kalerkantho

শুক্রবার । ৩ বৈশাখ ১৪২৮। ১৬ এপ্রিল ২০২১। ৩ রমজান ১৪৪২

অবশেষে কার্টুনিস্ট কিশোরের জামিন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৪ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অবশেষে কার্টুনিস্ট কিশোরের জামিন

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের যে মামলায় কারাগারে বন্দি অবস্থায় লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যু হয়েছে, সেই মামলারই আরেক আসামি কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোরকে ছয় মাসের জন্য জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ গতকাল বুধবার কিশোরের জামিন মঞ্জুর করে আদেশ দেন। আদালত আদেশে বলেছেন, কিশোর যেহেতু দীর্ঘদিন ধরে কারাগারে আছেন এবং এই মামলায় গ্রেপ্তার হওয়ার পর দিদারুল ভূইয়া এবং ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সাবেক পরিচালক মিনহাজ মান্নান নিম্ন আদালত ও হাইকোর্টের এই বেঞ্চ থেকে জামিন পেয়েছেন, এই বিবেচনায় আহমেদ কবির কিশোরকে ছয় মাসের জামিন দেওয়া হলো।

আদালতে জামিন আবেদনকারীর পক্ষে আইনজীবী ছিলেন ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. সারওয়ার হোসেন বাপ্পী।

এদিকে মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর তথ্য লিখিতভাবে (হলফনামা আকারে) হাইকোর্টকে জানিয়েছেন তাঁর আইনজীবী। এ অবস্থায় মুশতাক আহমেদের জামিনের আবেদন বাতিল করেছেন আদালত। লেখক মুশতাক আহমেদ বন্দি অবস্থায় গত ২৫ ফেব্রুয়ারি গাজীপুরের কাশিমপুর হাই সিকিউরিটি কারাগারে মারা যান।

কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোর এবং লেখক মুশতাক আহমেদকে গত বছরের ৫ মে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। এর পরদিন তাঁদের বিরুদ্ধে ‘সরকারবিরোধী প্রচার ও গুজব ছড়ানোর’ অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে রমনা থানায় মামলা করা হয়। পরে রাষ্ট্রচিন্তার সংগঠক দিদারুল আলম ভূইয়া এবং ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সাবেক পরিচালক মিনহাজ মান্নানকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এ মামলায় গত ১৫ জানুয়ারি সদ্যঃপ্রয়াত মুশতাক আহমেদ, আহমেদ কবির কিশোর ও দিদারুল আলম—এই তিনজনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়। আর মিনহাজ মান্নান, জার্মানপ্রবাসী ব্লগার আসিফ মহিউদ্দিন, নেত্রনিউজের সম্পাদক ও সুইডেনপ্রবাসী তাসনিম খলিল, হাঙ্গেরিপ্রবাসী জুলকারনাইন শায়ের খান ওরফে সামি, আশিক ইমরান, স্বপন ওয়াহিদ, যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী সাংবাদিক সাহেদ আলম ও ফিলিপ শুমাখারকে অব্যাহতির সুপারিশ করা হয়। তবে সাইবার ট্রাইব্যুনাল এই অভিযোগপত্র গ্রহণ করেননি। ট্রাইব্যুনাল গত ১০ ফেব্রুয়ারি অধিকতর তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।

কিশোরের আইনজীবী ১ মার্চ শুনানিকালে হাইকোর্টকে জানান, কিশোরকে কাস্টডিতে শারীরিক নির্যাতন করা হয়েছে। এ কারণে তাঁর ডান কান প্রায় অকেজো হয়ে পড়েছে। বাঁ পায়ে ক্ষত সৃষ্টি হয়ে তা ঘায়ের পর্যায়ে চলে গেছে।

মন্তব্য