kalerkantho

শুক্রবার । ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৮ রবিউস সানি ১৪৪১     

জরিপের ভিতর বাহির

১৪ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



জরিপের ভিতর বাহির

‘আকস্মিক সমস্যায়/বিপদে পড়ে মানুষ প্রথম কার কাছে সাহায্য চায় : বিচারের জন্য কার কাছে যায়’ বিষয়ে জরিপ অনুসন্ধানভিত্তিক প্রতিবেদন তৈরির জন্য দেশের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশা-বয়সের মানুষের মুখোমুখি হয়েছিল কালের কণ্ঠ। রাজধানীসহ ২১টি জেলা শহর, ২৬টি উপজেলা এবং পাঁচটি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস ও সংলগ্ন এলাকায় এই জরিপকাজ পরিচালিত হয়। আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক, জেলা, উপজেলা ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিসহ মোট ৫৯ জন সংবাদকর্মী গত প্রায় দুই মাস ধরে দৈবচয়ন পদ্ধতিতে দেশের ৯৬৮ জন মানুষের কাছ থেকে সরাসরি সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে তথ্য ও মতামত সংগ্রহ করেন।

 

‘তথ্য ও মতামতদাতাদের নাম-পরিচয় প্রকাশ করা হবে না’ প্রতিশ্রুতি দিয়ে এই জরিপকাজ চালানো হয়। আমরা দুই হাজারেরও বেশি নাগরিকের কাছে প্রশ্নপত্র নিয়ে গেছি। কিন্তু অতীতের বিপদের কথা জানিয়ে আবারও কোনো নতুন ঝামেলায় পড়েন কি না এ আশঙ্কায় প্রতি দুজনে একজন কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেছেন।

জরিপকালে প্রতি ১০ জনে একজন পাওয়া গেছে, সাম্প্রতিককালে যিনি নিজে কিংবা নিজের পরিবার- পরিজনের বিপদে পড়ার কথা স্মরণ করতে পারেননি। যাঁরা তথ্য দিয়েছেন, তাঁদের ৬০.৭ শতাংশ সরাসরি নিজেদের বিপদে পড়ার তথ্য জানিয়েছেন। বাকি ৩৯.৩ শতাংশ জানিয়েছেন পরিবারের অন্য কারো (২৮.৪%), নিকটাত্মীয় (৩১.৬%) কিংবা পরিচিতজনের (৪০%) তথ্য।

ঘটনাকাল : জরিপে পাওয়া ৫৯.৫% ঘটনাই চলতি বছর ঘটা। গত বছরের ঘটনা ২২.৫%। ২০১৭ সালের ৬%; ৪.১% ২০১৬ সালের; ২.১% ২০১৫ সালের আর বাকি ৫.৮% তার আগের।

করেছেন। জরিপকালে প্রতি ১০ জনে একজন পাওয়া গেছে, সাম্প্রতিককালে যিনি নিজে কিংবা নিজের পরিবার- পরিজনের বিপদে পড়ার কথা স্মরণ করতে পারেননি। যাঁরা তথ্য দিয়েছেন, তাঁদের ৬০.৭ শতাংশ সরাসরি নিজেদের বিপদে পড়ার তথ্য জানিয়েছেন। বাকি ৩৯.৩ শতাংশ জানিয়েছেন পরিবারের অন্য কারো (২৮.৪%), নিকটাত্মীয় (৩১.৬%) কিংবা পরিচিতজনের (৪০%) তথ্য।

ঘটনাকাল : জরিপে পাওয়া ৫৯.৫% ঘটনাই চলতি বছর ঘটা। গত বছরের ঘটনা ২২.৫%। ২০১৭ সালের ৬%; ৪.১% ২০১৬ সালের; ২.১% ২০১৫ সালের আর বাকি ৫.৮% তার আগের।

তথ্যদাতাদের অবস্থান : রাজধানীতে ১৮.৪%, জেলা শহর পর্যায়ে ২৪.৮% এবং উপজেলা ও গ্রাম পর্যায়ে ৫৬.৮%।

তথ্যদাতাদের বয়স : ১৫-২০ বছর ৫ শতাংশের; ২০-৩০ বছর ২৮.৩ শতাংশের; ৩০-৪০ বছর ২৮.৭ শতাংশের; ৪০-৫০ বছর ২৪ শতাংশের এবং ৫০-ঊর্ধ্ব বয়স ১৪ শতাংশের।

তথ্যদাতাদের পেশা : পেশাগত পরিচয়ে ব্যবসায়ী ২৫.২%; শিক্ষার্থী ১৪.৭%; বেসরকারি চাকরিজীবী ১২.৬%; পেশাজীবী ৯.৯%; শিক্ষক ৭.৪%; কৃষিজীবী ৮.৭%; সরকারি চাকরিজীবী ৬%; শ্রমজীবী ৮.৭%; রিকশাচালক ৩.৯% এবং যানবাহনচালক ৩.৩%।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা