kalerkantho

শনিবার । ৯ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৪ জুলাই ২০২১। ১৩ জিলহজ ১৪৪২

আরো ৭৬ জনের মৃত্যু

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলেই সর্বোচ্চ সংক্রমণ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



আরো ৭৬ জনের মৃত্যু

দেশে করোনা সংক্রমণ প্রতিদিনই বাড়ছে। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত আগের ২৪ ঘণ্টায় এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ৭৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে নতুন করে শনাক্ত হয়েছে আরো চার হাজার ৮৪৬ জন। এর মধ্যে এক হাজার ৪৯৬ জন বা ৩১ শতাংশই ঢাকায়।

জাতীয় হিসাবে দৈনিক শনাক্তের হার গতকাল ছিল ১৯.৩৬ শতাংশ। তবে বিভাগ ও জেলাভিত্তিক অনেক এলাকায়ই শনাক্তের হার কয়েক গুণ বেশি। বিশেষ করে গতকালও বিভাগওয়ারি সর্বোচ্চ ৪৫ শতাংশ শনাক্ত ছিল খুলনায়। এর পরই রংপুরে ৩৪, বরিশালে ২৮, রাজশাহীতে ১৯, সিলেটে ১৭, ময়মনসিংহে ১৬, ঢাকায় প্রায় ১৫ এবং চট্টগ্রামে ১৩ শতাংশ।

অন্যদিকে জেলাভিত্তিক হিসাবে শনাক্তের হারে চুয়াডাঙ্গার পরিস্থিতি সবচেয়ে খারাপ, ৬৫ শতাংশ। এ ছাড়া বাগেরহাটে ৫০, যশোরে ৪৮, দিনাজপুরে ৪৪, খুলনায় ৪২, ফরিদপুরে ৪১, মাদারীপুরে ৪১, কুষ্টিয়ায় ৩৭ শতাংশ সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। এর বাইরেও বেশির ভাগ জেলাতেই সংক্রমণ ২৫ শতাংশের ওপরে রয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুসারে, গতকাল সকাল পর্যন্ত আগের ২৪ ঘণ্টায় করোনা সংক্রমণে মারা গেছে ৭৬ জন। তাদের মধ্যে সর্বোচ্চ ২৭ জন মারা গেছে খুলনায়। এ ছাড়া ১৪ জন করে ঢাকা ও রাজশাহীতে, ১০ জন চট্টগ্রামে, দুজন বরিশালে, তিনজন সিলেটে এবং ছয়জন রংপুরে মারা গেছে। এর মধ্যে ২১-৩০ বছরের একজন, ৩১-৪০ বছরের আটজন, ৪১-৫০ বছরের সাতজন, ৫১-৬০ বছরের ২৩ জন এবং ষাটোর্ধ্ব ৩৭ জন রয়েছে। মৃতদের মধ্যে ৪২ জন পুরুষ ও ৩৪ জন নারী।

মাঠ পর্যায়ের পরিস্থিতি : নাটোরে করোনায় আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো একজনের মৃৃত্যু হয়েছে। নতুন করে শনাক্ত হয়েছে ৭০ জন। গতকাল এখানে শনাক্তের হার ছিল ৩২.৫৫ শতাংশ। একই সময়ে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে করোনা ইউনিটে মারা গেছে ১৩ জন।

রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী জানান, মৃত ১৩ জনের মধ্যে ১২ জনেরই বাড়ি রাজশাহীতে। তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় এই হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ৫৬ জন। গতকাল সকাল ৮টা পর্যন্ত এখানে ভর্তি ছিল ৩৯৩ জন। আগের দিন ভর্তি ছিল ৪০২ জন রোগী। হাসপাতালে করোনা ডেডিকেটেড শয্যার সংখ্যা ৩০৯।

রংপুর বিভাগে করোনায় আক্রান্ত হয়ে আরো পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃতদের মধ্যে রংপুর ও পঞ্চগড়ে একজন করে, ঠাকুরগাঁওয়ে দুজন ও দিনাজপুরের একজন। এ নিয়ে রংপুর বিভাগে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেল ৪৬৬ জন। রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. আবু মো. জাকিরুল ইসলাম গতকাল এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, গত ২৪ ঘণ্টায় ৭৪৬ জনের নমুনা পরীক্ষায় ২৫৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এটা নমুনা পরীক্ষার ৩৫ শতাংশ।

যশোরে নতুন করে ৫২৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২৫৩ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ৪৮ শতাংশ। 

ঠাকুরগাঁওয়ে প্রতিদিন বাড়ছে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা, বেড়েছে মৃত্যুও। 

সাতক্ষীরায় লকডাউনের মধ্যেও গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে একজন ও উপসর্গ নিয়ে আটজন মারা গেছেন। এ ছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় জেলায় ১৮৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৮৬ জনের পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ৪৫.৭৬ শতাংশ।

ঝিনাইদহে ৬৩টি নমুনা পরীক্ষায় ৩০ জনেরই পজিটিভ এসেছে। নতুন করে মারা গেছেন একজন করোনা রোগী। উপসর্গ নিয়ে গতকাল শৈলকুপা উপজেলায় এক দম্পতির মৃত্যু হয়েছে। এ অবস্থায় গতকাল সন্ধ্যা ৬টা থেকে আগামী ৩০ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত পুরো জেলায় কঠোর লকডাউন ঘোষণা করেছে জেলা প্রশাসন।

[এ প্রতিবেদনে তথ্য দিয়েছেন সংশ্লিষ্ট এলাকার নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিরা।]