kalerkantho

সোমবার  । ১৯ শ্রাবণ ১৪২৭। ৩ আগস্ট  ২০২০। ১২ জিলহজ ১৪৪১

ডেমরায় প্রচারে তাপস

সেবার দরজা ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকবে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৮ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সেবার দরজা ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকবে

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী শেখ ফজলে নূর তাপস ভোটারদের উদ্দেশে বলেছেন, ‘নির্বাচিত হলে আমরা দৈনন্দিন ভিত্তিতে ২৪ ঘণ্টা সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে নাগরিক সেবা নিশ্চিত করব। সেবা এমন হবে না যে ১৫ দিন দিলাম আর পরে খবর নাই। নগর ভবনের সেবার দরজা ২৪ ঘণ্টা নাগরিকদের জন্য খোলা থাকবে।’ তিনি গতকাল ডেমরার সারুলিয়ায় প্রচারকালে এসব কথা বলেন।

ফজলে নূর তাপস বলেন, ‘নগরবাসীর সমস্যাগুলো সমাধানে আমরা সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেব। পানি নিষ্কাশনব্যবস্থা ও রাস্তা প্রশস্ত করা হবে। ফুটপাতের হকারদের পুনর্বাসনের মাধ্যমে রাস্তাগুলো দখলমুক্ত করা হবে। এরপর রাস্তাগুলো প্রতিদিন রক্ষণাবেক্ষণে গুরুত্ব দেওয়া হবে।’ দুর্নীতির বিরুদ্ধে নিজের অবস্থান জানিয়ে শেখ তাপস বলেন, ‘আমি নির্বাচিত হলে সিটি করপোরেশনকে দুর্নীতির ঘুণপোকামুক্ত করব। করপোরেশনের কাজে অনিয়ম-দুর্নীতি দূর করে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি আনা হবে।’

তাপস আবারও বলেন, নির্বাচিত হলে অচল ঢাকাকে সচল করা হবে। ঐতিহ্যের ঢাকা, আধুনিক ঢাকা, উন্নত, সচল ঢাকা গড়তে আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব। যেসব নতুন ওয়ার্ড ঢাকার সঙ্গে যুক্ত হ?য়ে?ছে সেসব ওয়ার্ডে নগ?রের সব আধু?নিক সু?বিধা দেওয়া হ?বে। দায়িত্ব গ্রহণের ৯০ দিনের মধ্যে নাগরিক সেবা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেব।’

সারুলিয়ায় গণসংযোগ শুরুর আগে বিএনপির সমালোচনা করে ফজলে নূর তাপস বলেছেন, ‘সংঘর্ষ বাধিয়ে সাধারণ মানুষের কাছে নির্বাচ?নের পরিবেশকে অস্থিতিশীল হিসেবে উপস্থাপন করতে তারা পাঁয়তারা করছে।’

গোপীবাগে রবিবারের সংঘর্ষের ঘটনা উল্লেখ করে বিএনপির প্রার্থী ইশরাক হোসেনের সমালোচনা করে তাপস বলেন, ‘সন্ত্রাসী কার্যকলাপের মাধ্যমে তাঁরা অপরাজনীতির চর্চা করছেন। নির্বাচন বানচাল করার চেষ্টায় রয়েছেন তাঁরা। নিজেরাই নিজেদের ওপর হামলা করে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর ওপর দোষ চাপিয়ে দিচ্ছেন, নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার চেষ্টা করা হচ্ছে।’

তাপস বলেন, ‘পয়লা ফেব্রুয়ারি জনগণ ভোটের মাধ্যমে বিএনপির প্রার্থীদের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের জবাব দেবে। নৌকার গণজোয়ার দেখে সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ধানের শীষের ভরাডুবির আশঙ্কায় দিশাহারা হয়ে পড়েছেন বিএনপি মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেন। আমাদের দেওয়া ঢাকার উন্নয়নের রূপরেখা জনগণ সাদরে গ্রহণ করেছে। তারই ফলে এমন গণজোয়ার। আমরা যেখানে যাচ্ছি ভোটারদের স্বতঃস্ফূর্ত সাড়া পাচ্ছি।’

ভোটগ্রহণে ইলেকট্রিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহারে কারচুপির শঙ্কা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে শেখ তাপস বলেন, ‘ইভিএম ভোট দেওয়ার আধুনিক পদ্ধতি। ইভিএম নিয়ে ঢাকাবাসীর কোনো শঙ্কা নেই। তারা এটি সাদরে গ্রহণ করেছে।’

তাপসের নির্বাচনী প্রচার উপলক্ষে গতকাল সকাল থেকেই সারুলিয়ায় আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠনের স্থানীয় নেতাকর্মীরা জড়ো হতে থাকে। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, যুবলীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সমবায় ব্যাংকের চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহমেদ মহিসহ কয়েকজন নেতা সেখানে উপস্থিত হন। তাপসকে ফুল ছিটিয়ে বরণ করে নেন সারুলিয়ার নেতাকর্মীরা। সে সময় নৌকার পক্ষে স্লোগানে চারদিক মুখরিত হয়ে ওঠে। প্রচার শুরুর আগে তাপস সেখানে উপস্থিত গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে কথা বলেন। পরে তিনি হেঁটে ভোটারদের হাতে হাতে লিফলেট বিলি করেন ও ভোট প্রার্থনা করেন। তাপস এ সময় আওয়ামী লীগ সমর্থিত স্থানীয় কাউন্সিলর প্রার্থীর পক্ষেও ভোট চান।

 

মন্তব্য