kalerkantho

রবিবার । ১০ মাঘ ১৪২৭। ২৪ জানুয়ারি ২০২১। ১০ জমাদিউস সানি ১৪৪২

বিশেষজ্ঞ মত

মূল্য নির্ধারণের চেয়ে সমবায়ে ভালো ফল মিলবে

অধ্যাপক ড. হুমায়ূন কবির, কৃষি অর্থনীতির শিক্ষক

৩০ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মূল্য নির্ধারণের চেয়ে সমবায়ে ভালো ফল মিলবে

সবজির বাজার স্থিতিশীল করতে কৃষক ও ভোক্তা—উভয়ের জন্যই উপকার হয়—এমন পরিবেশ তৈরি করতে সরকারের আগ্রহ দেখছি। কিন্তু সরকার যে এখানে সবজির দাম নির্ধারণ করার কথা বলছে বা ভাবছে, সেটা করাটা অসম্ভব ব্যাপার বলেই মনে হচ্ছে। কারণ অন্যসব পণ্য আর সবজির মতো কাঁচা পণ্যে দাম নির্ধারণ করে তা নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন। বরং বড় বিষয় হচ্ছে কতটা সহজে মাঠ থেকে শহর পর্যন্ত, কৃষক থেকে ভোক্তার হাত পর্যন্ত সংযোগ তৈরি করা যায়, সেটা। সংযোগ যত সহজ হবে, যত দ্রুত হবে, ততই সবার লাভ হবে। এখানে আমরা মধ্যস্বত্বভোগীর বিষয়টিকেও এড়াতে পারি না। কারণ তারাও এখানে কিন্তু একটা কার্যকর অংশীদার। তাদেরও কোনো না কোনোভাবে দরকার হয়। তবে দেখতে হবে, তাদের ভূমিকাটা কতটা কৃষক ও ভোক্তাবান্ধব।

আরেকটি বিষয়কে গুরুত্বের সঙ্গে ভাবনায় নেওয়া দরকার, সেটা হচ্ছে সমবায়ভিত্তিক বাজার ব্যবস্থাপনা। সবজির ক্ষেত্রে এটা অনেক কার্যকর বলে কোথাও কোথাও উদাহরণ আছে। তাতে কৃষকও বাঁচবে, ভোক্তাও কম টাকায় দ্রুত ভালোমানের সবজি পাবে। সমবায় সমিতির চেইনের মাধ্যমে গ্রাম থেকে শহরে এসে যাবে সবজি। এ ক্ষেত্রে শুধু কৃষক বা ব্যবসায়ীই নন, প্রতিটি এলাকায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, কৃষি বিভাগ, খাদ্য বিভাগসহ অন্যদেরও জড়িত করতে হবে। কিন্তু এ ক্ষেত্রে এক ধরনের দৌরাত্ম্য ও দুর্নীতির সুযোগ থাকতে পারে। যার জন্য মনিটরিং করতে হবে কঠোরভাবে। তবেই সময়বায়ের সুফল মিলবে। মাঠ আর বাজারের দামের ব্যবধান কমে আসবে। এক কথায় বলতে গেলে, দাম নির্ধারণের চেয়ে সমবায়ভিত্তিক ব্যবস্থাপনায় বা পদ্ধতিতে ভালো সুফল মিলবে। আমাদের দেশের প্রেক্ষিতে দ্রুত এই পদ্ধতি প্রয়োগ করতে পারলে কৃষির অনেক সমস্যারই সমাধান মিলবে।

লেখক : চেয়ারম্যান, কৃষি অর্থনীতি ও গ্রামীণ সমাজ বিভাগ, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা