kalerkantho

রবিবার। ১৬ কার্তিক ১৪২৭ । ১ নভেম্বর ২০২০। ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

বাস থেকে ফেলে যাত্রী হত্যার অভিযোগ

বাস জব্দ, চালক ও সহকারীরা পলাতক

ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি   

২৮ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে




বাস থেকে ফেলে যাত্রী হত্যার অভিযোগ

ময়মনসিংহের ভালুকায় ধাক্কা মেরে বাস থেকে ফেলে মনির হোসেন (২৮) নামের এক যাত্রীকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। মনির গত রবিবার তাঁর কর্মস্থল গাজীপুর থেকে ভালুকায় বাড়ির উদ্দেশে যাওয়ার জন্য তাহসিন পরিবহন নামের একটি বাসে ওঠেন। ভাড়া নিয়ে কন্ডাক্টরের সঙ্গে তাঁর তর্ক হয়। এরপর তাঁকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিলে আরেকটি বাসের সঙ্গে ধাক্কা লেগে তিনি গুরুতর আহত হন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল তিনি মারা গেছেন। স্থানীয়রা ও পুলিশ বাসটি আটক করলেও চালক ও তাঁর সহকারীরা পালিয়ে গেছেন।

পারিবারিক সূত্র জানায়, মনির হোসেন ভালুকার হবিরবাড়ী ইউনিয়নের জামিরদিয়া গ্রামের মো. আবুল বাসারের ছেলে। রবিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে জামিরদিয়া স্কয়ার মাস্টারবাড়ী এলাকায় ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে তাঁকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেওয়া হয়। মনির পাশের মাওনা এলাকায় একটি কারখানায় কাজ করতেন। ঘটনার দিন বাড়ি ফেরার জন্য তিনি মাওনা থেকে ঢাকা থেকে গৌরীপুরগামী তাহসিন পরিবহনে ওঠেন। ভাড়া নিয়ে কন্ডাক্টরের সঙ্গে তাঁর কথা-কাটাকাটি থেকে উত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। আইয়াল মোড়ে এসে তিনি বাস থেকে নামতে চাইলেও তাঁকে নামতে দেওয়া হয়নি। বাসটি স্কয়ার মাস্টারবাড়ী পৌঁছালে তাঁকে ধাক্কা দিয়ে বাস থেকে ফেলে দেওয়া হয়। এতে মহাসড়কের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা আরেকটি বাসের সঙ্গে ধাক্কা লেগে তিনি গুরুতর আহত হন। ঘটনা জেনে  স্থানীয়রা বাসটি আটক করে থানার পুলিশকে জানায়। পরে হাইওয়ে ফাঁড়ির পুলিশ বাসটি তাদের জিম্মায় নিয়ে যায়।

আহত মনিরকে উদ্ধার করে প্রথমে মাওনা এবং পরে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানকার চিকিৎসকরা তাঁকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন। ঢাকা মেডিক্যালে গতকাল দুপুরে তিনি মারা যান।

মনির হেসেনের বাবা মো. আবুল বাসার দাবি করেন, তাঁর ছেলেকে বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে মেরে ফেলা হয়েছে। ময়নাতদন্তের পর তিনি ছেলের লাশ নিয়ে বাড়ি আসছেন। ওই ঘটনায় তিনি মামলা করবেন।

বাস আটককারী ভরাডোবা হাইওয়ে ফাঁড়ির এসআই হাদিউল ইসলাম বলেন, অভিযোগ পেলে মামলা নেওয়া হবে।

 

মন্তব্য