kalerkantho

রবিবার । ২৮ আষাঢ় ১৪২৭। ১২ জুলাই ২০২০। ২০ জিলকদ ১৪৪১

উড়োজাহাজের চেয়ে বেশি ভাড়া বাসে!

পার্থ সারথি দাস   

২ জুন, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



উড়োজাহাজের চেয়ে বেশি ভাড়া বাসে!

উড়োজাহাজে ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম যেতে লাগছে সর্বনিম্ন এক হাজার ৯৯৯ টাকা। অথচ সড়কপথে ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বাসের ভাড়া পড়ছে কমপক্ষে দুই হাজার টাকা। করোনাভাইরাসের দুর্যোগ বিবেচনা করে বেসরকারি এয়ারলাইনসগুলো তাদের ভাড়া সহনীয় রাখছে। এর বিপরীত চিত্র বাসভাড়ায়।

গতকাল সোমবার থেকে রাজধানীসহ সারা দেশে বাস চলাচল শুরু হয়েছে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে বাস চালানোর শর্ত দিয়ে সরকার ৬০ শতাংশ ভাড়া বাড়িয়েছে। তবে ভাড়া বেশি হওয়ায় যাত্রীরা বাসে চড়তে চাইছে না। তারা ট্রেনে ও নৌযানে ভিড় করছে। দূরপাল্লার বিভিন্ন রুটসহ রাজধানীতে বাস ও মিনিবাসে দ্বিগুণ ভাড়া আদায়ের অভিযোগ করেছে যাত্রীরা।

মোহাম্মদ হানিফ খোকন নামের এক যাত্রী ভোগান্তির বিবরণ দিয়ে বলেন, মৌলভীবাজারে আটকে পড়া কয়েকজন যাত্রী গতকাল শহরের কুসুমবাগে হানিফ পরিবহন, শ্যামলী পরিবহন ও এনা ট্রান্সপোর্টের কার্যালয়ে গিয়ে জানতে পারেন, আগের ৩৭০ টাকার পরিবর্তে এখন নেওয়া হচ্ছে ৭৬০ থেকে ৮০০ টাকা। আগে প্রতি কিলোমিটার এক টাকা ৪২ পয়সা ধরে তার সঙ্গে টোলের হার যোগ করে ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছিল ৩৭০ টাকা। ৬০ শতাংশ ভাড়া বাড়ায় তা ২০৮ কিলোমিটারে আসে ৫৯২ টাকা। অতিরিক্ত অর্থ পরিবহন কাউন্টারে কমিশন হিসেবে আদায় করা হচ্ছে বলে ভুক্তভোগীদের জানানো হয়েছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বাংলাদেশ বাস-ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান রমেশ চন্দ্র ঘোষ গতকাল বিকেলে কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ঢাকা-মৌলভীবাজার রুটে অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়া হচ্ছে। এটা ঢাকা-বিয়ানীবাজার রুটের ভাড়া নেওয়া হচ্ছে। এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ তিনি জানান, ৩০ শতাংশ দূরপাল্লার বাস মহাসড়কে নেমেছে। প্রতি যাত্রায় প্রতি বাসে ১৫-২০ জন যাত্রী মিলছে।

ঢাকা-যশোর সড়কপথের দূরত্ব ২০০ কিলোমিটার। আগে সরকার নির্ধারিত ভাড়ার সঙ্গে টোল ও ফেরি খরচ সমন্বয় করে যাত্রীপ্রতি ভাড়া ছিল ৩৫০ টাকা। গতকাল হানিফ পরিবহন, এনা পরিবহন, ঈগল পরিবহনের বিভিন্ন কাউন্টারে আদায় করা হয় ৮০০ থেকে হাজার টাকা পর্যন্ত।

কালের কণ্ঠ’র যশোর কার্যালয় জানায়, সকাল সাড়ে ১০টায় মণিহার বাস টার্মিনালে মো. ফরহাদ নামের এক যাত্রী জানান, ঢাকা আসার জন্য সোহাগ পরিবহনের কাউন্টারে গিয়ে শোনেন চেয়ার কোচের ভাড়া ৮১০ টাকা। আগে ছিল ৪২০ টাকা। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শেখ মনিরুল ইসলাম মনির নেতৃত্বে কাউন্টারে হাজির হন ভ্রাম্যমাণ আদালত। প্রথম দিন হওয়ায় জরিমানা না করে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের বিষয়ে কাউন্টারসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সতর্ক করাসহ ভবিষ্যতে নির্ধারিত ভাড়ার বেশি নিলে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে। ঢাকা-যশোর রুটে ঈগল পরিবহনের বাসে গতকাল গাবতলী থেকে দ্বিগুণ দামে টিকিট কিনে ক্ষোভ প্রকাশ করে বহু যাত্রী। আগে ভাড়া নেওয়া হতো ৪৮০ টাকা, গতকাল নেওয়া হয় ৮০০ টাকা।

ঈগল পরিবহনের স্বত্বাধিকারী পবিত্র কাপুড়িয়া বলেন, ‘আমরা আগে যে ভাড়া নিতাম তা নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে কম ছিল। তখন ৪৮০ টাকা নেওয়া হলেও মূলত ভাড়া ছিল ৫০০ টাকার বেশি। সুতরাং অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়া হচ্ছে বলে যে অভিযোগ করা হচ্ছে তা সঠিক নয়। আমাদের এখন সীমিত সংখ্যক যাত্রী তুলতে হচ্ছে। এতে আমাদের লাভ কম হচ্ছে।’

ঢাকা-সিরাজগঞ্জ রুটে ৩ জুন পর্যন্ত ৮০ শতাংশ বেশি ভাড়া ধরে অগ্রিম টিকিট কেটেছিল যাত্রীরা। অগ্রিম টিকিটে ৫০ টাকা বেশি নেওয়া হয়েছে। তবে যাত্রীরা এই টাকা ফেরত পায়নি। সংশ্লিষ্ট বাস মালিকরা বলছেন, ভবিষ্যতে আর বেশি ভাড়া নেওয়া হবে না। রাজধানীর মিরপুর-১২ থেকে নতুন বাজার রুটে চলাচলকারী বিহঙ্গ পরিবহনে আগে ২৭ টাকা ভাড়া নেওয়া হতো। গতকাল নেওয়া হয় ৫০ টাকা। এ অভিযোগ জানিয়ে যাত্রী নজরুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘হঠাৎ এভাবে ভাড়া বাড়ায় আমরা বড় বিপদে পড়েছি।’

বিআরটিএ সূত্রে জানা গেছে, গতকাল রাজধানীর সায়েদাবাদ, সাভার, গাবতলী, কাকলী, কুড়িল, মহাখালি, মিরপুর, নিউ মার্কেট ও শ্যামলীতে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে ৯টি মামলাসহ ১৬ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেছেন। আজ মঙ্গলবার থেকে বিভিন্ন জেলা প্রশাসন অভিযান জোরদার করবে। সুশাসনের জন্য নাগরিকের (সুজন) সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার এক বিবৃতিতে লকডাউন প্রত্যাহার ও বাসভাড়া বাড়ানোর প্রতিবাদ জানিয়ে বলেছেন, বাসভাড়া বৃদ্ধির বিষয়টি কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা