kalerkantho

শুক্রবার । ৩ বৈশাখ ১৪২৮। ১৬ এপ্রিল ২০২১। ৩ রমজান ১৪৪২

আলজাজিরার বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রে বঙ্গবন্ধু পরিষদের মানহানি মামলা

বিশেষ প্রতিনিধি, নিউ ইয়র্ক   

৩ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে




আলজাজিরার বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রে বঙ্গবন্ধু পরিষদের মানহানি মামলা

কাতারভিত্তিক টেলিভিশন চ্যানেল আলজাজিরার বিরুদ্ধে মানহানির অভিযোগ এনে ৫০০ মিলিয়ন ডলারের ক্ষতিপূরণ চেয়ে যুক্তরাষ্ট্রের মিশিগান রাজ্যের ফেডারেল কোর্টে একটি মামলা করা হয়েছে। এ মামলায় বাদী হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্র বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি ড. রাব্বী আলম।

মামলায় আলজাজিরা ইংলিশ, আলজাজিরা মিডিয়া নেটওয়ার্ক, ডেভিড বার্গম্যান, কনক সরোয়ার, ইলিয়াস হোসেনসহ কয়েকজনকে বিবাদী করা হয়েছে। এরই মধ্যে মামলাটি শুনানির জন্য গৃহীত হয়েছে বলে যুক্তরাষ্ট্র বঙ্গবন্ধু পরিষদের পক্ষ থেকে এক সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়েছে।

গত ২২ ফেব্রুয়ারি মামলাটি মিশিগানের ফেডারেল আদালতে করা হলেও এটি প্রক্রিয়ায় যেতে কিছুটা সময় লাগে। স্থানীয় সময় গত সোমবার সকালে সেটির কার্যক্রম শুরু হয় এবং ডকেটে ওঠে। এর ফলে এ নিয়ে শুনানিসহ পরবর্তী অগ্রগতি আশা করছেন পরিষদের নেতারা।

নিউ ইয়র্কের স্থানীয় সময় সোমবার সন্ধ্যায় একটি পার্টি সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন যুক্তরাষ্ট্র বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি ড. রাব্বী আলম, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মো. মাঈন উদ্দিনসহ সংগঠনের অন্য নেতারা। ড. রাব্বী আলম বলেন, ‘অনেক দিন ধরেই আলজাজিরা অপসাংবাদিকতা করে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে নেতিবাচক প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। সম্প্রতি এই গণমাধ্যমটি মিথ্যা ও তথ্য-প্রমাণ ছাড়াই নিম্নমানের একটি প্রতিবেদন সম্প্রচার করেছে, যা কি না তাদের রাজনৈতিক ভাষ্যকার ডেভিড বার্গম্যানের রাজনৈতিক পক্ষপাতের  প্রতিফলন।’

ড. রাব্বী আরো বলেন, ‘আলজাজিরা বাংলাদেশ রাষ্ট্র ও সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও মিথ্যা সংবাদ সম্প্রচার করে আসছে। আমরা কেবল তা ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যানই করছি না, আইনি উপায়ে তার মোকাবেলা করার ঘোষণা দিচ্ছি।’

এদিকে ড. রাব্বী আলম কালের কণ্ঠকে জানিয়েছেন, এই মামলার মধ্য দিয়ে তাঁরা যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থিত আলজাজিরার কার্যালয়কে জবাবদিহির আওতায় আনতে চান। এ ছাড়া ফেসবুক, ইউটিউবসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলজাজিরাকে বয়কটের পাশাপাশি বাংলাদেশের যে সম্মানহানি হয়েছে, তার ক্ষতিপূরণ আদায় করাও তাঁদের উদ্দেশ্য।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, আলজাজিরার প্রতিবেদনে তথ্যের উৎস হিসেবে যাঁদের বক্তব্য প্রচার করা হয়েছে, দীর্ঘদিন ধরে তাঁরা বাংলাদেশের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। কেবল তাই নয়, অনেক দিন ধরে আলজাজিরা বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী শক্তির হয়ে কাজ করছে। এ কারণে আলজাজিরা কর্তৃপক্ষকে বাংলাদেশের কাছে ক্ষমা চাওয়া এবং সঠিক তথ্যনির্ভর সংবাদ পরিবেশন করার আহ্বান জানানো হয়েছে।

মন্তব্য