kalerkantho

শনিবার । ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৬ জুন ২০২০। ১৩ শাওয়াল ১৪৪১

করোনা শনাক্তে কিট তৈরির কাঁচামাল আনার অনুমতি পেল গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ মার্চ, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



করোনা শনাক্তে কিট তৈরির কাঁচামাল আনার অনুমতি পেল গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র

সহজে ও সুলভমূল্যে করোনাভাইরাস শনাক্তে কভিড-১৯ রোগ পরীক্ষার পদ্ধতি উদ্ভাবন করেছে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র। গতকাল বৃহস্পতিবার গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রকে এ কিট তৈরির কাঁচামাল বা রিএজেন্ট আমদানির অনুমোদন দিয়েছে ওষুধ প্রশাসন। ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. মাহবুবুর রহমানের সই করা চিঠিতে এই অনুমতি দেওয়া হয়। অনুমতি দেওয়া হয়েছে কিছু শর্তসাপেক্ষে।

শর্তগুলোর মধ্যে আছে কাঁচামাল বা উপকরণগুলো ব্যবহারের ফলে পরিবেশের যেন কোনো ক্ষতি না হয়—এ মর্মে সনদ দিতে হবে, যে গবেষণাগার বা ল্যাবরেটরিতে গবেষণা হবে সেখানে রেগুলেটরি কর্তৃপক্ষকে পরিদর্শনের অনুমতি দিতে হবে; রিএজেন্টগুলো শুধু প্রডাক্ট ডেভেলপমেন্ট কাজে ব্যবহার করা যাবে। এ ছাড়া পদ্ধতিটির কার্যকারিতা প্রমাণের পর ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন সাপেক্ষে দেশের ল্যাবরেটরি ও ক্লিনিকগুলোয় সরবরাহ করা যাবে।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী গণমাধ্যমকে বলেন, ‘করোনাভাইরাস সংক্রমণের ফলে কভিড-১৯ নামে যে রোগে মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে সেটি শনাক্ত করার জন্য আমরা একটি পদ্ধতি উদ্ভাবন করেছি। ডা. বিজন কুমার শীলের নেতৃত্বে চারজন ডাক্তার মিলে এই পদ্ধতিটি উদ্ভাবন করেছেন।’ আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে এই কিট বাজারজাত করা হতে পারে বলে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র সূত্রে জানা গেছে।

জানা গেছে, সরকারের ওষুধ প্রশাসন কর্তৃপক্ষ করোনাভাইরাস শনাক্তের কিট উৎপাদনের অনুমতি দিয়েছে। এই কিট তৈরির কাঁচামাল আসবে ইংল্যান্ড থেকে। সপ্তাহের মধ্যে তা এলে উৎপাদনে যাওয়া সম্ভব হবে। দুই সপ্তাহের মধ্যে এটা বাজারে আসতে পারে। প্রথম দিকে এক লাখ কিট উৎপাদনে ১০ লাখ টাকার কাঁচামাল লাগবে। একটি কিটের দাম ২০০ টাকা হতে পারে। সরকারের কাছে কিট বিক্রি করা হবে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা