kalerkantho

মঙ্গলবার । ১১ কার্তিক ১৪২৭। ২৭ অক্টোবর ২০২০। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

অবকাঠামোর উন্নয়নে অর্থনীতিতে সুবাতাস

আরিফুর রহমান   

২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৬ মিনিটে



অবকাঠামোর উন্নয়নে অর্থনীতিতে সুবাতাস

গাজীপুরের জয়দেবপুর থেকে ময়মনসিংহ শহরের দূরত্ব ৮৭ কিলোমিটার। সড়কটি যখন দুই লেনের ছিল, তখন যাতায়াতে সময় লাগত চার থেকে সাড়ে চার ঘণ্টা। প্রতিদিন যানজটে নাকাল হতো যাত্রীরা। প্রায় প্রতিদিনই দুর্ঘটনা ঘটত। সড়কটি চার লেনে উন্নীত হওয়ার পর যাতায়াতে যেমন সময় লাগছে আগের চেয়ে অর্ধেক, তেমনি বদলে গেছে ওই অঞ্চলের মানুষের আর্থ-সামাজিক অবস্থা।

আওয়ামী লীগ সরকার ২০০৯ সালে প্রথম মেয়াদে দায়িত্ব নেওয়ার পরের বছর সড়কটি চার লেনে উন্নীত করার উদ্যোগ গ্রহণ করে; এক হাজার ৮২৫ কোটি টাকা খরচে সড়কটির নির্মাণকাজ শেষ হয় ২০১৭ সালে। চার লেনের মহাসড়ক হওয়ার পর ওই এলাকায় কী ধরনের পরিবর্তন এসেছে, সেটি নিয়ে গত বছর গবেষণা করেছে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ (আইএমইডি)। সেই গবেষণায় উঠে এসেছে, সড়কটি চার লেনে উন্নীত হওয়ার আগে সেখানকার মানুষের মাসিক গড় আয় ছিল পাঁচ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকার মধ্যে। এখন সেটি বেড়ে ২৫ হাজার টাকায় উন্নীত হয়েছে। কৃষিপণ্য পরিবহনে আগে মারাত্মক ভোগান্তিতে পড়তেন কৃষকরা, সেই ভোগান্তি থেকে মুক্তি মিলেছে তাঁদের। পণ্য পরিবহনে খরচও কমেছে। মিলেছে কর্মসংস্থানের সুযোগ, চিকিৎসাসেবায় এসেছে সহজলভ্যতা। সড়ক দুর্ঘটনা কমে গেছে। রাস্তার পাশে বেড়েছে জমির দাম। দিন দিন বাড়ছে শিল্প-কারখানা, বিভিন্ন অফিসের শাখাও তৈরি হচ্ছে। মহাসড়কটি গাজীপুর, শ্রীপুর, ভালুকা, ত্রিশাল ও ময়মনসিংহ সদরের মানুষের জীবনমান পুরোপুরি বদলে দিয়েছে বলে আইএমইডির ওই গবেষণায় উঠে এসেছে।

অর্থনীতিবিদ ও বিশেষজ্ঞরা বলছেন, একটি মেগাপ্রকল্পে শুধু প্রত্যক্ষ উপকারই হয় না, পরোক্ষ অনেক ইতিবাচক প্রভাব তৈরি হয়। একটি প্রকল্পকে ঘিরে বহুমুখী অন্তর্জাল তৈরি হয়। সমাজ ও অর্থনীতিতে বড় ধরনের পরিবর্তন আসে। অর্থনীতিবিদরা বলছেন, একটি প্রকল্পের সঙ্গে অনেক বিষয় জড়িত থাকে। সড়ক কিংবা ভবন নির্মাণ সংক্রান্ত প্রকল্প হলে সেখানে প্রচুর নির্মাণ শ্রমিকের কাজের সুযোগ তৈরি হয়। সড়ক নির্মাণ করতে রড, সিমেন্ট, বালুসহ অন্যান্য উপকরণের প্রয়োজন হয়। মানুষের কর্মসংস্থান হয়। এর মাধ্যমে টাকার লেনদেন হয়। বছর শেষে ইতিবাচক প্রভাব পড়ে মোট দেশজ উৎপাদন বা জিডিপির প্রবৃদ্ধিতে।

চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি রয়েছে বর্তমান সরকারের। এরই অংশ হিসেবে চার বছর আগে ২০১৬ সালে পল্লী বিদ্যুতায়ন সম্প্রসারণের মাধ্যমে ৬১ জেলায় ২৫ লাখ গ্রাহককে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার জন্য একটি মেগাপ্রকল্পের অনুমোদন দেয় সরকার। এক হাজার ২২৮ কোটি টাকা খরচের প্রকল্পটির কাজ শেষ হয় গত বছর। বিদ্যুৎ সংযোগের আরো বেশ কয়েকটি প্রকল্প রয়েছে, যেগুলো চলমান।

বিদ্যুৎ বিভাগের দেওয়া তথ্য মতে, সারা দেশে এখন বিদ্যুৎ ব্যবহারকারীর হার ৯৫ শতাংশের ওপরে। বিদ্যুৎ সংযোগ পাওয়ার পর সারা দেশে মানুষের জীবনমানের কী ধরনের পরিবর্তন এসেছে, সেটি দেখার জন্য আরেকটি গবেষণা করেছে আইএমইডি। এতে দেখা গেছে, বিদ্যুৎ সংযোগ পাওয়ার পর ঘরে ছেলে-মেয়েরা বেশি সময় পর্যন্ত পড়াশোনা করছে। স্থানীয় ব্যবসা-বাণিজ্যের সুযোগ বেড়েছে ৬৭ শতাংশ। রাতে কাজের সুবিধা বেড়েছে ৬৫ শতাংশ। চুরি, ডাকাতিসহ অন্যান্য অপরাধ আগের চেয়ে ৬২ শতাংশ কমেছে। হাট-বাজারের উন্নতি হয়েছে ৬১ শতাংশ। নারীদের কাজের সুযোগ বেড়েছে ৫৬ শতাংশ। বিদ্যুৎ সুবিধা পাওয়ার কারণে হাঁস-মুরগির খামার ৪১ শতাংশ বেড়েছে। ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের প্রসার ঘটেছে ৪০ শতাংশ। একই সঙ্গে মৎস্য চাষ বেড়েছে ২৫ শতাংশ।

পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের (জিইডি) সদস্য (সিনিয়র সচিব) ড. শামসুল আলম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বর্তমান সরকার ক্ষমতা গ্রহণের পর সড়ক যোগাযোগ, গ্রামীণ অবকাঠামো, বিদ্যুৎসহ বিভিন্ন খাতে মেগাপ্রকল্প গ্রহণ করেছে। এসব প্রকল্প বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে সারা দেশে আর্থ-সামাজিক অবস্থার ব্যাপক উন্নতি ঘটেছে।’

দেশে বেসরকারি বিনিয়োগ না হওয়ার পেছনে অবকাঠামো দুর্বলতাকে দায়ী করে থাকেন ব্যবসায়ীরা। অবকাঠামো উন্নয়নে গত এক দশকে বেশ কয়েকটি মেগাপ্রকল্প হাতে নেয় সরকার, যার মধ্যে একটি হলো স্বপ্নের পদ্মা সেতু। সোয়া ছয় কিলোমিটার দীর্ঘ সেতুর নির্মাণকাজ এরই মধ্যে ৮১ শতাংশ শেষ হয়েছে। বিশ্বব্যাংকের এক গবেষণায় দেখা গেছে, পদ্মা সেতু চালু হলে বাংলাদেশের জিডিপির প্রবৃদ্ধি ১ শতাংশ বাড়বে। পদ্মা সেতুর মাধ্যমে বদলে যাবে পুরো দক্ষিণাঞ্চল।

নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য পদ্মা সেতুর পাশাপাশি পদ্মা সেতুতে রেল সংযোগ, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র, মেট্রো রেল, মাতারবাড়ী বিদ্যুৎ কেন্দ্র, রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র, কক্সবাজার থেকে মিয়ানমারের ঘুনধুম পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণ, পায়রা গভীর সমুদ্রবন্দর, কর্ণফুলী নদীর নিচে টানেল নির্মাণ, রাজধানীতে এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট (বিআরটি) নির্মাণের মতো মেগাপ্রকল্প বাস্তবায়ন করছে সরকার।

গত এক দশকে গ্রামীণ রাস্তাঘাট, সেতু, কালভার্ট নির্মাণের কারণে গ্রামীণ অর্থনীতিতে বড় ধরনের ইতিবাচক প্রভাব পড়েছে। বর্তমান সরকার ২০০৯ সালে প্রথম ক্ষমতা গ্রহণের পর প্রত্যেক সংসদ সদস্যকে তাঁর নিজ নিজ এলাকার উন্নয়নে ১৫ কোটি টাকা করে বরাদ্দ দিয়েছে। ২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচনের পর ফের সংসদ সদস্যদের নিজ নিজ এলাকার অবকাঠামো উন্নয়নে ১৫ কোটি টাকা করে দেওয়া হয়েছে। গত বছর আবারও প্রত্যেক সংসদ সদস্যকে ২০ কোটি টাকা করে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে তাঁদের নিজ নিজ এলাকার অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য। এক দশকেরও বেশি সময় ধরে দেশের গড় জিডিপির প্রবৃদ্ধি ৬ থেকে ৮ শতাংশের মধ্যে রয়েছে।

সড়ক অবকাঠামো ও বিদ্যুৎ সুবিধার বাইরে আওয়ামী লীগ সরকার দেশের ৪৮৪টি উপজেলায় ভূমিহীন ও অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য দুই হাজার ৯৬২টি আবাসন ভবন নির্মাণ করেছে, যার নাম দেওয়া হয়েছে ‘বীর নিবাস’।

বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) সিনিয়র রিসার্চ ফেলো ড. নাজনীন আহমেদ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘কোনো একটি প্রকল্প বাস্তবায়নের আগে ওই অঞ্চলে মানুষের জীবনযাত্রা যেমন থাকে, প্রকল্পটি বাস্তবায়নের সঙ্গে সঙ্গে জীবনযাত্রায় ব্যাপক পরিবর্তন আসে। একটি প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে শুধু অর্থনৈতিক পরিবর্তনই নয়, সামাজিক পরিবর্তনও আসে। গত এক দশকে গ্রামীণ অর্থনীতিতে বড় ধরনের পরিবর্তন এসেছে। অবকাঠামো নির্মাণ করা হলে শুধু মানুষের যাতায়াতব্যবস্থা সহজ হয় না, এর সঙ্গে পণ্য পরিবহনে খরচ কমে আসে। ফসল নষ্ট কম হবে। শিল্পের কাঁচামাল কম সময়ে আনা-নেওয়া সম্ভব হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা