kalerkantho

শুক্রবার । ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৫ জুন ২০২০। ১২ শাওয়াল ১৪৪১

করোনা নিয়ে উদ্বিগ্ন? ঝেড়ে ফেলুন

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৩০ মার্চ, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



করোনা নিয়ে উদ্বিগ্ন? ঝেড়ে ফেলুন

করোনাভাইরাসের উর্বর ক্ষেত্র হয়ে উঠেছে আমাদের এই প্রিয় গ্রহটি। মহামারি ছড়াচ্ছে, আর তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়াচ্ছে এই ভাইরাস নিয়ে আতঙ্ক-উদ্বেগ-উত্কণ্ঠা। পাল্টে দিচ্ছে মানুষের স্বাভাবিক স্বভাব, আদবকেতা আর চরিত্র। এখনকার যুদ্ধ করোনাকে রুখে দেওয়ার। তবে ভয়কে জয় করার যুদ্ধও এটি। কিন্তু কী করে আমরা লড়ব এই ভয় আর উদ্বেগের বিরুদ্ধে—তারই একটি সংক্ষিপ্ত গাইডলাইন তৈরির চেষ্টা থাকবে এই প্রতিবেদনে।

১. এড়িয়ে চলুন স্বাস্থ্যবার্তা

করোনাভাইরাস কী, কী করে আক্রমণ করে, এর থেকে বাঁচতে আমাদের কী কী করতে হবে, একই সঙ্গে ঠিক এই মুহূর্তের ঘরে থাকার সময়টিতে আমাদর কী করতে হবে—সেসব বিষয়ে সুস্পষ্ট ধারণা আমাদের সবার তৈরি হয়ে গেছে। নিয়ম মানলে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে আর বোকার মতো সাহসী হওয়ার চেষ্টা না করলে করোনাকে রুখে দেওয়া কঠিন হবে না। কাজেই আপনার মধ্যে যদি উদ্বেগ-উত্কণ্ঠা খুব বেড়ে গিয়ে থাকে, তাহলে প্রতি মুহূর্তের সর্বশেষ স্বাস্থ্য তথ্য জানার চেষ্টা না করাই ভালো। সর্বমোট মৃত্যুসংখ্যা, আক্রান্তের সংখ্যা, আক্রান্ত দেশ আর এসব বিস্তারিত বিশ্লেষণ আপনার মানসিক পরিস্থিতিকে আরো দুর্বল করে দিতে পারে। তবে আস্থাভাজন স্বজন-সুজনকে বলে রাখুন, নিয়ম বা স্বাস্থ্যবিধিতে কোনো পরিবর্তন এলে যেন আপনাকে জানায়।

২. অন্যের কাছে নিশ্চয়তা চাইতে যাবেন না

নিজের ছোট ছোট সংকট নিয়ে অন্যের কাছ থেকে নিশ্চয়তা চাইতে যাবেন না। আজ আমরা যে অবস্থার মধ্যে দাঁড়িয়ে আছি তাতে যেটুকু আপনি জানেন, সেটুকুই জানে আপনার পাশের ব্যক্তি বা স্বজন। ভাইরাসটি নতুন, এর অভিজ্ঞতা আগে কারো ছিল না। এর বিষয়ে ১০০ ভাগ নিশ্চয়তা আপনাকে কেউ দেবে না। আর যেকোনো বিষয় নিয়েই দিনের মধ্যে ১৪ বার যারা অন্যের কাছ থেকে আশ্বাস চায়, নিশ্চয়তা চায়, তাহলে একটি কথা বলে দেওয়াই যায়, এই আশ্বাস আপনার মধ্যে বেশিক্ষণ কাজ করে না। আপনার মস্তিস্ক ঠিকই এই আশ্বাসের মধ্যে কোনো খুঁত খুঁজে নিয়ে নতুন করে উদ্বিগ্ন হয়ে উঠবে।

৩. গুগল করবেন না

এটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ডাক্তার গুগল সব কিছু জানে না। বহু ত্রুটি-বিচ্যুতি নিয়েই তিনি ইন্টারনেট জগতে আধিপত্য বিস্তার করছেন। কাজেই নিজের যেকোনো শারীরিক অস্বস্তি নিয়ে প্রথমেই গুগল বাবাজির কাছে যাওয়া যাবে না। তথ্য গুগল আপনাকে দিতেই পারে। তবে তার যথার্থতার দায়ভার সে নেবে না।

৪. ব্যায়াম করুন

এটা খুব কাজের জিনিস। ব্যায়াম মানুষকে শুধু শারীরিকভাবেই সুস্থ রাখে না, মানসিকভাবেও চাঙ্গা করে। উদ্বেগ দূর করে। আর এই করোনার যুগে আপনার রোগপ্রতিরোধ শক্তি দারুণভাবে বাড়িয়ে দিতে পারে নিয়মিত ব্যায়ামের অভ্যাস। ঘুম ভালো করে।

৫. উদ্বেগের জন্য সময় বরাদ্দ করুন

দূরে ঠেলে দিতে চাইলেও এই জিনিস মানুষের পিছু ছাড়ে না। কাজেই একেবারে একে ছেড়ে না দিয়ে এর জন্য সময় বরাদ্দ করুন। দিনের একটা নির্দিষ্ট সময় ৩০-৪৫ মিনিট তাকে দিন।

৬. নিজের জন্য কিছু করুন

নিজের জন্য খুব ভালো কিছু সময়ও বরাদ্দ করুন। এমন কিছু করুন যা আপনি পছন্দ করেন। এর জন্য টাকা খরচ করতে হবে না। কাজটা হতে পারে রান্না করা বা গাছের পরিচর্যা বা গান শোনা, সিনেমা দেখা—যেকোনো কিছু হতে পারে।

৮. উদ্বেগ চিরস্থায়ী নয়

আমরা যখন কিছু নিয়ে দুশ্চিন্তা করি, মনে হয় সারা জীবনে আর এ পরিস্থিতি আমাদের পিছু ছাড়বে না। বিষয়টি কিন্তু তেমন নয়। কোনো দুশ্চিন্তা বা উদ্বেগই চিরস্থায়ী নয়। সব কিছুর মেয়াদ আছে। এখনকার স্বাস্থ্য সংকটও একসময় কাটবে—এই আস্থা, বিশ্বাস মনে ধরে রাখতে হবে। নিজের প্রতি রূঢ় হবেন না। সবচেয়ে বড় কথা, মানবতাবোধ বিসর্জন দেবেন না। সুস্থ, সুন্দরভাবে বাঁচার অধিকার সবার আছে। সূত্র : গার্ডিয়ান।

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা