kalerkantho

রবিবার । ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ২৮ নভেম্বর ২০২১। ২২ রবিউস সানি ১৪৪৩

আজই নামছে বাংলাদেশ

মাসকাট থেকে প্রতিনিধি   

১৭ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



আজই নামছে বাংলাদেশ

গতকালই মাসকাটে পৌঁছেছেন সাকিব আল হাসান। প্রথম ম্যাচেই তাঁর খেলার কথা জানিয়েছেন মাহমুদ উল্লাহ। ছবি : মাসকাট থেকে মীর ফরিদ

আইপিএলের ফাইনাল খেলে সাতসকালে এসে দলের সঙ্গে যোগ দেওয়া সাকিব আল হাসান সন্ধ্যায় হাজির বাংলাদেশ দলের অনুশীলনেও। খেলার মধ্যে থাকায় টিম ম্যানেজমেন্টও তাঁর অনুশীলন করার খুব দরকার আছে বলে মনে করছিল না। কিন্তু এই অলরাউন্ডার অন্য রকম ভাবলেন বলেই আল আমরাত স্টেডিয়ামের সেন্টার উইকেটে ব্যাটিংয়েও নেমে গেলেন।

বেশ সময় নিয়ে ব্যাটিং করলেন, হয়তো ব্যাট হাতে আইপিএলের শেষ দুই ম্যাচের ব্যর্থতা ভুলে ছন্দ ধরতেই। দলও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে তাঁর সেই ছন্দের খোঁজ পেতে চাইবে। ২০১৯-এর ওয়ানডে বিশ্বকাপের ‘হিরো’ নিজেও চাইবেন আরেকটি বিশ্বকাপ রাঙাতে। কিন্তু এই সংস্করণের বিশ্বকাপ বাংলাদেশের জন্য এমন এক ধাঁধা হয়ে আছে, যেটি মিলিয়ে কারো নতুন হিরো হওয়ার ঘটনা বহুদিন ঘটেনি। সে রকম কিছু ঘটতে হলে মূল পর্বে বড় দলের বিপক্ষে ম্যাচ জেতানো পারফরম্যান্স চাই।

সব শেষ পাঁচটি আসরে মূল পর্বে কোনো ম্যাচই যখন জেতা যায়নি, তখন নতুন হিরোর সন্ধানও মেলেনি। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ইতিহাসে বাংলাদেশের শেষ হিরো তাই সেই ২০০৭ সালের মোহাম্মদ আশরাফুলই। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে যাঁর ২৭ বলে ৬১ রানের বিধ্বংসী ইনিংসেই লেখা হয়ে আছে এই সংস্করণের বিশ্ব আসরে বাংলাদেশের শেষ গৌরব। এর পরও কিছু বিক্ষিপ্ত পারফরম্যান্স যে ছিল না, তা নয়। কিন্তু সেগুলোর কথা মনে রেখেছে কয়জনে?

যেমন ২০১৬-এর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ওমানের বিপক্ষে তামিম ইকবালের সেঞ্চুরির কথা কেউ সেভাবে বলেই না। যেমন কেউ বলে না ২০১৫-এর ওয়ানডে বিশ্বকাপে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে তাঁর ৯৫ রানের ইনিংসটির কথাও। ওই আসরের যা কিছু নিয়ে বলা হয়, এর পুরোভাগে থাকেন অ্যাডিলেডে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশের কোয়ার্টার ফাইনাল ভাগ্য লেখা মাহমুদ উল্লাহ। ২০১৯-এর ওয়ানডে বিশ্বকাপ প্রসঙ্গ এলেই যেমন আলোচনার পুরোটা চলে যায় সাকিবের দখলে।

এমন দখল এবার কে নেবেন? মূল পর্বে কে হয়ে উঠবেন নতুন হিরো? এসব প্রশ্নের উত্তর পাওয়ার আগে তো প্রথম পর্ব নামের বাছাই পর্ব পার হতে হবে আগে। সেই বাছাই পর্বেই আজ স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে অভিযানে নামছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায় শুরু হতে যাওয়া ম্যাচ নিয়ে ভাবনা থাকবে স্বাভাবিক। তবে সামনের ভাবনাও যে আছে মাহমুদ উল্লাহর, ম্যাচ-পূর্ব সংবাদ সম্মেলনেও ইঙ্গিতে জানান দিলেন সেটির, “দেশেও একটি কথা বলে এসেছিলাম। বলেছিলাম, আমাদের বেশ কয়েকটি ধাপ পার হতে হবে। কিছু ‘ব্যারিয়ার’ আছে, যেগুলো এবার ভাঙতে চাই।”

