kalerkantho

শনিবার । ১১ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০। ৮ সফর ১৪৪২

সিফাত জামিনে মুক্ত মামলার তদন্তে র‌্যাব

প্রদীপ-লিয়াকতদের জিজ্ঞাসাবাদ শুরু হয়নি অন্য আসামিদের ফের রিমান্ডের আবেদন

বিশেষ প্রতিনিধি, কক্সবাজার   

১১ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সিফাত জামিনে মুক্ত মামলার তদন্তে র‌্যাব

টেকনাফে পুলিশের গুলিতে নিহত মেজর সিনহা (অব.)-এর সঙ্গে থাকা স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী শাহেদুল ইসলাম সিফাত (ডানে) গতকাল জামিন পাওয়ার পর কক্সবাজার জেলা কারাগার থেকে বেরিয়ে আসেন। ছবি : কালের কণ্ঠ

কক্সবাজারের টেকনাফে পুলিশের গুলিতে মেজর (অব.) সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান নিহত হওয়ার সময় তাঁর সঙ্গে থাকা স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী শাহেদুল ইসলাম সিফাত জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। গতকাল সোমবার দুপুর ২টায় কক্সবাজার জেলা কারাগার থেকে তিনি বেরিয়ে আসেন। এরপর নাম্বার প্লেটবিহীন একটি মাইক্রোবাসে উঠিয়ে তাঁকে নিয়ে যেতে দেখা যায়।

কারা তত্ত্বাবধায়ক মোকাম্মেল হোসেন জানিয়েছেন, কারাবিধি অনুযায়ী আদালতের কাগজপত্র পেয়ে দুপুরে তাঁকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে।

কক্সবাজার জ্যেষ্ঠ বিচার বিভাগীয় হাকিম আদালতের বিচারক তামান্না ফারাহ গতকাল সকাল ১১টার দিকে সিফাতের জামিন মঞ্জুর করেন। একই সঙ্গে তিনি বিবাদীপক্ষের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সিফাতের বিরুদ্ধে পুলিশের করা মামলা দুটির তদন্তের ভার র‌্যাবের হাতে ন্যস্ত করেছেন। এর আগে রবিবার সিনহার অন্য সহযোগী স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিল্ম অ্যান্ড মিডিয়া বিভাগের শিক্ষার্থী শিপ্রা রানী দেবনাথ জামিনে কারাগার থেকে মুক্তি পান।

গত ৩১ জুলাই রাতে টেকনাফ বাহারছড়া চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান। ওই ঘটনার পর পুলিশ বাদী হয়ে টেকনাফ থানায় হত্যা ও মাদক আইনে সিফাতের বিরুদ্ধে দুটি মামলা এবং রামু থানায় মাদক আইনে শিপ্রা রানীর বিরুদ্ধে একটি মামলা করে।

এদিকে গত ৫ আগস্ট পুলিশের বিরুদ্ধে সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌসের করা মামলায় আদালতের আদেশে রিমান্ডপ্রাপ্ত সাত আসামির মধ্যে চারজনকে কারাফটকে দুই দিনের জিজ্ঞাসাবাদ শেষ করেছে র‌্যাব। এরপর র‌্যাবের পক্ষ থেকে এই চার আসামিকে আরো ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে গতকাল আদালতে আবেদন করা হয়েছে। আদালত কাল বুধবার এই রিমান্ড আবেদনের ওপর শুনানির দিন ধার্য করেছেন।

ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, ইন্সপেক্টর লিয়াকত এবং এসআই নন্দ দুলাল রক্ষিতকে গতকাল থেকে র‌্যাবের হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শুরুর কথা। আদালত তাঁদের সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এদিকে কালের কণ্ঠ’র বরগুনা ও বামনা প্রতিনিধি জানিয়েছেন, সিফাতের জামিন হওয়ায় সরকার ও বিচারপ্রক্রিয়ার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়েছে সিফাতের পরিবার ও সহপাঠীরা। গতকাল দুপুরে বামনায় সিফাতের সহপাঠী শফিকুল ইসলাম শিফাত ও আরিফ হোসেন বলেন, ‘আদালত আমাদের প্রিয় বন্ধুর জামিন দিয়েছেন। এ জন্য আমরা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।’

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা