kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১০ আষাঢ় ১৪২৮। ২৪ জুন ২০২১। ১২ জিলকদ ১৪৪২

শপথ নিয়েই করোনাযুদ্ধে মমতা

ছয় মাসের মধ্যে উপনির্বাচনে জয়ী হতে হবে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৬ মে, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শপথ নিয়েই করোনাযুদ্ধে মমতা

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এ নিয়ে টানা তৃতীয়বারের মতো রাজ্যটিতে সরকার পরিচালনার দায়িত্ব নিলেন তিনি। গতকাল বুধবার সকাল ১১টার দিকে রাজ্যপালের দাপ্তরিক ভবন রাজভবনে শপথ নেন তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা। করোনা পরিস্থিতির কারণে খুবই অনাড়ম্বর ছিল এই শপথগ্রহণ অনুষ্ঠান।

শপথ নিয়েই কভিড মোকাবেলায় উদ্যোগী হন মমতা। এর অংশ হিসেবে বিনা মূল্যে টিকা চেয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি লিখেছেন। চিঠিতে মমতা বলেছেন, সংক্রমণ প্রতিহত করতে বিনা মূল্যে সার্বিক টিকাদানে জোর দিতে হবে। এ জন্য বাড়াতে হবে টিকার জোগান। এ ছাড়া করোনার ওষুধ ও অক্সিজেন সরবরাহ বাড়ানোর কথাও বলা হয়েছে চিঠিতে।

একই সঙ্গে নতুন বিধি-নিষেধও ঘোষণা করেন নতুন মুখ্যমন্ত্রী। এ অনুযায়ী আজ বৃহস্পতিবার থেকে রাজ্যের সব লোকাল ট্রেন বন্ধ থাকবে। মেট্রো রেল ও বাসের সংখ্যা কমিয়ে অর্ধেক করা হয়েছে। বিমানযাত্রায় কভিড রিপোর্ট নেগেটিভ হওয়া বাধ্যতামূলক। সরকারি ও বেসরকারি দপ্তরে ৫০ শতাংশ কর্মীকে বাড়িতে কাজ করাতে হবে। অবশ্য শপথ নেওয়ার পর তাঁর প্রথম কাজ যে হবে করোনা সংক্রমণ মোকাবেলায় পদক্ষেপ নেওয়া, সে কথা আগেই জানিয়েছিলেন মমতা।

এর আগে বিপণিবিতান ও দোকানপাট বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছিল রাজ্য সরকার। পরবর্তী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত আপাতত এই নির্দেশ বহাল থাকবে বলে জানানো হয়েছে।

এদিকে মমতাই এবার প্রথম মুখ্যমন্ত্রী, যিনি নির্বাচনে নিজের আসনে পরাজিত হয়েছেন। নন্দীগ্রামে তাঁর একসময়কার ডান হাত বিজেপির শুভেন্দু অধিকারীর কাছে পরাজিত হয়েছেন তিনি। অবশ্য সেই ফল নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে তৃণমূল। নির্বাচন কমিশন ভোট পুনর্গণনার আবেদন খারিজ করেছে। তবে এ নিয়ে আদালতে যাওয়ার ঘোষণাও দিয়েছে তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্ব।

সংবিধান অনুযায়ী মমতাকে আগামী ছয় মাসের মধ্যে রাজ্য বিধানসভার কোনো একটি আসনে জয়ী হয়ে আসতে হবে। ২০১১ সালে প্রথমবার সরকার গঠন করে ভবানীপুর উপনির্বাচনে জিতে সাংবিধানিক নিয়ম রক্ষা করেন মমতা। ২০১৬ সালে অবশ্য সাধারণ নির্বাচনে দাঁড়িয়ে ভবানীপুর থেকে জিতে দ্বিতীয়বার মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেন তিনি।

মমতাকে গতকাল শপথবাক্য পাঠ করান রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। স্বল্প পরিসরে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে তৃণমূলের কয়েকজন শীর্ষ নেতাসহ অন্য রাজনৈতিক দলের কয়েকজন নেতা ও বিশিষ্ট ব্যক্তিদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। তাঁদের মধ্যে ছিলেন সাবেক মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য, বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ, বিদায়ি স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়, বামফ্রন্টের চেয়ারম্যান বিমান বসু, কংগ্রেসের রাজ্য সভাপতি অধীর চৌধুরী, সাবেক ক্রিকেটার সৌরভ গাঙ্গুলি, তৃণমূলের ভোটকুশলী প্রশান্ত কিশোর প্রমুখ।

আজ বৃহস্পতিবার ও আগামীকাল শুক্রবার চার দফায় নবনির্বাচিত বিধায়কদের শপথবাক্য পাঠ করাবেন নবনিযুক্ত প্রটেম স্পিকার সুব্রত মুখোপাধ্যায়। ৯ মে রাজ্যের নতুন মন্ত্রিসভার শপথ অনুষ্ঠান হবে।

গত ২ মে ঘোষিত বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফলে দেখা যায়, গতবারের চেয়ে বেশি জনসমর্থন নিয়ে ২১৫টি আসনে জয় পেয়েছে তৃণমূল। অবশ্য ২৯৪টি আসনের মধ্যে আরো দুটির ভোট বাকি আছে। ওই দুটি আসনে আগামী ১৬ মে ভোট নেওয়ার কথা।

 



সাতদিনের সেরা