kalerkantho

বুধবার । ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২ ডিসেম্বর ২০২০। ১৬ রবিউস সানি ১৪৪২

জমকালো ভারত সফরে ট্রাম্পের

ইসলামপন্থী সন্ত্রাস দমনে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ভারত-যুক্তরাষ্ট্র

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



ইসলামপন্থী সন্ত্রাস দমনে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ভারত-যুক্তরাষ্ট্র

স্মরণকালের সবচেয়ে বড় অভ্যর্থনা দিয়ে ভারত গতকাল বরণ করে নিয়েছে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে। বিপুল জনসমাগম আর জমকালো আয়োজনে অভিভূত ট্রাম্প তাঁর বিস্ময় লুকানোর চেষ্টা করেননি। আর প্রাচ্যের আন্তরিকতার প্রকাশ দেখাতে বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী দেশের প্রেসিডেন্টকে অন্তত ছয়বার জড়িয়ে ধরেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তাঁর সম্মানে লক্ষাধিক লোকের উপস্থিতিতে ‘নমস্কার ট্রাম্প’ নামে যে বিপুল আয়োজন করা হয়, তাতে ‘সব সময়ই ভারতের বিশ্বস্ত বন্ধু হয়ে থাকবে যুক্তরাষ্ট্র’ বলে মন্তব্য করে ট্রাম্প বলেন, ‘কট্টোর ইসলামপন্থী সন্ত্রাস দমনে ভারত ও যুক্তরাষ্ট্র প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’

ট্রাম্পের ৩৬ ঘণ্টার ভারত সফর শুরু হয় গতকাল স্থানীয় সময় সকাল ১১টা ৪০ মিনিটে। গুজরাটের বৃহত্তম শহর আহমেদাবাদের সর্দার বল্লভভাই প্যাটেল বিমানবন্দর স্পর্শ করে মার্কিন প্রেসিডেন্টবাহী বিমান এয়ারফোর্স ওয়ান। কালো স্যুট আর হলুদ টাই পরে স্ত্রী মেলানিয়া ট্রাম্পের হাত ধরে বিমান থেকে নেমে আসেন ট্রাম্প। এ সময় মেলানিয়ার পরনে ছিল সাদা জাম্প স্যুট। আর কোমরে ছিল ভারতীয় ঐহিত্যবাহী বেনারসি স্কার্ফ। সবুজ স্কার্ফে সোনার সুতার কাজ করা বেল্টের মতো করে পরা এ কাপড়ের টুকরাটি নজরে পড়ে অনেকেরই। ভারতের প্রধানমন্ত্রী এ সময় জড়িয়ে ধরে ট্রাম্পকে স্বাগত জানান। বিমানবন্দরে নাচে-গানে ও শঙ্খ বাজিয়ে ভারতীয় রীতিতে সম্মানিত অতিথিদের বরণ করে নেওয়া হয়।

এরপর ট্রাম্প দম্পতি রওনা হন মার্কিন প্রেসিডেন্টের বিশেষ গাড়ি ‘বিস্ট’-এ করে মোতেরা স্টেডিয়ামের উদ্দেশে। বিশ্বের সর্ববৃহৎ এ স্টেডিয়াম গতকাল উদ্বোধন করেন ট্রাম্প। তবে পথিমধ্যে তাঁরা থামেন সবরমতি আশ্রমে। গুজরাটে জন্ম নেওয়া ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রাণপুরুষ মহাত্মা গান্ধী এ আশ্রমে ১৩ বছর কাটান। গান্ধীজীবন আর দর্শন বুঝতেই এ আশ্রমে যান ট্রাম্প। এ সময় ট্রাম্প দম্পতি চরকা কাটারও চেষ্টা করেন। সেখানে মোদি তাঁদের তিন বিজ্ঞ বানরের গল্প শোনান। এদের রেপ্লিকাও উপহার দেওয়া হয় তাঁদের, ‘খারাপ কথা বলব না, খারাপ কথা শুনব না, খারাপ কিছু দেখব না’। এরপর আশ্রমের পরিদর্শক বইয়ে ট্রাম্প লেখেন, ‘আমরা মহান বন্ধু প্রধানমন্ত্রী মোদির প্রতি, এই অপূর্ব সফরের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।’

এরপর মোদিসহ যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট দম্পতি মোতেরার উদ্দেশে যাত্রা করেন। পথে হাজারো মানুষ তাঁদের দুই দেশের পতাকা নেড়ে, স্লোগান দিয়ে স্বাগত জানায়। রাস্তার মোড়ে মোড়ে ছিল মোদি এবং ট্রাম্পের ছবিসহ বিশেষ তোরণ। স্টেডিয়ামে পৌঁছানোর পর অভূতপূর্ব দৃশ্যের সূচনা হয়। ট্রাম্পকে স্বাগত জানাতে সেখানে উপস্থিত ছিল লক্ষাধিক মানুষ। মঞ্চে ওঠেন মোদি, ট্রাম্প ও মার্কিন ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্প। ট্রাম্প স্টেডিয়ামে প্রবেশের সময় স্পিকারে সংগীতশিল্পী এল্টন জনের গান বাজছিল। জনের গান ট্রাম্পের বিশেষ পছন্দ, সেটা ভারতীয় কর্তৃপক্ষেরও জানা ছিল।

এরপর ভাষার অলংকারে শব্দ গেঁথে ট্রাম্পকে দর্শকদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন মোদি।

মঞ্চে উঠে ট্রাম্প বলেন, ‘নমস্কার, যুক্তরাষ্ট্র ভারতকে ভালোবাসে। সব সময়ই ভারতের বিশ্বস্ত বন্ধু থাকবে যুক্তরাষ্ট্র। তিনি আরো বলেন,  ‘আমি আমার বিশেষ বন্ধু প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে ধন্যবাদ জানাই। এই শহরে একজন চা বিক্রেতার সন্তান হওয়ার পরও স্মরণীয় উত্থান হয়েছে তাঁর...তিনি একজন মহৎ ব্যক্তি। সবাই তাঁকে ভালোবাসে, তিনি একজন দারুণ বক্তা।’ ভারতের লক্ষাধিক ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা  এবং দেশের বৃদ্ধির জন্য অন্যান্য উদ্যোগের প্রশংসা করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি বলেন, ‘গত সাত বছরে ভারতের উত্থান স্মরণীয়। গত দুই দশকে যে গতিতে ভারতের বৃদ্ধি হয়েছে, তা বিস্ময়কর। ভারতের মানুষ সারা বিশ্বের মানুষের অনুপ্রেরণা।’ তিনি বলেন, ‘প্রতিটি দেশেরই তাদের সীমান্ত সুরক্ষিত এবং নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষমতা রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র ও ভারত সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে কাজ করছে। সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে পাকিস্তানে লড়াই করছে আমার প্রশাসন। অঞ্চলের শান্তি ত্বরান্বিত করতে ভারতের অগ্রণী ভূমিকা রয়েছে।’ ভাষণে ভারতকে সামরিক হেলিকপ্টার, সর্বাধুনিক অস্ত্রশস্ত্র, আধুনিক বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন ট্রাম্প। দুই দেশের মধ্যে তিনি বিলিয়ন ডলারের প্রতিরক্ষা চুক্তি হবে বলে জানান।

ট্রাম্পের ভাষণের পুরোটাই অবশ্য এত কঠিন কথায় ভরা ছিল না। একপর্যায়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলিউডি সিনেমার ভূয়সী প্রশাংসা করেন। তাঁর বক্তব্যে উঠে আসে শোলে ও দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে জায়েঙ্গে চলচ্চিত্রের কথা। এ ছবির নায়ক শাহরুখ খানেরও প্রশংসা করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। এ সময় ভারতের ক্রিকেট তারকা শচীন টেন্ডুলকার ও বিরাট কোহলির নামও উচ্চারণ করেন ট্রাম্প।

প্রধানমন্ত্রী মোদি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র-ভারত সম্পর্ক আর অন্য কিছুতে নেই, সম্পূর্ণ বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্প, ইভানকা ট্রাম্প এবং জারেড কুশনারকে অভ্যর্থনা জানাতে পেরে আমরা আনন্দিত। তাঁদের এ ভারত সফরেই আমাদের গুরুত্ব এবং ঘনিষ্ঠতা প্রমাণিত।’

গত বছর টেক্সাসে ‘হাউডি মোদি’ অনুষ্ঠানে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী মোদি, তার পর এবার ভারত সফরে মার্কিন প্রেসিডেন্ট। দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্য চুক্তি নিয়ে টানাপড়েনের আবহেই এবার ভারত সফর করছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

এরপর সপরিবারে আগ্রায় উড়াল দেন ট্রাম্প। আগরায় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প, ফার্স্ট লেডি ও ইভানকাকে স্বাগত জানান উত্তর প্রদেশের গভর্নর আনন্দীবেন পটেল এবং মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। বিকেল ৫টা নাগাদ সপরিবারে তাজমহল পৌঁছান ট্রাম্প। সেখানে প্রায় এক ঘণ্টা স্ত্রীর হাত ধরে ঘুরে বেড়াতে দেখা যায় মার্কিন প্রেসিডেন্টকে। তাজমহল থেকেই সূর্যাস্ত দেখেন তাঁরা। স্বামী জারেড কুশনারকে নিয়ে ইভানকা ট্রাম্পও তাজমহলে আসেন। তাজমহল দেখে মুগ্ধ ট্রাম্প পরিদর্শন বইয়ে লেখেন, ‘সৌন্দর্যের কালজয়ী নিদর্শন’।

এরপর দিল্লিতে যান ট্রাম্প। আজ সারা দিন দিল্লিতেই প্রধানমন্ত্রী মোদির সঙ্গে কয়েক দফা বসবেন তিনি। এসব বৈঠক থেকে কয়েকটি চুক্তিও বের হয়ে আসতে পারে। আর ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া যাবেন কয়েকটি স্কুল পরিদর্শন করতে। সূত্র : বিবিসি, এএফপি, সিএনএন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা