kalerkantho

মঙ্গলবার । ১১ মাঘ ১৪২৮। ২৫ জানুয়ারি ২০২২। ২১ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

চোটে শেষ সাকিবের বিশ্বকাপ

বিশেষ প্রতিনিধি, দুবাই থেকে   

১ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



চোটে শেষ সাকিবের বিশ্বকাপ

সাকিব আল হাসান

তিন বছর আগেও এখান থেকে ফিরে যেতে হয়েছিল তাঁকে। সেবার ছিটকে পড়েছিলেন বাংলাদেশের সফল এশিয়া কাপ অভিযানের মাঝপথে। এবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে যখন মাহমুদ উল্লাহর দল ব্যর্থ মিশন শেষ করার অপেক্ষায়, তখনো চোট কেড়ে নিল সাকিব আল হাসানকে। দক্ষিণ আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সুপার টুয়েলভ পর্বের নিজেদের শেষ দুই ম্যাচে তাই এই অলরাউন্ডারকে পাচ্ছে না বাংলাদেশ।

বিজ্ঞাপন

তাঁকে আর না পাওয়ার ইঙ্গিত ছিল শারজায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচের পর ৪৮ ঘণ্টার পর্যবেক্ষণে থাকার মধ্যেই। বেঁধে দেওয়া সেই সময় পার হওয়ার আগেই অবশ্য জানাজানি হয়ে যায় যে তাঁকে আর পাওয়া যাচ্ছে না। সাকিবের খেলার সম্ভাবনা নিয়ে জিজ্ঞাসার মুখে দুপুরেই বিসিবির ক্রিকেট অপারেশনস কমিটির প্রধান আকরাম খানকে বলতে শোনা যায়, ‘সুযোগ কম। ’

বিকেল নাগাদ বিসিবির সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়ে দেওয়া হয় যে সুযোগ নেই-ই। ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে ম্যাচের চতুর্থ ওভারে কাভার থেকে ডিপ কাভারে ছুটে গিয়ে ফিল্ডিং করতে গিয়েই প্রথম চোট অনুভব করেন সাকিব। তখনই মাঠ থেকে বেরিয়েও যান। তবে ফিরে এসে ৪ ওভার বোলিং করা এই অলরাউন্ডার পরে ব্যাট হাতে ইনিংস ওপেন করতেও নামেন। পুরো সময়েই তাঁর চলাফেরায় ফুটে থাকে অস্বস্তিও।

পরীক্ষা-নিরীক্ষায় সেই অস্বস্তি শিগগিরই সেরে যাওয়ার সম্ভাবনাও না দেখায় তাঁকে ছাড়তে হচ্ছে বিশ্বকাপের ময়দানও। বিসিবির প্রধান চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী দলের তারকা ক্রিকেটারের সর্বশেষ অবস্থা জানাতে গিয়ে বলেছেন, ‘ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচে ফিল্ডিংয়ের সময় সাকিবের বাঁ হ্যামস্ট্রিংয়ের নিচের অংশে টান ধরে। খেলাটি যদিও সে কোনো রকমে শেষ করতে পেরেছিল, কিন্তু খেলার পর ব্যথা বেড়ে যায়। আমরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে জানতে পারি, ওর চোটের ধরন গ্রেড ওয়ান। এই অবস্থায় আগামী কিছুদিন ওর খেলাধুলায় অংশ নেওয়ায় সমস্যা হতে পারে। এ জন্য আমরা ওকে আপাতত খেলা থেকে বিরত থাকতে বলেছি। ’

তবে কত দিনের জন্য মাঠের বাইরে থাকতে হবে সাকিবকে, তা এখনই বলছেন না দেবাশীষ, ‘সপ্তাহখানেক পর আমরা আবার ওর অবস্থা পুনর্মূল্যায়ন করব। ’ তাই দেশের মাটিতে ১৯ নভেম্বর থেকে শুরু হতে যাওয়া পাকিস্তান সিরিজেও তাঁর খেলা অনিশ্চিত কি না, তা এখনই বলার উপায় নেই। তবে সাকিবের বদলে নতুন কোনো ক্রিকেটার বদলি হিসেবে নেওয়া হচ্ছে না বলেও সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে বিসিবি। যদিও এই মুহূর্তে সেই উপায় নেইও।

কারণ অন্যান্য দল নিজেদের খরচে মূল দলের বাইরেও বাড়তি সদস্য নিয়ে বিশ্বকাপে এসেছে এ রকম পরিস্থিতির ধকল এড়াতে। বাংলাদেশ সেখানে নিয়ে আসে মাত্র দুজন। এঁদের মধ্যে লেগ স্পিনার আমিনুল ইসলামকে দেশে ফেরত পাঠানো হয় ওমানে বাছাই পর্ব শুরুর আগেই। রুবেল হোসেন দলের সঙ্গেই ছিলেন, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন পিঠের চোটে ছিটকে পড়ার পর তাঁকে নেওয়া হয়েছে বদলি হিসেবে। বদলি কাউকে আনতে হলেও আগে তাঁর ছয় দিনের কোয়ারেন্টিনের যে নিয়ম করে রেখেছে আইসিসি, তাতে নতুন কেউ এসে জৈব সুরক্ষা বলয়ে ঢুকতে না ঢুকতেই টুর্নামেন্ট শেষ। বাংলাদেশ তাই এ ক্ষেত্রে উপায়হীনই ছিল।

আকরাম যদিও বাড়তি ক্রিকেটার নিয়ে না আসার ভুল স্বীকার করতে চাইলেন না, ‘সাকিবের মতো বদলি তো আর কেউ নেই। তবে নাসুম আছে। সাকিবের জায়গায় বাঁহাতি স্পিনার হিসেবে সে-ই খেলবে। ’ কিন্তু ওদিকে যে আবার নুরুল হাসানের তলপেটের ব্যথাও সারেনি। ইংল্যান্ড ম্যাচের আগের দিন নেটে ব্যাটিংয়ের সময় তাসকিন আহমেদের বলে চোট পাওয়া উইকেটরক্ষক-ব্যাটার পরদিন খেলেনও। খেলে ব্যথা বেড়ে যাওয়ায় তাঁকেও ৭২ ঘণ্টার জন্য পূর্ণ বিশ্রামে পাঠানো হয়। আজ তাঁর অবস্থা পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন দেবাশীষ। সেই সিদ্ধান্ত হওয়ার আগ পর্যন্ত সাকিবকে ছাড়া ১৪ জনের মূল দল বাংলাদেশের।



সাতদিনের সেরা