kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ১৯ চৈত্র ১৪২৬। ২ এপ্রিল ২০২০। ৭ শাবান ১৪৪১

খালেদা জিয়ার জামিন প্রসঙ্গ

চিকিৎসার জন্য বিদেশ যেতে জামিন আবেদন খালেদার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চিকিৎসার জন্য বিদেশ যেতে জামিন আবেদন খালেদার

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাবেক প্রধানমন্ত্রী বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিন চেয়ে আবারও হাইকোর্টে আবেদন করা হয়েছে। আবেদনে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে তথা যুক্তরাজ্যের মতো দেশে যাওয়ার অভিপ্রায় ব্যক্ত করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার হাইকোর্ট বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ আবেদন দাখিল করা হয়েছে বলে জানান খালেদা জিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট সগির হোসেন লিওন। আবেদনে খালেদা জিয়ার পক্ষে আইনজীবী হিসেবে অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন, ব্যারিস্টার কায়সার কামাল, অ্যাডভোকেট সগির হোসেন লিওনের নাম রয়েছে বলে জানা গেছে।

বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চে এ আবেদনের ওপর শুনানি হবে বলে জানান আইনজীবী। এই আদালতে ওই মামলায় খালেদা জিয়ার আপিল বিচারাধীন। এর আগে গত বছর ৩১ জুলাই এ মামলায় এই একই হাইকোর্ট বেঞ্চ খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন খারিজ করেছিলেন।

গতকাল বিকেলে সংশ্লিষ্ট শাখায় জামিনের আবেদন দাখিল করার পর তা গতকালই রাষ্ট্রপক্ষ ও দুদকের কাছে সরবরাহ করা হয়েছে। জামিনের আবেদনের কপি পাওয়ার কথা স্বীকার করে দুদকের আইনজীবী অ্যাডভোকেট খুরশীদ আলম খান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘জামিনের আবেদনের কপি হাতে পেয়েছি। সেখানে তেমন নতুন কিছু নেই। শুধু নতুন বিষয় হলো, আবেদনে বলা হয়েছে গত ১২ ডিসেম্বরের পর থেকে দিন দিন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার অবনতি হচ্ছে। তাই তাঁর উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে তথা ইউকেতে নিতে চান।’ তিনি বলেন, আদালতে জামিনের আবেদন আইনগতভাবে মোকাবেলা করা হবে। আইনগতভাবে কাউকে কোনো ছাড় দেওয়া হবে না।

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ২০১৮ সালের ২৯ অক্টোবর খালেদা জিয়াকে সাত বছর কারাদণ্ড দিয়ে রায় ঘোষণা করেন ঢাকার বিশেষ জজ আদালত। এরপর এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন খালেদা জিয়া। একই সঙ্গে জামিনের আবেদন করা হয়। হাইকোর্ট গত বছর ৩০ এপ্রিল এই আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করেন ও জামিনের আবেদন নথিভুক্ত করা হয়। একই সঙ্গে দুই মাসের মধ্যে মামলাটির নথি হাইকোর্টে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এ নির্দেশে নিম্ন আদালত থেকে গত বছর ২০ জুন মামলার নথি হাইকোর্টে পাঠানো হয়। এরপর হাইকোর্টে খালেদা জিয়ার জামিনের আবেদনের ওপর শুনানি হয়। শুনানি শেষে গত বছর ৩১ জুলাই খালেদা জিয়ার জামিনের আবেদন সরাসরি খারিজ করে দেন হাইকোর্ট। এই খারিজের রায়ের বিরুদ্ধে গত বছর ১৪ নভেম্বর আপিল করেন খালেদা জিয়া। এই আবেদন গত বছর ১২ ডিসেম্বর খারিজ করে দেন আপিল বিভাগ। এই খারিজের রায় প্রকাশিত হয় গত ১৯ জানুয়ারি। এ অবস্থায় নতুন করে হাইকোর্টে জামিনের আবেদন করার উদ্যোগ নেন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা