kalerkantho

রবিবার । ২৮ আষাঢ় ১৪২৭। ১২ জুলাই ২০২০। ২০ জিলকদ ১৪৪১

বিশেষজ্ঞ মত

এখনই ‘পিক’ চলছে, টেনে নামাতে হবে

ডা. নজরুল ইসলাম

১৭ জুন, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



এখনই ‘পিক’ চলছে, টেনে নামাতে হবে

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দেশে কোন পর্যায়ে আছে না আছে তা নিয়ে মানুষের মধ্যে কৌতূহলের কমতি নেই। পরীক্ষার ক্ষেত্রেও চলছে নানা ধরনের বিশৃঙ্খলা। নমুনা দেওয়া নিয়ে যেমন হয়রানি কমছে না আবার নমুনা দেওয়ার পর রিপোর্ট পাওয়ার জন্য অপেক্ষা করতে হচ্ছে দিনের পর দিন। আক্রান্ত ও মৃত্যু বাড়তে দেখছে সবাই। তবে সুস্থও হয়ে উঠছে অনেক মানুষ। সেই তুলনায় মৃত্যুহার দেশে খুবই কম। তবে করোনার সংক্রমণ নিয়ে এখানে কোনো তরফ থেকেই এখন পর্যন্ত গ্রহণযোগ্য কোনো ‘প্রজেকশন’ হয়নি। এটা করা দরকার ছিল; করতে পারলে প্রতিরোধমূলক কার্যক্রম অনেক সহজ হয়ে যেত। তবে বিশ্বের অন্যান্য দেশের গতিবিধি ও তথ্য-উপাত্তের সঙ্গে আমাদের দেশের ধারাবাহিক পরিসংখ্যান পর্যালোচনা করে মনে হচ্ছে এখনই এখানে সংক্রমণের ‘পিক’ চলছে। বিশেষ করে তিন সপ্তাহ ধরে সংক্রমণের দৈনিক হার ২০-২১-২২ শতাংশে ঘুরছে। সংখ্যায় বাড়লেও পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার গড়ে এর থেকে বাড়ছেও না কমছে না। আবার হঠাৎ করে লাফ দিয়েও উঠছে না। তার মানে ধীরে ধীরে আরো কিছুটা ওপরে উঠলেও মূলত এখন যে অবস্থায় আছে সেখান থেকে টেনে নামানোর সঠিক কাজটুকু করতে পারলে সংক্রমণ বহু উঁচুতে ওঠার সক্ষমতা থাকবে না। বরং আরো দ্রুত দুর্বল হয়ে যাবে সংক্রমণের গতি। কমতে শুরু করবে আক্রান্ত ও মৃত্যু। যখন দেখা যাবে একটানা সাত-আট দিন কেবলই কমছে, তখনই বুঝতে হবে ‘পিক’ থেকে আমরা নেমে যাচ্ছি নিচের দিকে। এ জন্য প্রয়োজন হচ্ছে সবার সক্রিয় অংশগ্রহণে কার্যকর প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নিশ্চিত করা, যেটা সরকার থেকে শুরু করে ব্যক্তি পর্যায় পর্যন্ত কার্যকর করতে হবে।

সরকার যে লকডাউন ব্যবস্থা শুরু করেছে, এটাকে পরিপূর্ণভাবে বাস্তবায়ন করতে হবে। লকডাউনকৃত এলাকাগুলোতে আক্রান্তদের খুঁজে বের করার জন্য পরীক্ষার ব্যবস্থা করা, আক্রান্তরা কার মাধ্যমে কোথা থেকে সংক্রমিত হয়েছে কিংবা তারা অন্য কাদের সংক্রমিত করেছে তাদের খুঁজে বের করা, কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থাসহ অন্য নির্দেশনাগুলো ভালোভাবে বাস্তবায়ন করতে হবে।

লেখক : ভাইরোলজির অধ্যাপক ও সাবেক উপাচার্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা