kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৭ মাঘ ১৪২৭। ২১ জানুয়ারি ২০২১। ৭ জমাদিউস সানি ১৪৪২

লক্ষ্মীপুর জেলা আ. লীগ

প্রার্থীদের শোডাউন নিষিদ্ধ

পিংকু-তাহেরের বাদানুবাদ

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি   

৩ ডিসেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



প্রার্থীদের শোডাউন নিষিদ্ধ

লক্ষ্মীপুরে জেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভাকে কেন্দ্র করে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থীরা কয়েক দিন ধরে ব্যাপক শোডাউনের প্রস্তুতি নিয়েছিলেন। কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. মাহবুবউল আলম হানিফের নির্দেশে মেয়র প্রার্থী ও অঙ্গসংগঠনের নেতাদের সব ধরনের শোডাউন ও জমায়েত নিষিদ্ধ করা হয়েছে। বর্ধিত সভা নিয়ে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে মতবিনিময়কালে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম ফারুক পিংকু ও লক্ষ্মীপুর পৌর মেয়র আবু তাহেরের মধ্যে উত্তপ্ত বাদানুবাদের ঘটনা ঘটে।

শান্তি-শৃঙ্খলার মাধ্যমে সরকার ও আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি বজায় রাখতে দলের সিনিয়র নেতা ও মেয়র প্রার্থীদের সঙ্গে গতকাল মতবিনিময় করে জেলা পুলিশ বিভাগ। সকাল ১১টায় পুলিশ সুপার কার্যালয়ের (এসপি) মিলনায়তনে এ সভা হয়। এ সময় জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) ড. এ এইচ এম কামরুজ্জামান উপস্থিত নেতাদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে এবং বিপুল সমাবেশ না করার আহ্বান জানান। সভায় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম ফারুক পিংকু, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নূর উদ্দিন চৌধুরী নয়ন, লক্ষ্মীপুর পৌরসভার মেয়র এম এ তাহের ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ কে এম সালাহ উদ্দিন টিপুসহ আটজন বক্তব্য দেন।

তিনজন প্রত্যক্ষদর্শী কালের কণ্ঠকে জানিয়েছেন, সভা শেষে দুপুর ১টার দিকে সিনিয়র নেতারা এসপির কক্ষে যান। সেখানে লক্ষ্মীপুর  পৌরসভার ওয়ার্ড কমিটির বিষয় নিয়ে আওয়ামী লীগ নেতা পিংকু ও এম এ তাহেরের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়। একপর্যায়ে এসপি চেয়ার থেকে উঠে এসে দুজনের মধ্যে দাঁড়ান। সেখানে নয়নসহ আরো কয়েকজন উপস্থিত ছিলেন।

দুই নেতার বাদানুবাদ প্রসঙ্গে এসপি এ এইচ এম কামরুজ্জামান বলেন, ‘তাঁরা দলীয় বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন। এটা তেমন কিছু নয়।’

দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আজকের (বৃহস্পতিবার) জেলা কমিটির বর্ধিত সভায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ভিডিও কনফারেন্সে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেবেন। এতে কেন্দ্রীয় নেতা মো. মাহবুবউল আলম হানিফ, আহমেদ হোসেন, ফরিদুন্নাহার লাইলী, হারুনুর রশিদের উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে। সভায় মেয়াদোত্তীর্ণ শাখা কমিটিগুলোতে সম্মেলন করাসহ সাংগঠনিক কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে কঠোর নির্দেশনা থাকবে বলে দলীয় সূত্র জানিয়েছে। এ ছাড়া আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থীরা বর্ধিত সভা উপলক্ষে পৃথক বিপুল শোডাউন ও জমায়েতের প্রস্তুতি নিয়েছিল। জেলা শহরসহ বিভিন্ন স্থানে অন্তত ২০০ শুভেচ্ছা তোরণ নির্মাণ, বিপুলসংখ্যক রঙ্গিন ফেস্টুন ঝোলানো হয়। এ নিয়ে জেলাব্যাপী সাজসাজ রব বিরাজ করছে। এসপি কার্যালয়ে দুই নেতার বাদানুবাদের পর অনুসারীদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। বিকেল থেকেই শহরের তমিজ মার্কেট, মাদাম ও ফায়ার সার্ভিস কার্যালয় এলাকায় নেতাকর্মীরা জমায়েত হয়। এ নিয়ে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। যেকোনো সময় নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষের আশঙ্কা করছে স্থানীয় লোকজন।

জানতে চাইলে লক্ষ্মীপুর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. রিয়াজুল কবির বলেন, সরকার ও দলের ভাবমূর্তি বজায় রাখতে সিনিয়র নেতা ও মেয়র প্রার্থীদের ডেকে মতবিনিময় করা হয়েছে। শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য তাঁদের বলা হয়েছে। যেকোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশ সতর্ক রয়েছে।

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা