kalerkantho

বুধবার । ৬ ফাল্গুন ১৪২৬ । ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪১

দক্ষ শিক্ষক পেতে প্রয়োজনে বিদেশে প্রশিক্ষণ : প্রধানমন্ত্রী

৩২৯ উপজেলায় হবে কারিগরি স্কুল-কলেজ

► শিল্প-কারখানার পাশে জলাধার রাখতে হবে
► একনেকে ২২,৯৪৬ কোটি টাকার আট প্রকল্প অনুমোদন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২২ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



৩২৯ উপজেলায় হবে কারিগরি স্কুল-কলেজ

কারিগরি খাতে দক্ষ মানবসম্পদ তৈরির লক্ষ্যে ৩২৯ উপজেলায় কারিগরি স্কুল ও কলেজ (টিএসসি) নির্মাণের অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে দক্ষ শিক্ষক নিয়োগ দিতে প্রয়োজনে তাঁদের বিদেশে প্রশিক্ষণের জন্য পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলানগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত একনেক সভায় কারিগরি শিক্ষায় এ যাবৎকালের সবচেয়ে বড় প্রকল্পটি অনুমোদন দেওয়া হয়। এ প্রকল্পে খরচ হবে ২০ হাজার ৫২৬ কোটি টাকা। ২০২৪ সাল নাগাদ সব কারিগরি স্কুল ও কলেজ নির্মাণের কাজ শেষ হবে।

সভা শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান সাংবাদিকদের বলেন, একনেক সভায় ২২ হাজার ৯৪৬ কোটি টাকা ব্যয়ে মোট আটটি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। পুরো টাকাই রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে জোগান দেওয়া হবে।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ এখন জনসংখ্যার বোনাসকাল ভোগ করছে। এখন কর্মক্ষম মানুষের সংখ্যাই বেশি। বিশাল এই জনগোষ্ঠীকে কারিগরি শিক্ষা দিয়ে দক্ষ জনবল তৈরি করতেই আমরা ৩২৯টি উপজেলায় কারিগরি স্কুল ও কলেজ নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এর মাধ্যমে দেশের চাকরির বাজারের চাহিদা পূরণ হবে। একই সঙ্গে দক্ষ জনশক্তি তৈরি করে বিদেশেও চাকরির বাজারের সুযোগ তৈরি হবে।’

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘কারিগরি শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের ওপর জোর দেওয়া হবে। আমাদের কারিগরিসংক্রান্ত শিক্ষকের অভাব আছে। প্রয়োজন হলে প্রশিক্ষণের জন্য শিক্ষকদের বিদেশ পাঠানো হবে। এ ছাড়া কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভবন তৈরির পাশাপাশি লোকবল, যন্ত্রপাতি, চেয়ার ও টেবিল সব কিছুই প্রস্তুত রাখার কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী।’

এম এ মান্নান বলেন, ‘প্রতিটি শিল্প-কারখানার পাশে জলাধার রাখতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। অনেক সময় কারখানায় আগুন লাগলে পানি পাওয়া যায় না। দূর থেকে পানি নিতে হয়। জলাধার থাকলে ভালো হয়। আবার অনেক সময় দেখা যায়, অবকাঠামো নির্মাণে মাটি কাটতেই হয়। সুতরাং সহজেই আমরা একটা জলাধার নির্মাণ করতে পারি। একই সঙ্গে শিল্প-কারখানায় বর্জ্য ব্যবস্থাপনা শক্তিশালী করতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। প্রতিটি শিল্পপ্রতিষ্ঠানে কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগার রাখারও নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।’

পরিকল্পনামন্ত্রী আরো বলেন, আবদ্ধ ঘর নির্মাণ না করে খোলামেলা ঘর নির্মাণ করতে হবে। ঘরের বারান্দা থাকতে হবে, যাতে করে ঘরের ভেতরে আলো-বাতাস ঢুকতে পারে। 

গতকাল একনেক সভায় অনুমোদিত প্রকল্পগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো—৯১ কোটি টাকা ব্যয়সংবলিত সিরাজগঞ্জের বিসিক শিল্প পার্ক, ১৪৩ কোটি টাকা ব্যয়ে এসআরডিআইয়ের ভবন নির্মাণ ও সক্ষমতা বাড়ানো, ২৩৪ কোটি টাকা ব্যয়ে জামালপুরের শেখ হাসিনা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল এবং নার্সিং কলেজ স্থাপন, ৩৯৩ কোটি টাকা ব্যয়ে কিশোরগঞ্জ জেলার হাওর এলাকার নির্বাচিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান উন্নয়ন এবং ৩৪০ কোটি টাকা ব্যয়ে লক্ষ্মীপুর শহর সংযোগ সড়ক প্রকল্প।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা