kalerkantho

মঙ্গলবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১২ রবিউস সানি     

ফিলিপাইনের সঙ্গে বৈঠক

রিজার্ভ চুরির টাকা শিগগিরই ফিরছে না

আরসিবিসির জরিমানা দুই কোটি ডলার দিতেও অনীহা

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

৪ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



রিজার্ভ চুরির টাকা শিগগিরই ফিরছে না

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির টাকা ফিলিপাইন থেকে খুব শিগগির ফেরত পাওয়ার কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। এমনকি রিজার্ভ চুরির সঙ্গে জড়িত ফিলিপাইনের রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং করপোরেশনের (আরসিবিসি) কাছ থেকে জরিমানা হিসেবে আদায় করা দুই কোটি ডলারও বাংলাদেশকে দিতে চাচ্ছে না ম্যানিলা। গতকাল মঙ্গলবার ঢাকায় বাংলাদেশ ও ফিলিপাইনের মধ্যে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় পর‌্যায়ে আলোচনা (ফরেন অফিস কনসালটেশন, সংক্ষেপে এফওসি) শেষে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (এশিয়া ও প্যাসিফিক) মাসুদ বিন মোমেন সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

এ সময় তিনি আরো জানান, রিজার্ভ চুরির সঙ্গে জড়িতদের বিষয়ে ফিলিপাইনের কাছে বাংলাদেশ তথ্য চেয়েছে।

চুরি হওয়া রিজার্ভের টাকা ফেরত প্রসঙ্গে মাসুদ বিন মোমেন বলেন, গতকাল বাংলাদেশ ও ফিলিপাইনের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিনিধিরা আলাদাভাবে বৈঠক করেছেন। অত্যন্ত সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে আলোচনা হয়েছে। কিভাবে আরো সহযোগিতা করা যায় সে ব্যাপারে তাঁরা ঐকমত্য পোষণ করেছেন।

তিনি বলেন, “আলাপ-আলোচনা চলছে। আইনি জটিলতা তো আছেই। সুতরাং এটা যে আমরা কালকেই পেয়ে যাব বা পরশুই পেয়ে যাব বা এত পরিমাণ পেয়ে যাব এটা আসলে বলা যাচ্ছে না। তবে আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি; এই ইস্যুটির একটি ‘অ্যামিকেবল’ (সৌহার্দ্যপূর্ণ) সমাধান হয় এবং অন্যান্য দেশের জন্যও যদি উদাহরণ সৃষ্টি করা যায়। তারাও (ফিলিপাইন) স্বীকার করেছে, সৌহার্দ্যপূর্ণ সমাধানই বাঞ্ছনীয়।”

রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন মেঘনায় অনুষ্ঠিত এফওসিতে বাংলাদেশের পক্ষে নেতৃত্ব দেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (এশিয়া ও প্যাসিফিক) মাসুদ বিন মোমেন। ফিলিপাইনের পক্ষে ওই দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি (এশিয়া প্যাসিফিক) মেইনার্দো মন্টেলেগরি নেতৃত্ব দেন। মাসুদ বিন মোমেন জানান, দীর্ঘ চার বছর পর অনুষ্ঠিত এফওসিতে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের সব দিক নিয়ে আলোচনা হয়েছে। আগামী দিনে প্রতি ১৮ মাসে একবার এফওসি অনুষ্ঠানের ব্যাপারে কথা হয়েছে।

তিনি আরো জানান, গতকাল ফিলিপাইনের চেবু চেম্বার অব কমার্সের সঙ্গে এ দেশের চিটাগাং চেম্বার অব কমার্সের একটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) সই হয়েছে। নার্সিং, কৃষি, মেরিটাইম ও তথ্য খাতে এমওইউর খসড়া বিনিময় হয়েছে।

রিজার্ভ চুরির টাকা ফেরত পাওয়ার বিষয়ে মাসুদ বিন মোমেন বলেন, বিচারিক প্রক্রিয়া সব সময় একটু লম্বা হয়। বাংলাদেশ, ফিলিপাইন ও যুক্তরাষ্ট্রে রিজার্ভ চুরি নিয়ে মামলা চলছে।

তিনি বলেন, ‘আমরা ওদের (ফিলিপাইনের প্রতিনিধিদল) কাছে কয়েকটি বিষয়ে তথ্য চেয়েছি। যেমন—অপরাধের হোতাদের কয়েকজনের পরিচয়। এই তথ্যটি তারা এখনো আমাদের সঙ্গে শেয়ার করেনি। সেটা আমরা ওদের কাছে চেয়েছি। এ ছাড়া কিছু আর্থিক তথ্যের বিষয় আছে। সেটাও তারা শেয়ার করবে বলে আমাদের আশ্বাস দিয়েছে।’

মাসুদ বিন মোমেন বলেন, ‘আমরা আশা করি, আর্থিক তথ্য ও পরিচয়ের বিষয়টি যদি নিষ্পত্তি হয় তাহলে বাংলাদেশে যে মামলা আছে তার চার্জশিট দিতে সুবিধা হবে। এটা নিয়ে আমাদের মধ্যে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে।’

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, তথ্য দেওয়ার বিষয়ে কোনো সময়সীমার কথা আলাদাভাবে বলা হয়নি। ফিলিপাইনের বিচার বিভাগের অনুমতি সাপেক্ষে তারা তথ্য দেবে বলে কথা দিয়েছে।

তিনি আরো বলেন, ‘তারা ইতিমধ্যে আরসিবিসিকে ২০ মিলিয়ন (দুই কোটি) ডলার জরিমানা করেছে। সেটা আমরা চেয়েছি। এ ব্যাপারেও আলাপ-আলোচনা চলছে।’

তিনি বলেন, ‘ওদের (ফিলিপাইনের) যুক্তি অন্য রকম আছে। কিছু টাকার এখন পর্যন্ত হদিস করা যায়নি, আমার ধারণা। সুতরাং আমরা ধাপে ধাপে আগাচ্ছি।’

ফিলিপাইন কী বলছে জানতে চাইলে মাসুদ বিন মোমেন বলেন, “টাকা কিছু ‘লন্ডারড’ (পাচার) হয়ে গেছে, আমরা যেটা জানি। সুতরাং সেটা হয়তো আরো অনেক সময় লাগবে তদন্তে। ওদের দেশে তদন্ত চলছে বিভিন্ন পর‌্যায়ে।”

তিনি বলেন, ‘একটা টাকা আছে ২০ মিলিয়ন ডলার, যেটা ওরা জরিমানা করেছে আরসিবিসিকে। ওরা (ফিলিপাইন) বলছে ওই জরিমানা ওদের দেশের ব্যাংকিং আইন লঙ্ঘন করার জন্য। সুতরাং এর সঙ্গে আমাদের যে টাকাটা হারিয়েছে তার সঙ্গে সরাসরি কোনো যোগ নেই। তবে আমরা আমাদের দাবি জানিয়ে যাচ্ছি, আমাদের অন্তত তোমরা (ফিলিপাইন) দিতে পারো। যেহেতু কার্যত একই যোগসূত্রেই ওই পরিমাণ অর্থ জরিমানা করা হয়েছে।’

বৈঠকে রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলা এবং মধ্যপ্রাচ্যে প্রবাসী কর্মীদের সহযোগিতা দেওয়ার বিষয়ে ইতিবাচক আলোচনা হয়েছে।

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা