kalerkantho

শুক্রবার । ২২ নভেম্বর ২০১৯। ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

রেসিডেনসিয়ালের শিক্ষার্থী আবরারের মৃত্যু

প্রথম আলো সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলা

লাশ তুলে ময়নাতদন্তের নির্দেশ আদালতের

নিজস্ব প্রতিবেদক ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি    

৭ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রথম আলো সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলা

ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজে কিশোর আলোর অনুষ্ঠানে বিদ্যুত্স্পৃষ্ট হয়ে নাঈমুল আবরারের মৃত্যুর ঘটনায় প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমানের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। গতকাল বুধবার ঢাকার অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম আমিনুল হকের আদালতে এ মামলা দায়ের করেন নাঈমুল আবরারের বাবা মুজিবুর রহমান।

মামলায় আবরারের বাবা প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমানের নাম উল্লেখ করে, সেই সঙ্গে নাম উল্লেখ না করে কিশোর আলোর প্রকাশক এবং ওই অনুষ্ঠানের সঙ্গে জড়িত অজ্ঞাতপরিচয়দের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ৩০৪-এর ‘ক’ ধারায় অবহেলার অভিযোগ এনেছেন। যার কারণে তাঁর ছেলের মৃত্যু হয়।

নাঈমুল আবরারের লাশ কবর থেকে তুলে ময়নাতদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে আগে যে অপমৃত্যুর মামলা হয়েছিল সেটি এই মামলার সঙ্গে মিলিয়ে ১ ডিসেম্বরের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য মোহাম্মদপুর থানার ওসিকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

এদিকে আবরারের মৃত্যুকে হত্যাকাণ্ড আখ্যায়িত করেছেন রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। গতকাল বুধবার কলেজের সামনে আবরার হত্যার বিচারের দাবিতে মানববন্ধন করেছেন তাঁরা। এতে অংশ নেন কলেজের অধ্যক্ষ ব্রিগেডিয়ার কাজী শামীম ফরহাদ। তিনিও আবরারের মৃত্যুর জন্য কিশোর আলো কর্তৃপক্ষকে দায়ী করেছেন।

মানববন্ধনে অধ্যক্ষ বলেন, ‘আবরারের মৃত্যুর দায় অবশ্যই কিশোর আলো কর্তৃপক্ষকে নিতে হবে। দূরের হাসপাতালে তাকে নেওয়ার কোনো যুক্তিই খুঁজে পাচ্ছি না। অনুষ্ঠানে কেউ আহত হয়েছে, বিষয়টি আমাদের জানানো হয়নি। হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছে, এমনটাও জানানো হয়নি। ৫টা ৩০ মিনিটের দিকে আমাকে আনিসুল হক প্রথম কল করেন, ততক্ষণে সব শেষ।’

গত শুক্রবার বিকেলে ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজ ক্যাম্পাসে প্রথম আলোর সাময়িকী কিশোর আলোর অনুষ্ঠান চলাকালে বিদ্যুত্স্পৃষ্ট হয়ে নাঈমুল আবরারের মৃত্যু হয়। সে ওই প্রতিষ্ঠানের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা