kalerkantho

রবিবার । ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৫ ডিসেম্বর ২০২১। ২৯ রবিউস সানি ১৪৪৩

আফগানদের দাপুটে জয়

ক্রীড়া প্রতিবেদক   

২৬ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আফগানদের দাপুটে জয়

এই বিশ্বকাপের প্রথম বোলার হিসেবে ৫ উইকেট তুলে নিয়েছেন মুজিব উর রহমান। আফগান স্পিনারের দারুণ বোলিংয়েই ১৯০ তাড়া করাটা দুরাশা হয়ে যায় স্কটিশদের জন্য। ছবি : ক্রিকইনফো

প্রথমে ব্যাট হাতে আগুনের ফুলকি ছোটালেন নাজিবুল্লাহ জাদরান, হজরতউল্লাহ জাজাইরা। পরে বল হাতে মায়াবী ঘূর্ণি তুললেন মুজিব উর রহমান। স্কটিশরা তাতে নিঃশেষ। বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ১৩০ রানের দাপুটে জয় তুলে নিল আফগানিস্তান।

দেশের মানুষ ঘরছাড়া, রাজনৈতিক পালাবদলে জীবন সেখানে সংগ্রামের। ম্যাচের আগে মোহাম্মদ নবী বলেছিলেন, ক্রিকেট দিয়েই তাঁরা হাসি ফোটাতে চান আফগানদের মুখে। শারজার ক্রিকেট মাঠ হয়ে সত্যিই কাল সেই খুশি ছড়িয়ে পড়ার কথা আফগানিস্তানের আনাচকানাচে। ব্যাটিংয়ে এই বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ ১৯০ রান তুলেছে তারা। এরপর বোলিংয়ে স্কটল্যান্ডকে গুঁড়িয়ে দিয়েছে মাত্র ৬০ রানে। এর চেয়ে ভালো শুরু আর কি হতে পারত! স্পিনার মুজিব ৪ ওভারে ২০ রান দিয়ে তুলে নিয়েছেন ৫ উইকেট। এই বিশ্বকাপে ৫ উইকেটের প্রথম কীর্তিও এটি। টস জিতে ব্যাটিং নেয় আফগানিস্তান। কেন নিয়েছে তা বোঝাতে একেবারেই সময় নেননি জাজাই, মোহাম্মদ শাহজাদরা। ব্র্যাড হোয়েলের প্রথম ওভারটা দেখে নিয়ে দ্বিতীয় ওভারেই ১৮ রান তুলে শুরু করেছেন রানোৎসব। পরের ওভারগুলোতে অতটা না হলেও চার, ছক্কা ছিলই। রান রেট ৯-এর কাছাকাছিই থেকেছে সব সময়। তাতে শেষ পর্যন্ত প্রত্যাশা ছাপানো ১৯০ রানের বিশাল সংগ্রহই দাঁড় করায় তারা মাত্র ৪ উইকেটে।

৫ ওভারে ৪৬ রান তোলে তারা। মিচেল লিস্কের ওভারে ১৮ তোলার পর হুইলের ওপরও চড়াও হন দুই আফগান ওপেনার। তাঁর দ্বিতীয় ওভারে তোলেন ১৬ রান। ষষ্ঠ ওভারে সাফায়ন শরীফ এসে প্রথম তুলে নেন শাহজাদকে। ২ চার ও ১ ছক্কায় ১৫ বলে ২২ রান তুলে ফেরেন শাহজাদ। তাঁর জায়গায় নেমে রহমানউল্লাহ গুরবাজ হাত চালাতে থাকেন একই ধরনে। ১০ ওভারেই তাই স্কোরবোর্ডে ৮২ রান যোগ করে ফেলেন আফগানরা। এর মধ্যে ওয়াটের বলে আউট হন মারকুটে জাজাই। ৩ চার ও ৩ ছক্কায় তাঁর ৪৪ রান ৩০ বলে। কিন্তু জাজাইকে ফিরিয়েও কি স্কটিশদের স্বস্তি হয়! চার নম্বরে ব্যাট করতে নামা জাদরান যেন আরো বিধ্বংসী। ৩৪ বলে ৫৯ তাঁর, যেখানে ৩টি ছয় ও ৪টি চার। স্কটিশ বোলারদের একরকম তুলাধোনা করেছে আফগান এই ব্যাটার। তাঁর সঙ্গে গুরবাজ খেলেছেন ৩৭ বলে ৪৬ রানের ইনিংস। শেষ ওভারে ২০০ তাড়া করছিল তারা। শরীফের সেই ওভারে শেষ পর্যন্ত ১৪ নিয়ে ১৯১ রানে বিশাল লক্ষ্য ছুড়ে দেয় তারা স্কটিশদের সামনে।

স্কটল্যান্ড ব্যাটিংয়ে নেমে জর্জ মুনসেতে ভরসা পেলেও অন্য প্রান্তে যেন আগুন ধরে যায়। মুজিব নিজের দ্বিতীয় ওভারে এসে ৩ উইকেট তুলে নিলে আফগানদের পাহাড় সমান স্কোর স্কটিশদের সামনে যে আরো ঝাপসা হয়ে যায়। কাইল কোয়ের্টজার ও কালাম ম্যাকলয়েডকে পর পর দুই বলে ফিরিয়ে আফগান স্পিনার হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনাও জাগিয়েছিলেন। সেটি না হলেও ওভারের ষষ্ঠ বলে ঠিক তুলে নিয়েছেন রিচার্ড বেরিংটনকে। নিজের তৃতীয় ওভারে ২৫ রান করা মুনসেকেও তুলে নিলে স্কটিশদের আর আশা থাকে না। এরপর জয়ের ব্যবধানটা কত বড় হয়, সেটিই শুধু ছিল দেখার অপেক্ষা। মুজিব নিজের চতুর্থ ওভারে নিজের পঞ্চম উইকেটটিও পেয়ে যান। রশিদ খানও পরে বোলিংয়ে এসে তুলে নিয়েছেন ৪ উইকেট। ১০.২ ওভারেই তাই বিশাল জয়। যে জয়ে রান রেটে গ্রুপে পেছনে ফেলে দিয়েছে তারা পাকিস্তানকেও।

 



সাতদিনের সেরা