kalerkantho

শনিবার । ২০ আষাঢ় ১৪২৭। ৪ জুলাই ২০২০। ১২ জিলকদ  ১৪৪১

দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ২৮ জনের

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩১ মে, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ২৮ জনের

দেশে গত শুক্রবার সকাল থেকে গতকাল শনিবার সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে ২৮ জন মারা গেছে। এক দিনে এটাই এ পর্যন্ত সর্বোচ্চ মৃত্যুর সংখ্যা। এ নিয়ে করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬১০ জনে। সর্বশেষ ওই ২৪ ঘণ্টায় ৯ হাজার ৯৮৭ জন সন্দেহভাজনের নমুনা পরীক্ষা করে এক হাজার ৭৬৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। অর্থাৎ শনাক্তের হার ১৭.৬৬ শতাংশ। এর আগের ২৪ ঘণ্টায় পরীক্ষা হয় ১১ হাজার ৩০১ জনের নমুনা। এর মধ্যে দুই হাজার ৫২৩ জনের দেহে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি ধরা পড়ে। সে হিসাবে ওই দিন শনাক্তের হার ছিল ২২.৩২ শতাংশ। সব মিলিয়ে গতকাল সকাল পর্যন্ত মোট ৪৪ হাজার ৬০৮ জনের করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। আর সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছে আরো ৩৬০ জন। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছে ৯ হাজার ৩৭৫ জন।

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত অনলাইন ব্রিফিং থেকে এসব তথ্য জানা গেছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা গতকাল ব্রিফ করেন।

ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, নতুন মারা যাওয়া ২৮ জনের মধ্যে পুরুষ ২৫ জন ও নারী তিনজন। আগের দিন শুক্রবারের ব্রিফিংয়ে ২৩ জনের মৃত্যুর তথ্য জানানো হয়।

প্রসঙ্গত, দেশে এখন ৫০টি ল্যাবে (পরীক্ষাগার) করোনা পরীক্ষা চলছে। গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনায় সংক্রমিত ব্যক্তি শনাক্তের ঘোষণা আসে। আর ১৮ মার্চ প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।

গতকালের ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, মারা যাওয়াদের মধ্যে ঢাকা বিভাগের ১৮ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের সাতজন, রংপুর বিভাগের দুজন এবং সিলেট বিভাগের একজন রয়েছে। মৃতদের বয়স বিশ্লেষণে দেখা যায় যায়, ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে দুজন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে তিনজন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ছয়জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে চারজন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ৯ জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে চারজন রয়েছে। এর মধ্যে হাসপাতালে মারা গেছে ২৬ জন এবং বাসায় মারা গেছে দুজন।

এ ছাড়া জানানো হয়, সর্বশেষ এই ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে রাখা হয়েছে ৪৬৯ জনকে। আইসোলেশনে আছে মোট পাঁচ হাজার ৫২৯ জন। ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশন থেকে ছাড়া পেয়েছে ৮০ জন। মোট ছাড়া পেয়েছে দুই হাজার ৮৯০ জন।

নাসিমা সুলতানা আরো জানান, সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় প্রাতিষ্ঠানিক ও হোম কোয়ারেন্টিন মিলে কোয়ারেন্টিন করা হয়েছে দুই হাজার ২২০ জনকে। এখন পর্যন্ত দুই লাখ ৮২ হাজার ২২৫ জনকে কোয়ারেন্টিন করা হয়েছে। কোয়ারেন্টিন থেকে ২৪ ঘণ্টায় ছাড়া পেয়েছে দুই হাজার ২১৯ জন, মোট ছাড়া পেয়েছে দুই লাখ ২১ হাজার ৯৪৯ জন। কোয়ারেন্টিনে আছে ৬০ হাজার ২৭৬ জন।

ব্রিফিংয়ে করোনার ঝুঁকি এড়াতে সামাজিক দূরত্ব রক্ষা করা ও স্বাস্থ্যবিধি মানায় জোর দিয়ে বলা হয়, করোনা প্রতিরোধে স্থাপনা ও প্রতিষ্ঠানের নিয়ন্ত্রকদের বাধ্যতামূলকভাবে নীতিমালায় উল্লিখিত নির্দেশনা মেনে চলতে হবে।

 

মন্তব্য