kalerkantho

শনিবার । ৯ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৪ জুলাই ২০২১। ১৩ জিলহজ ১৪৪২

চীনের আরো ছয় লাখ টিকা ঢাকায়

► দু-এক দিনের মধ্যে আগের নিবন্ধন ধরে প্রথম ডোজ টিকা চালুর সম্ভাবনা
► চীন, রাশিয়া ও কোভ্যাক্সের আরো ১৫ লাখের বেশি টিকা আসতে পারে এ মাসের মধ্যে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৪ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চীনের আরো ছয় লাখ টিকা ঢাকায়

দেশে এলো চীন সরকারের উপহারের আরো ছয় লাখ ডোজ করোনাভাইরাসের টিকা। গতকাল রবিবার বিকেলে চীনের সিনোফার্মের তৈরি এই টিকার চালান নিয়ে বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর দুটি বিশেষ বিমান ঢাকায় বঙ্গবন্ধু ঘাঁটিতে নামে। পরে সেখান থেকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তেজগাঁও ইপিআইয়ের সংরক্ষণাগারে রাখা হয়।

এ নিয়ে এখন পর্যন্ত সিনোফার্মের মোট ১১ লাখ টিকা দেশে এলো। গত ১২ মে সিনোফার্মের তৈরি পাঁচ লাখ টিকা বাংলাদেশে পাঠায় চীন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (টিকা) ডা. সামসুল হক গতকাল কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমরা আরো ছয় লাখ টিকা হাতে পেলাম। তবে এই টিকা দু-এক দিনের মধ্যেই দেওয়া শুরু হবে কি না, তা এখনই বলতে পারছি না।’ হয়তো আজ-কালের মধ্যেই এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হতে পারে বলে জানান তিনি।

অবশ্য কয়েক দিন আগে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, চীনের উপহারের টিকা দেশে পৌঁছার পর ১৪ জুন (আজ) থেকেই আবার প্রথম ডোজ টিকা দেওয়া চালু হতে পারে। এ ক্ষেত্রে যারা আগে নিবন্ধন করেও টিকার প্রথম ডোজ নিতে পারেননি তাঁরা অগ্রাধিকার পাবেন।

উপহারের এই টিকার বাইরেও চীনের সিনোফার্মের কাছ থেকে দেড় কোটি ডোজ টিকা কেনার চুক্তি করেছে সরকার। চলতি মাসের শেষ দিকে এই চুক্তির কয়েক লাখ ডোজ টিকা এক চালানে দেশে আসার সম্ভাবনা আছে। অন্যদিকে রাশিয়া থেকেও এ মাসের মধ্যে ১০ লাখের বেশি ডোজ টিকা আসতে পারে, তেমনটাই বলছে সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র।

রাশিয়ার সঙ্গেও সরকারের দেড় কোটি ডোজ স্পুৎনিক-ভি টিকা কেনার প্রক্রিয়া চলছে জোরালোভাবে। পাশাপাশি রাশিয়ার কাছ থেকে দেশের একটি বড় ওষুধ কম্পানিও স্পুৎনিক-ভি কিনে আনার প্রক্রিয়া চালাচ্ছে। আগামী দু-এক দিনের মধ্যেই এসংক্রান্ত চুক্তি সম্পন্ন হতে পারে বলেও সরকারসংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে। এ অনুযায়ী চলতি মাসেই কমপক্ষে পাঁচ লাখ ডোজ স্পুৎনিক-ভি দেশে পৌঁছাতে পারে। এই টিকাও সরকারিভাবে দেওয়া হবে বলে জানা গেছে। এ ছাড়া টিকার বৈশ্বিক উদ্যোগ কোভ্যাক্স থেকেও এ মাসে অক্সফোর্ডের কিছু টিকা আসতে পারে বলে ধারণা দিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একাধিক সূত্র। সব ক্ষেত্রেই পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সক্রিয় যোগাযোগ ও সমন্বয় করছে।

উল্লেখ্য, দেশে এই পর্যন্ত মোট এক কোটি ১৪ লাখ চার হাজার ৬২০ ডোজ টিকা এসেছে। অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার কেনা ৭০ লাখ ডোজ, যা ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটের সঙ্গে সরকারের ক্রয়চুক্তির মাধ্যমে এসেছে। সেরামের কাছে আরো দুই কোটি ৩০ লাখ ডোজ পাওনা রয়েছে। এ ছাড়া ভারত সরকারের উপহারের অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ৩৩ লাখ চার হাজার ডোজ এবং কোভ্যাক্স থেকে ফাইজারের এক লাখ ৬২০ ডোজ টিকা এসেছে। আর গতকাল ছয় লাখসহ চীনের উপহারের ১১ লাখ ডোজ টিকা পাওয়া গেল। এর মধ্যে চলতি মাসে এলো মোট সাত লাখ ৬২০ ডোজ (ফাইজারের এক লাখ ৬২০ ডোজ, সিনোফার্মের ছয় লাখ)।

দেশে গতকাল রবিবার পর্যন্ত প্রায় এক কোটি ৭০ হাজার ডোজ টিকা দেওয়া শেষ হয়েছে। এর মধ্যে প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৫৮ লাখ ২০ হাজার ১৫ জন, দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন প্রায় সাড়ে ৪২ লাখ মানুষ।