kalerkantho

শুক্রবার । ১১ আষাঢ় ১৪২৮। ২৫ জুন ২০২১। ১৩ জিলকদ ১৪৪২

রাজধানীতে মাস্ক না পরায় জরিমানা

পুলিশ ও র‌্যাবের মাস্ক বিতরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৬ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



রাজধানীতে মাস্ক না পরায় জরিমানা

লকডাউনে জনসচেতনতা বৃদ্ধি ও মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করতে গতকাল সোমবার রাজধানী ঢাকায় অভিযান চালিয়েছে জেলা প্রশাসন, র‌্যাব ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় যাদের কাছে মাস্ক ছিল না তাদের অনেককে মাস্ক পরিয়ে দেওয়া হয়েছে। অনেককে জরিমানাও করা হয়েছে।

রাজধানীর শাহবাগ মোড়ে সকাল সাড়ে ১১টা থেকে র‌্যাব-৩-এর অভিযানে নেতৃত্ব দেন র‌্যাব সদর দপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু। যারা মাস্ক ছাড়া ঘোরাফেরা করেছে, তাদের ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে জরিমানা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। এ সময় প্রায় দুই হাজার মাস্ক এবং হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ করা হয়। পলাশ কুমার বসু কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘সরকারের নির্দেশনা কার্যকর করার লক্ষ্যে যারা মাস্ক পরিধান করবে না, তাদের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালতে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। করোনা মহামারি মোকাবেলায় সবার মাস্ক পরা নিশ্চিত করা এবং জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে কাজ করা হচ্ছে। আজকে রিকশাচালক, ভ্যানচালক, মোটরসাইকেলচালক, আরোহীসহ যারাই মাস্ক পরছে না, তাদের সচেতন করে মাস্ক বিতরণ করা হয়েছে এবং অনেক ক্ষেত্রে নামমাত্র জরিমানাও করা হয়েছে।’

এদিন রাজধানীজুড়ে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)। ডিএমপির সুনির্দিষ্ট পাঁচটি এলাকাসহ বিভিন্ন এলাকায় মাস্ক বিতরণ কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। সকাল ১১টা থেকে রাজধানীর উত্তরা পূর্ব থানাধীন বিডিআর বাজার এলাকা এবং রামপুরা থানাধীন মালিবাগ কাঁচাবাজার এলাকায় জনসাধারণের মধ্যে বিনা মূল্যে মাস্ক বিতরণ করা হয়। এরপর সকাল সাড়ে ১১টা থেকে হাজারীবাগ স্টাফ কোয়ার্টার এলাকায় এ কর্মসূচি পালন করে পুলিশ।

ডিএমপি জানায়, সূত্রাপুর ও কদমতলী থানার উদ্যোগে দুপুর আড়াইটায় শ্যামবাজার এলাকা ও বিক্রমপুর প্লাজা এলাকায় জনগণকে সচেতন করাসহ তাদের মধ্যে বিনা মূল্যে মাস্ক বিতরণ করা হয়। এ সম্পর্কে ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেসন্স বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি) ইফতেখায়রুল ইসলাম জানান, লকডাউনে সরকারের সব নির্দেশনা বাস্তবায়নে মাঠ পর্যায়ে কাজ করে যাচ্ছে পুলিশ। এরই অংশ হিসেবে রাজধানীর বিভিন্ন পয়েন্টে জনসাধারণের মধ্যে মাস্ক বিতরণ কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। সামনেও কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

উল্লেখ্য, করোনা সংক্রমণের বর্তমান পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকারি সব নির্দেশনা বাস্তবায়নে মাঠ পর্যায়ে পুলিশ কর্মকর্তাদের এরই মধ্যে নির্দেশনা দিয়েছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ। গত রবিবার বিকেলে পুলিশ সদর দপ্তরে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সব মেট্রোপলিটন, রেঞ্জ এবং জেলার পুলিশ সুপারদের এসংক্রান্ত নির্দেশনা দেন। করোনা মোকাবেলায় গত ২৯ মার্চ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ১৮ দফা এবং ৪ এপ্রিল মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ১১ দফা নির্দেশনা জারি করেছে। এসব নির্দেশনা যথাযথভাবে প্রতিপালনের কথা উল্লেখ করে আইজিপি বলেন, সরকারের নি?র্দেশনাগুলো সোমবার থেকে বলবৎ করতে হবে। তবে এসব নির্দেশনা বাস্তবায়নে বলপ্রয়োগ নয়, বরং জনগণকে উদ্বুদ্ধ করার ওপর জোর দেন তিনি।

এদিকে লকডাউন নিশ্চিতকরণে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) গতকাল বিভিন্ন এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেছে। অঞ্চল-৫-এর নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাসুদ হোসেনের নেতৃত্বে কারওয়ান বাজারের প্রধান সড়ক থেকে সব অবৈধ ভাসমান দোকান অপসারণ করা হয়েছে। এ সময় সঠিকভাবে মাস্ক ব্যবহার না করার অপরাধে ১৮ জনকে এক হাজার ৮০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাজওয়ার আকরাম সাকাপি ইবনে সাজ্জাদের নেতৃত্বে রাজধানীর নিকুঞ্জ এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেছে ডিএনসিসি। এ সময় তিনটি মামলায় ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। অঞ্চল-৫-এর নির্বাহী কর্মকর্তা সাজিয়া আফরিনের নেতৃত্বে উত্তরা সেক্টর ১১, ১২, ১৩ ও ১৪-এর সোনারগাঁও জনপদ এভিনিউ, শাহ মখদুম এভিনিউ, গাউসুল আজম এভিনিউ রোডসহ বিভিন্ন রোডে লকডাউন নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে অভিযান ও মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেছে ডিএনসিসি। এ সময় মাইকিং করে জনগণকে আবশ্যিকভাবে মাস্ক পরিধানের বিষয়ে এবং অপ্রয়োজনে বাইরে বের না হওয়ার জন্য সতর্ক ও সচেতন করা হয়। অভিযান চলাকালে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন থেকে ৫০টি মাস্ক বিতরণ করা হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পার্সিয়া সুলতানার নেতৃত্বে অঞ্চল-১০-এর ৩৭ নম্বর ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়। মাছের বাজার ও কাঁচাবাজার এলাকায় অভিযানকালে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মানার জন্য সচেতন করা হয় এবং মাস্ক বিতরণ করা হয়। এ ছাড়া রাস্তায় চলাচলরত জনগণকে মাস্ক সঠিকভাবে পরার পরামর্শ দেওয়া হয় এবং সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য সতর্ক করা হয়। ডিএনসিসি সূত্র জানিয়েছে, লকডাউন বাস্তবায়নে ডিএনসিসির মোবাইল কোর্ট অব্যাহত থাকবে।