সেই ‘ব্যারিয়ার’ তো প্রথম পর্ব পার হওয়া নিশ্চয়ই নয়। কারণ নিয়মিতই প্রথম পর্ব পার হয়ে আসছেন তাঁরা। পার হতে পারছেন না শুধু মূল পর্বে জয়ের সেতুই। তাই সব শেষ পাঁচ আসরজুড়েই ‘হিরো’র মর্যাদা নিয়ে ইতিহাসে ঠাঁইও করে নিতে পারেননি কেউ। এই নিয়ে তাঁর ভাবনা জানতে চাওয়া হলে বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক একচিলতে হাসিতে শুধু

এটুকুই বলেছেন, ‘আমরা আপাতত এই রাউন্ড নিয়েই চিন্তা-ভাবনা করছি। সব ম্যাচ জিতে পরের রাউন্ডে গেলে এই জিনিসগুলো (নতুন হিরো পাওয়া) নিয়ে ভাবব। তবে আমরা যত বেশি সম্ভব ম্যাচ জিততে চাই।’

যথাসম্ভব ম্যাচ জিততে চাওয়া দল আবার বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করছে দুটো অফিশিয়াল প্রস্তুতি ম্যাচ হেরে। শ্রীলঙ্কা ও আয়ারল্যান্ডের কাছে হারে মনোবলে চোট লাগল কি না, সেই প্রশ্নও উঠল। আর আইরিশদের সম্প্রতি হারানো স্কটল্যান্ডও বোধ হয় এই সুযোগে প্রতিপক্ষকে মানসিক চাপে রাখতে চাইল। এ জন্যই তাঁদের কোচ শেন বার্গার মাঠ গরম করে দিতে চাইলেন এই কথা বলে, ‘আমরা বাছাই পর্বের খেলায় বাংলাদেশকে পাপুয়া নিউ গিনি ও ওমানের চেয়ে খুব একটা ওপরে দেখতে পাচ্ছি না।’ মাহমুদ উল্লাহ অবশ্য এই ‘মেন্টাল গেম’ খেলতে চাইলেন না। বলে দিলেন, ‘উনি কী বলেছেন, এটি নিয়ে আমি খুব একটা ভাবছি না। আমরা আমাদের সামর্থ্য সম্পর্কে জানি। আশা করি, দল হিসেবে মাঠে আমরা নিজেদের সেরাটাই দেব।’

মাহমুদও চোট কাটিয়ে মাঠে নিজের সেরাটা দিতে তৈরি। প্রস্তুতি ম্যাচের হারেও দলে মানসিক চোট লেগেছে বলে মনে করেন না, ‘এর কোনো প্রভাবই পড়বে বলে মনে করি না। দলের আত্মবিশ্বাস আগের মতোই আছে। প্রস্তুতি ম্যাচের হার আমাদের জন্য কোনো সতর্কবার্তাও নয়। কারণ আমরা জানি, ওই দুই ম্যাচে কোন জায়গাগুলো কাজে লাগাতে পারিনি। বেশ কয়েকজন খেলোয়াড়ও একাদশে ছিল না।’

না থাকা সাকিবকে নিয়েই একাদশে ফিরছেন মাহমুদও। দলের শক্তি-সামর্থ্যও তাই বেড়ে যাচ্ছে অনেক। এখানে নিকট অতীতের প্রস্তুতি ম্যাচের হার ভুলেই যাচ্ছেন। মনে রাখছেন অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে পাওয়া একটু পেছনের সাফল্যই। আর প্রথম পর্ব ছাপিয়ে তাকাচ্ছেন একটু সামনেও, চোখ রাখছেন মূল পর্বেও; যেখানে না জেতার ‘ব্যারিয়ার’ ভাঙতে চান যেমন, তেমনি টি-টোয়েন্টির বিশ্ব আসরে খুঁজে নিতে চান নতুন কোনো ‘হিরো’কেও!



সাতদিনের সেরা