kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ৩০ জমাদিউস সানি ১৪৪১

সরস্বতী পূজা

ভোট পেছাতে আবেদন এবার আপিল বিভাগে

শুনানি হতে পারে রবিবার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভোট পেছাতে আবেদন এবার আপিল বিভাগে

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সরস্বতী পূজার কারণে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোট পেছানোর জন্য এবার আবেদন করা হয়েছে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের চেম্বার জজ আদালতে। এ বিষয়ে করা রিট আবেদন খারিজ হওয়ায় ওই আদেশের বিরুদ্ধে চেম্বার জজ আদালতে আবেদন করা হয়েছে। ভোটগ্রহণের নতুন তারিখ নির্ধারণ করার আরজি জানানো হয়েছে আবেদনে। আগামী রবিবার ওই আবেদনের ওপর শুনানি হতে পারে বলে জানিয়েছেন রিট আবেদনকারী আইনজীবী অ্যাডভোকেট অশোক কুমার ঘোষ।

সরস্বতী পূজার কারণে নির্বাচন পেছানোর দাবিতে গত ৫ জানুয়ারি হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় রিট আবেদন করেছিলেন আইনজীবী অশোক কুমার ঘোষ। রিট আবেদনটি গত ১৪ জানুয়ারি খারিজ করে দেন হাইকোর্ট। হাইকোর্টের আদেশে বলা হয়, গত ২ ডিসেম্বর সরকার ছুটির তালিকা প্রকাশ করে। সরকারি আদেশ অনুযায়ী সরস্বতী পূজার জন্য ২৯ জানুয়ারি ছুটি। এই ছুটি ঘোষণার পর কেউ আপত্তি করেনি। সুপ্রিম কোর্টের ঘোষিত ছুটির তালিকায়ও সরস্বতী পূজার জন্য ২৯ জানুয়ারি ছুটি। এ ছাড়া ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী এরই মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ হয়েছে। এই প্রতীক নিয়ে প্রার্থীরা নির্বাচনী প্রচারাভিযানে নেমে পড়েছেন। তাই এ মুহূর্তে নির্বাচন পেছানোর সুযোগ নেই।

শুনানিতে রিট আবেদনকারীর আইনজীবীরা বলেছিলেন, ৩০ জানুয়ারি ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু পঞ্জিকা অনুযায়ী ২৯ জানুয়ারি সকাল ৯টা ১৫ মিনিট থেকে ৩০ জানুয়ারি সকাল ১১টা পর্যন্ত সরস্বতী পূজার আনুষ্ঠানিকতা রয়েছে। আর ৩০ জানুয়ারি পঞ্চমীর আগে প্রতিমা বিসর্জন দেওয়া যায় না। তাঁরা আরো বলেন, এ পূজাটি বিশ্ববিদ্যালয়, মহাবিদ্যালয়সহ দেশের প্রায় সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে হয়ে থাকে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভোটকেন্দ্র তৈরি করা হবে। আর সরস্বতী পূজাও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে। ফলে বিষয়টি ধর্মীয় আয়োজনের সঙ্গে সাংঘর্ষিক হয়ে পড়েছে। এ কারণে ৩০ জানুয়ারির নির্ধারিত ভোটগ্রহণ এক সপ্তাহ পিছিয়ে দেওয়া প্রয়োজন।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা