kalerkantho

রবিবার । ৪ আশ্বিন ১৪২৮। ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১১ সফর ১৪৪৩

রিকশার নগরে ভাড়া নৈরাজ্য

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



রিকশার নগরে ভাড়া নৈরাজ্য

করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে চলমান বিধি-নিষেধের আওতায় বন্ধ রয়েছে সব ধরনের গণপরিবহন। তবে বিশেষ প্রয়োজনে অনেককেই ঘর থেকে রাস্তায় নামতে হচ্ছে। সে ক্ষেত্রে তাদের যাতায়াতে একমাত্র ভরসা রিকশা। যাদের ব্যক্তিগত গাড়ি আছে তারাও সড়কে গাড়ি বের করছে না। এই সুযোগে রাজধানীর সড়কে রিকশার চলাচল বেড়েছে। একই সঙ্গে কয়েক গুণ বেড়েছে রিকশার ভাড়া।

গতকাল শনিবার রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, ফাঁকা সড়ক রিকশার রাজ্যে পরিণত হয়েছে আর চলছে ভাড়া নৈরাজ্য। গুরুত্বপূর্ণ সড়কের মোড়ে বসানো হয়েছে পুলিশের তল্লাশিচৌকি। যারা ঘর থেকে বের হয়েছে তাদের কড়া জিজ্ঞাসাবাদের মধ্য দিয়েই গন্তব্যে পৌঁছতে হচ্ছে। তবে ব্যক্তিগত গাড়ির তুলনায় রিকশায় চলাচলকারীদের পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদের মুখে কম পড়তে হচ্ছে। অপ্রয়োজনে যারা ঘর থেকে বের হয়েছে তাদের মামলা, গ্রেপ্তার ও জরিমানা করা হয়েছে। এদিন গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৩৮৩ জনকে। জরিমানা আদায় করা হয়েছে ১২ লাখ টাকা।

সকাল সাড়ে ৯টার দিকে মিরপুর আইডিয়াল গার্লস স্কুলের সামনে এক রিকশাওয়ালার সঙ্গে ভাড়া নিয়ে দামদর করছিলেন সোলায়মান আলী। তাঁর কাছে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ পর্যন্ত রিকশাভাড়া চাওয়া হয় ৩৫০ টাকা।

আরো বেশ কয়েকটি এলাকা ঘুরেও রিকশার অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের এমন চিত্র দেখা গেছে। পাড়া-মহল্লা ছেড়ে রাজধানীর ভেতরে দূরের কোনো গন্তব্যে যেতে চাইলেই অস্বাভাবিক অঙ্কে রিকশার ভাড়া হাঁকা হচ্ছে।

কারওয়ান বাজার এলাকায় বিপুলসংখ্যক রিকশা-ভ্যান প্রতিদিন ট্রাক থেকে সবজি নামানো ও বহনের কাজ করে। গতকাল সকালে দেখা যায়, ওই সব ভ্যানের চালকরা সবজি বহনের পাশাপাশি যাত্রীও টানছেন। মিরপুরের শেওড়াপাড়া কাঁচাবাজারে সবজি নামিয়ে ফেরার সময় যাত্রী বহন করতে দেখা যায় ভ্যানচালক রফিকুলকে। তিনি বলেন, ‘পাঁচজন যাত্রীকে আজিমপুরে নিয়া যামু। ভাড়া এক হাজার ২০০ টাকা। একটু উপরি কামাই করে নিই, সুযোগ তো সব সময় আসে না।’

‘অপ্রয়োজনে’ ঘর থেকে বের হওয়ায় গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত এক দিনে ৩৮৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (মিডিয়া) ইফতেখারুল ইসলাম বলেন, গ্রেপ্তার ছাড়াও ১৩৭ জনকে ৯৫ হাজার ২৩০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এ ছাড়া ৪৪১টি গাড়ির নামে মামলা করেছে পুলিশ। এসব মামলার বিপরীতে জরিমানা আদায় করা হয়েছে ১০ লাখ ৮৩ হাজার টাকা।

এদিকে এক দিনেই যেন বদলে গেছে ঢাকার গুরুত্বপূর্ণ বাস টার্মিনাল, রেলস্টেশন ও লঞ্চঘাটের চিত্র। গত শুক্রবার সকালেও যেখানে লোকের ভিড় ছিল, সেখানে গতকাল সব ছিল ফাঁকা। বাস টার্মিনালগুলোতে কিছু শ্রমিকের আনাগোনা ছিল। তাঁদের অনেককেই বাসের মেরামত, পরিষ্কার ও পাহারায় নিয়োজিত থাকতে দেখা যায়।

কমলাপুর রেলস্টেশনও ফিরে গেছে সুনসান অবস্থায়। পণ্যবাহী কয়েকটি ট্রেন ছাড়া সব ট্রেন বন্ধ থাকায় দেশের প্রধান রেলস্টেশনটিতে মানুষের আনাগোনা নেই। একই অবস্থা সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে। এখানেও নেই সাধারণ মানুষের দেখা। গত শুক্রবার সকাল ৬টার পর থেকে কোনো লঞ্চ যাত্রী নিয়ে ঘাটে আসেনি; এখান থেকেও ছেড়ে যায়নি কোনো লঞ্চ।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডাব্লিউটিএ) যুগ্ম পরিচালক (ট্রাফিক) জয়নাল আবেদীন বলেন, শুক্রবার সকাল ৬টার পর থেকে যাত্রী নিয়ে লঞ্চ চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। ডকিংয়ের প্রয়োজনে ছয়টি লঞ্চ বিশেষ অনুমতি নিয়ে ঘাট ছেড়ে গেছে। তবে সেগুলোতে যাত্রী বহন করা হয়নি।

এদিকে রাজধানীর প্রধান সড়কগুলোতে চলাচল কম থাকলেও আজিমপুর, লালবাগ, কেল্লার মোড়, বকশীবাজার ও পলাশীর অলিগলিতে মানুষ, ব্যক্তিগত গাড়ি ও রিকশার চলাচল বেড়েছে। খাবারের দোকান বন্ধ থাকলেও অলিগলিতে ভ্যানগাড়িতে ফল আর সবজি বিক্রি চলছে। কলাবাগান, মহাখালী, বনানী, বাড্ডা ও রামপুরা এলাকার সড়কে রিকশা ও ভ্যান ছাড়া অন্য কোনো যানবাহন দেখা যায়নি।