kalerkantho

শুক্রবার। ২৬ আষাঢ় ১৪২৭। ১০ জুলাই ২০২০। ১৮ জিলকদ ১৪৪১

পোশাক কারখানা ১১ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ রাখার আহ্বান

শ্রমিক ছাঁটাই বন্ধে ডিআইএফইর চিঠি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৫ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পোশাক কারখানা ১১ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ রাখার আহ্বান

নভেল করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে তৈরি পোশাক কারখানাগুলো আগামী ১১ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ রাখতে মালিকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বিজিএমইএ সভাপতি রুবানা হক। গতকাল শনিবার রাতে সাংবাদিকদের কাছে পাঠানো এক অডিও বার্তায় গার্মেন্ট মালিকদের প্রতি তিনি এ আহ্বান জানান।

দেশে করোনাভাইরাস মহামারি ঠেকাতে গত ২৬ মার্চ থেকে সব অফিস-আদালতে ছুটি ঘোষণা করা হলেও পোশাক কারখানার বিষয়ে কোনো স্পষ্ট সিদ্ধান্ত দেয়নি সরকার। তবে বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ বেশির ভাগ কারখানা বন্ধের সিদ্ধান্ত দিলে অনেক শ্রমিক বাড়ি ফিরে যান। এর মধ্যে শনি ও রবিবার কিছু কারখানা খোলার সিদ্ধান্ত নেন সংশ্লিষ্ট মালিকরা। এ অবস্থায় গত শুক্রবার থেকে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ঢাকার পথে রওনা হন অনেক পোশাক শ্রমিক। গণপরিবহন বন্ধ থাকায় বেশির ভাগই হেঁটে রওনা হন।

এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনার ঝড় ওঠে। ‘অবরুদ্ধ দশা’র মধ্যে পোশাক কারখানা খোলার সিদ্ধান্তে আপত্তি জানান ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকনও। রোগ ছড়িয়ে পড়ার ঝুঁকির কথা মাথায় নিয়ে এ সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করতে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশিকে অনুরোধ জানান তিনি। এরপর বিজিএমইএ সভাপতির এই ঘোষণা এলো।

শ্রমিক ছাঁটাই বন্ধে ডিআইএফইর চিঠি : এদিকে করোনা মহামারিতে পোশাক শ্রমিকদের ছাঁটাই বন্ধ করার অনুরোধ জানিয়ে বাণিজ্য ও শ্রম মন্ত্রণালয়সহ ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন বাংলাদেশ শিল্প ও বণিক সমিতি ফেডারেশনকে (এফবিসিসিআই) চিঠি দিয়েছে কলকারখানা  প্রতিষ্ঠান  ও পরিদর্শন অধিদপ্তর (ডিআইএফই)।

গত শুক্রবার  ডিআইএফইর মহাপরিদর্শক শিবনাথ রায় স্বাক্ষরিত এই চিঠিতে বলা হয়, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের সময় যেসব কারখানা মালিক শ্রমিকদের ছাঁটাই করেছেন কিংবা ছাঁটাইয়ের পরিকল্পনা করছেন সেটা বন্ধ করার অনুরোধ করেছেন।

গত মাসে বাংলাদেশে রপ্তানিমুখী তৈরি পোশাক শিল্প কারখানাসহ প্রায় ১৬ হাজার ৮০০ কারখানা বন্ধ হয়ে যায়। এতে কর্মহীন হয়ে পড়েন ৩২ লাখ শ্রমিক। এই বিপুলসংখ্যক শ্রমিককে লে অফ করে অর্থাৎ মূল বেতনের অর্ধেক পরিশোধ করে তাঁদের ছাঁটাই করে দেওয়া হবে বলে জানতে পেরেছেন অধিদপ্তরের মহাপরিদর্শক শিবনাথ রায়। বর্তমান দুর্যোগপূর্ণ পরিস্থিতি বিবেচনায় এসব ছাঁটাই বন্ধ করতে তিনি সংশ্লিষ্ট কয়েকটি মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা চেয়ে এ চিঠি দেন। ওই চিঠিতে তিনি মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণের অনুরোধ জানিয়েছেন।

ডিআইএফইর মহাপরিদর্শক বলেন, ‘বেশ কিছু কারখানা  থেকে শ্রমিকদের ছাঁটাই করা হচ্ছে বা ছাঁটাই করা হবে—এ রকম বেশ কিছু তথ্য আমাদের কাছে এসেছে। এখন শ্রমিকরা কাল যোগদানের পর যদি জানতে পারে তাঁদের ছাঁটাই করা হবে, তখন একটা বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি হবে।’

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা