী ৫ জানুয়ারির মধ্যে আদালতে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন।

গতকাল দুপুরে একই অভিযোগে মাদারীপুর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা করেন মাদারীপুর জেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট বাবুল আকতার।

প্যানেল মেয়রের দায়িত্ব গ্রহণ : জাহাঙ্গীরকে সাময়িক বরখাস্ত করার পর গতকাল বিকেল ৫টার দিকে ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব গ্রহণ করেন প্যানেল মেয়র আসাদুর রহমান কিরণ। ওই সময় গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের কয়েকজন শীর্ষ নেতা এবং সাত-আটজন কাউন্সিলর উপস্থিত ছিলেন। প্রথম নির্বাচিত মেয়র অধ্যাপক এম এ মান্নান গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে গেলে তখনো প্রায় আড়াই বছর ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব পালন করেন আসাদুর রহমান কিরণ। এ নিয়ে তিনি দ্বিতীয়বার গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র হলেন।

 



সাতদিনের সেরা